মোজা থেকে পায়ে গন্ধ, আর নয়!

মোজা থেকে পায়ে গন্ধ, আর নয়!
মোজা থেকে পায়ে গন্ধ, আর নয়!
এক টুকরো কাপড় বা তুলা লবঙ্গ তেলে ভিজিয়ে জুতার মধ্যে রেখে দিন সারা রাত। এতে করে জুতার দুর্গন্ধ দূর হবে। এছাড়াও শুধু কয়েকটি লবঙ্গ জুতা বা মোজার মধ্যে রেখে দিতে পারেন। কয়েকঘন্টা রাখার পর দেখবেন গন্ধ উধাও।  

সারা বছর জুড়ে খুব কম মানুষই মোজা পরে। কিন্তু শীতের সময় যেমন গরম জামা পড়ার ধুম পড়ে যায় তেমনি সাথে মোজা পড়ারও অনেক প্রবণতা দেখা যায়। শীত নিবারণে মোজা তো পরছেন।  কিন্তু সমস্যা হয়ে দাড়াচ্ছে অনেকের পায়েই মোজা পরলে গন্ধ হয়। আবার অনেকের  পা ঘেমে গেলেও গন্ধ হয়। এ অবস্থায় লোকজনের সামনে লজ্জায় পরতে হয় প্রায়শই। 


তাই আজকের আয়োজনে আমরা আলোচনা করবো কিছু বিষয় নিয়ে যা মেনে চললে সহজেই এই গন্ধ থেকে মুক্তি  পাওয়া সম্ভব। 

 


বেকিং সোডা 

 

 

মোজার গন্ধ দূর করতে বেকিং সোডা অনেকটা উপকারি। আপনার ব্যবহৃত মোজায় ১/২ চামচ বেকিং সোডা বেঁধে  জুতার মধ্যে রেখে দিতে পারেন।  রাতে এই প্রক্রিয়াটি কাজে লাগালে সকালে দেখবেন সকল গন্ধ দূর হয়ে গেছে।  

এছাড়াও জুতার মধ্যে সামান্য বেকিং সোডা লাগিয়ে নিতে পারেন । পরদিন জুতার ওই অংশটি মুছে পরিষ্কার করে জুতা পরুন। এভবেও দুর্গন্ধ চলে যাবে। তবে চামড়ার জুতার ক্ষেত্রে সতর্ক থাকতে হবে। চামড়ার জুতায়  বেকিং সোডা একদমই ব্যবহার করবেন না।  

 

 

লবঙ্গ

 

 

এক টুকরো কাপড় বা তুলা লবঙ্গ তেলে ভিজিয়ে জুতার মধ্যে রেখে দিন সারা রাত। এতে করে জুতার দুর্গন্ধ দূর হবে। এছাড়াও শুধু কয়েকটি লবঙ্গ জুতা বা মোজার মধ্যে রেখে দিতে পারেন। কয়েকঘন্টা রাখার পর দেখবেন গন্ধ উধাও।  

 


টি ব্যাগ

 

 

কমবেশি আমরা সবাই প্রত্যেকদিন চা পান করি।  আর শীতের মৌসুমে চায়ের জনপ্রিয়তা থাকে তুঙ্গে। তাই হাতের কাছে টি ব্যাগ পাওয়া খুব সহজ। কয়েকটি ব্যবহৃত টি ব্যাগ জুতার মধ্যে রেখে দিতে পারেন।  ঘণ্টাখানেক পর টি ব্যাগ সরিয়ে ফেলেবেন। গন্ধ চলে যাবে। 

 


এসব ছাড়াও স্নিকারস দুর্গন্ধমুক্ত রাখতে মাঝে মাঝে সামান্য লবণ ছিটিয়ে দিতে পারেন।