Skip to content

২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিষ্টাব্দ | রবিবার | ১০ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পিরিয়ড সংক্রান্ত ব্যথার ঘরোয়া সমাধান!

পিরিয়ডের সময় একটা মেয়েকে ভুগতে হয় নানা সমস্যায়। এসময় মেয়েদের শরীরে হরমোনের নানারকম পরিবর্তন হয়। 

 

প্রতিমাসে নির্দিষ্ট ওই সময়টা কাটে নানারকম দুশ্চিন্তায়। তলপেটে ব্যথা,  কোমরে ব্যথা এবং বমি হওয়াসহ দেখা দেয় বিভিন্ন জটিলতা। চক্ষুলজ্জার কারণে বেশিরভাগ মেয়ে-ই এ ব্যাপারে খোলামেলা আলোচনা করতে চান না। যার কারণে মুখ বুঝে ব্যথা সহ্য করে যান। এর ফলস্বরুপ  কাজকর্মে তো মন বসেই না উল্টা ঘর থেকেই বের হতে চান না অনেকে। তবে ঘরোয়া কিছু উপায় মেনে চললে কোমর ব্যথা থেকে পরিত্রাণ পাওয়া সম্ভব। 

 

পিরিয়ডের সময় খাদ্যাভ্যাসে পরিবর্তন আনা জরুরি। এসময় যতটা সম্ভব পুষ্টিকর খাবার গ্রহণ করতে হবে। ফলমূল জাতীয় খাবার অর্থাৎ যেসব খাবারে পানি ও খনিজ রয়েছে খাবার তালিকায় এমন খাবার রাখতে হবে। এছাড়া পিরিয়ড চলাকালীন সময়ে নানা কারণে অস্বস্তি লাগে তাই প্রচুর পরিমাণে পানি পান করতে হবে। এবার ঘরোয়া উপায়গুলো জেনে নেওয়া যাক-

 

ফাস্টফুড বাদ দিন

পিরিয়ডের সময় ফাস্টফুড জাতীয় খাবার পরিহার করতে হবে। তেলে ভাজা খাবার যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলতে হবে। প্রয়োজনে বেশি বেশি করে ফলমূল খেতে হবে। এতে শরীরে পুষ্টির অভাব হবে না।

 

 

আদা

পিরিয়ড চলাকালীন সময়ে কোমর বা পিঠের ব্যথার কার্যকরী ভূমিকা পালন করে আদা। পিরিয়ডের সময়ে আদা চা খেলে বেশ উপকার পাওয়া যায়। এছাড়া মেয়েদের শরীরের যে হরমোনের কারণে ব্যথার হয় আদা সেটার ক্ষরণ আটকায়। আদা কুচি কুচি করে কেটে গরম পানিতে ফুটিয়ে তারপর ছেঁকে মধু মিশিয়ে অল্প করে খেলেও ব্যথা অনেকটা কমে যায়।

 

 

হারবাল টি

আদা, গোলমরিচ, মধু আর সামান্য লেবুর রস মিশিয়ে গ্রিন টি বানিয়ে খেয়ে নিন। এছাড়া পুদিনা পাতা গরম পানিতে দিয়ে সাথে চা পাতা দিয়ে দিন। এটি পান করার ফলে পিরিয়ডের সময় শরীরে ক্লান্তি আসবে না এবং ব্যথা সহজেই দূর হবে।

 

 

তুলসী

পিরিয়ডের ব্যথা কমাতে তুলসী গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এতে থাকা ক্যাফেয়িক অ্যাসিডের অ্যানালজেসিক ও ব্যথা কমানোর উপাদান রয়েছে যা পিরিয়ডের সময় কোমর ব্যথা দ্রুত কমিয়ে দেয়। এক গ্লাস ফুটন্ত গরম পানিতে কয়েকটা তুলসী পাতা ফেলে ২/৩ ঘণ্টা পর পর খেয়েই নিন। কোমর ব্যথার অনেকটা আরাম পাবেন। 

 

 

তিল

পিরিয়ডের ব্যথা নিরাময়ের জন্য তিল বেশ কার্যকরী। এটি রক্ত চলাচলকে স্বাভাবিক করে পেটে ব্যথা কমাতে সাহায্য করে। তাই পিরিয়ডের শুরুর ২/৩ দিন আগে থেকে তিল পানিতে ভিজিয়ে খেয়ে নিন। দেখবেন ব্যথা থাকবে না।

 

 

প্রচুর পানি পান

পিরিয়ডের সময় বেশি বেশি করে পানি পান করতে হবে। এসময় বেশি করে পানি পান করলে হজম ভালো হয় এবং হরমোনগুলো সঠিকভাবে কাজ করতে পারে। তাই পিরিয়ডের সময় ব্যথা হলে পানি পান করা কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিন।

 

 

চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহণ

পিরিয়ডের সময় ব্যথা যদি খুব বেড়ে যায় বা সহ্য সীমার বাইরে চলে যায় তাহলে দেরি না করে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহণ করুন।