Skip to content

৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিষ্টাব্দ | রবিবার | ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ত্যাগ করুন পুরুষতান্ত্রিক মানসিকতা

ঈদুল আজহাকে বলা হয় ত্যাগের উৎসব। মুসলমান ধর্মের মানুষ আল্লাহতায়ালার নৈকট্য লাভের উদ্দেশ্যে ত্যাগ বা উৎসর্গ করে থাকেন। কিন্তু এই ত্যাগের কথা যদি চিন্তা করি তাহলে নিজের মধ্যে যে বদঅভ্যেস কিংবা ঘুনে ধরা মানসিকতা রয়েছে সবার আগে তা ত্যাগ করা উচিত। যার মধ্যে অন্যতম একটি হলো পুরুষতান্ত্রিক মানসিকতা, যা সবার আগে ত্যাগ করা উচিত। আজ ঈদের দিন প্রায় প্রতিটি পরিবারেই পুরুষতান্ত্রিক মানসিকতা প্রকট আকারে দেখা যাবে।

ঈদে কেনাকাটা থেকে শুরু করে সাজগোজ, খাওয়াদাওয়া, সবকিছুই যেন ভিন্ন একমাত্রা লাভ করে। ঈদের দিন কবজি ডুবিয়ে খেতে খেতে একবারও কি ঘরের পুরুষ সদস্যরা ভাবেন এতোগুলো রান্না এত কম সময়ে হলো কিভাবে? কেউ কেউ তো আবার খুঁত ধরতে ব্যস্ত থাকেন, লবণ বোধ হয় একটু কম হলে ভালো হতো!

দিনটি নারী, শিশু, পুরুষ, বৃদ্ধ সবার একইভাবে উপভোগ করা উচিত হলেও নারীরা কি সেই সুযোগটা পায়? ঈদের ৭-৮ দিন আগে থেকে শুরু হয় শেষ মুহুর্তের প্রস্তুতি। ঘর-বাড়ি ঝাড় পোছ করা, বিছানার চাদর, জানালার পর্দা, সব ধুয়ে পরিস্কার করা সব একা হাতেই করতে হয় নারীদের। তারপর ঈদের আগের রাতে শুরু হয় রান্নার জন্য মশলাপাতি রেডি করা, ঘরের কোন সদস্য কি খাবেন তার তালিকা তৈরি করা। এসব চলে পুরো রাত জুড়ে। আবার রাতভর কাজ শেষে কাকডাকা ভোরে ঘুম থেকে উঠে শুরু হয় আরেক দফা কাজ।

সকাল থেকে রান্না-বান্না, পরিবারের সবাইকে খাওয়ানো-দাওয়ানো আর অতিথি আপ্যায়নের তোরজোড়ে দুপুর গড়িয়ে সন্ধ্যা, সন্ধ্যা পেরিয়ে রাত। এতো কাজের জেয়ারে সময়মত গোসল করাই হয়তোবা হয়ে ওঠে না, আবার খাওয়াদাওয়ার পার্ট তো আসে সবার খাওয়া শেষে। অনেক সময় অতিথিদের আপ্যায়ন শেষে খাবার ফুরিয়ে এলে, ঈদের দিনেও উপোস থাকতে হয় ঘরের নারী সদস্যকে।

পুরুষতান্ত্রিক সমাজে চিরাচরিত নিয়ম ধরা হয়, ঘরের সব কাজ নারীই করবে। আর উৎসব-অনুষ্ঠানের দিনে নারীর ওপর মানসিক চাপও যেনো অনেকটা বেড়ে যায়। কোথায় কি ভুল হয়ে যায় সে দুশ্চিন্তায় পার হয় পুরো দিন। প্রগতিশীল অনেক পরিবারই রান্না বান্না, বাড়ি ঘর পরিষ্কার করা, অতিথি আপ্যায়ন ইত্যাদি সব শুধু একা নারীর কাজ মনে করেন না। তবে দুঃখজনক একটি বিষয় হলো এ সংখ্যা খুবই নগণ্য।

উৎসবপ্রিয় বাঙালিরা বিভিন্নভাবে ঈদ উদযাপন করলেও নারীরা যুগের পর যুগ ধরে ঈদ উপভোগ থেকে বঞ্চিত হয়ে আসছে। ঈদ আসে নারী পুরুষ সবার জন্যই। ফলে নারীদের উপর সকল কাজের দায় না চাপিয়ে যদি পরিবারের নারী পুরুষ সবাই মিলে কাজগুলো ভাগ করে নেয়, নারীর জন্যও সহজ হয় ঈদ উপভোগ। তাই ত্যাগ করতে হলে সবার আগে নিজের মধ্যাকার পুরুষতান্ত্রিক মানসিকতা ত্যাগ করুন।

ডাউনলোড করুন অনন্যা অ্যাপ