গুছিয়ে ক্যামেরার সামনে

প্রতীকী ছবি
করোনা পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যাচ্ছে পুরো দেশ। প্রায় দুই মাসের বেশি সময় ধরে চলেছে লকডাউন। সম্প্রতি লকডাউন শিথিল করা হলেও বেশিরভাগ মানুষই অফিস করছেন নিজ বাসা থেকেই। আমরা যেটাকে বলি 'ওয়ার্ক ফ্রম হোম'। এক্ষেত্রে বাসায় থাকলেও অফিসের প্রতিদিনের কাজ চলছে নিয়ম মতোই। তবে এর মাঝেও বদলেছে অনেক কিছু।

 

আগে হয়তো সকালে উঠে ফ্রেশ হয়ে এক কাপ চা, আর তারপর রেডি হয়ে অফিসে ছুটতাম আমরা। দিনের শুরু থেকে বিকাল বা সন্ধ্যা, অফিসেই কাটতো আমাদের। তবে এখন পরিস্থিতি ভিন্ন। প্রায় সবাই কাজ করে যাচ্ছি যে যার বাসা থেকে। আগে যেখানে অফিসের কনফারেন্স রুমে মিটিংয়ের মধ্য দিয়ে দিন শুরু হতো, সেখানে এখন হয়তো দিন শুরু হয় অনলাইন মিটিংয়ের মধ্য দিয়ে। লকডাউনে পরিবারের সবাই যখন বাসায়, তখন সেখান থেকেই মোবাইল, পিসি বা ল্যাপটপের সামনে বসে চলে মিটিং আর কাজ। এতো কিছুর ভিড়ে আর সময়ের অভাবে তাই পরিপাটি হয়ে কাজ শুরুর কথাই হয়তো ভুলে যাই আমরা। তবে মিটিং অফিসেই হোক আর বাসা থেকেই হোক, যোগ দেয়ার আগে একটু পরিপাটি করে নিজেকে গুছিয়ে নেয়াই ভালো। অনলাইনে হলেও, সেটা আমাদের কাজেরই তো একটা অংশ।

 

আপনার দিন যদি শুরু হয় অনলাইন মিটিংয়ের মধ্য দিয়ে, তাহলে রাতেই ঠিক করে রাখতে পারেন সকালে উঠে কোথায় বসবেন। সেটা ঠিক হলে জায়গাটা একটু গুছিয়ে রেখে দিন। এতে সকালের তাড়াহুড়ো অনেকাংশে কমবে। সেই সঙ্গে যখন মিটিংয়ে বসবেন, চেষ্টা করুন মুখের সামনে একটা আলোর ব্যবস্থা করতে। আলোর সেই উৎস হতে পারে জানালা কিংবা বাতি। পাশাপাশি যেই ডিভাইস দিয়ে মিটিংয়ে যোগ দিচ্ছেন, সেটা খানিকটা উঁচুতে রাখুন। এক্ষেত্রে স্ট্যান্ড বা টেবিল জাতীয় কিছু ব্যবহার করতে পারেন অনায়াসেই। চোখ বরাবর উচ্চতায় স্মার্টফোন, ল্যাপটপের ক্যামেরা বা ওয়েবক্যাম থাকলে চেহারা দেখতে ভালো লাগবে।

 

স্ট্রিম ইয়ার্ড, জুম বা স্কাইপ, মিটিংয়ে যোগ দেয়ার জন্য যে সফটওয়্যারই ব্যবহার করুন না কেন, জেনে নিন কিভাবে এর বিউটি মুড বা টাচ আপ মুড অন করা যায়। এর ফলে আপনার ত্বকের কোনো অনাকাক্সিক্ষত সমস্যা আর দেখা যাবে না। একই সাথে সফটওয়্যার থেকে দরকার হলে ব্যাকগ্রাউন্ডও পরিবর্তন করে নিতে পারেন পছন্দ মতো।

 

প্রযুক্তির হিসেব চুকিয়ে এখন আসা যাক ত্বকের দিকে। দেশে চলমান পরিস্থিতি নিয়ে কম-বেশি চিন্তিত আমরা সবাই। এর সাথে দীর্ঘদিন ধরে চার দেয়ালের মাঝে বন্দি জীবন, অপর্যাপ্ত ঘুম ইত্যাদি নানা কারণে ত্বকে এবং চোখের নিচে দেখা দিতে পারে কালো দাগ। তাই সর্বদা ত্বক পরিষ্কার রাখার চেষ্টা করুন। আর কালো দাগ থেকে মুক্তি পেতে খোসাসহ শসা ব্লেন্ড করে ফেলুন। এরপর এর সঙ্গে গ্রিন টি মিলিয়ে নিন এবং মিশ্রণটি তুলায় ভিজিয়ে চোখের নিচে লাগিয়ে নিন।  চোখের নিচের কালচে ভাব চলে যাবে। চাইলে মিশ্রণটিতে ছোট গোল তুলা ডুবিয়ে উঠিয়ে নিন। এবার ফ্রিজে রেখে দিন। যখন প্রয়োজন, তখনই ব্যবহার করতে পারবেন।

 

প্রযুক্তি আর ত্বকের যত্নের পর আসে সাজগোজ বা রূপচর্চার পালা। যেহেতু বাসা থেকেই অফিস মিটিংয়ে যোগ দিচ্ছেন, তাই খুব ঘটা করে সাজার প্রয়োজন নেই। সেক্ষেত্রে মুখ ফেসওয়াশ দিয়ে ভালো মতো ধুয়ে ফেস পাউডার লাগালেই হলো। ঠোটে কড়া রঙের লিপস্টিক না ব্যবহার করে হালকা রঙের কিছু বেছে নিন। এমনকি সেটা হতে পারে লিপগ্লসও। চোখে আর আলাদা করে কিছু না দিলেও সমস্যা হবে না।

 

যেহেতু অনলাইন মিটিং, তাই মুখমণ্ডল আর জামার অংশটুকু পরিপাটি করে বসে পড়লেই চলবে। বাসায় নিয়মিত পড়া কোনো ট্রাউজারের উপরেই একটা জামা বা কামিজ পড়ে বসে পড়ুন ক্যামেরার সামনে।