Skip to content

৩০শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিষ্টাব্দ | শুক্রবার | ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রায় দীর্ঘ ১৮ বছর পর বিসিএস ভাইভার অনুমতি পেলেন সুমনা

দীর্ঘ ১৮ বছর আগে ২০০৩ সালে বিসিএস( স্বাস্থ্য) পরীক্ষায় প্রিলিমিনারি ও লিখিত পরীক্ষায় মুক্তিযুদ্ধ কোটায় পাস করে সুমনা সরকার । মূল সনদ দেখাতে না পারায় ভাইভা পরীক্ষার কার্ড ইস্যু করা হয়নি। এই নিয়ে আদালতে রিট দায়ের করা হলে দীর্ঘ শুনানি শেষে সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি) এর করা আবেদন নিষ্পত্তি করার মধ্য দিয়ে ভাইভা পরীক্ষার অনুমতি পান সুমনা সরকার।

আলাদত পিএসসি কে এই আদেশ বাস্তবায়ন করার নির্দেশ দেন। পিএসসির করা আবেদন নিষ্পত্তি করে গত বৃহস্পতিবার এই আদেশ দেন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের তিন বিচারপতির বেঞ্চ।

 

আদালতে সুমনা সরকারের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন মোতাহার হোসেন সাজু ও সেলিনা আক্তার চৌধুরী এবং পিএসসির পক্ষে শামীম খালেদ।  ডা. সুমনা বর্তমানে চট্টগ্রামের একটি বেসরকারি হাসপাতালে কর্মরত আছেন।

 

আইনজীবীরা জানান, ২০০৩ সালে সুমনা সরকার ২৩তম বিসিএস (স্বাস্থ্য) প্রিলিমিনারি ও লিখিত পরীক্ষায় পাস করেন। কিন্তু তার মূল সনদ দেখাতে না পারায় ভাইভা পরীক্ষায় তার কার্ড ইস্যু করা হয়নি। এরকম ছিলেন আরও ২৯২ জন। এর মধ্যে ১২ জন হাইকোর্টে রিট দায়ের করেন।

 

ঐ রিটের শুনানি নিয়ে হাইকোর্ট তাদের ভাইভা পরীক্ষা নিতে পিএসসিকে নির্দেশ দেয়। পরে তারা নিয়োগ পান। নির্দেশের পর সুমনা সরকার ভাইভা নেওয়ার আবেদন জানিয়ে একটি প্রবেশন সনদসহ পিএসসির বরাবর একটি দরখাস্ত দেন।কিন্তু পিএসসি তাকে সুযোগ দেয়না। পরবর্তীতে ২০০৯ সালে সুমনা পুনরায় হাইকোর্টে রিট করেন।

 

ঐ রিটের দীর্ঘ শুনানি চলে ২০১৫ সাল অব্দি। সেই রায়ে হাইকোর্ট সুমনার ভাইভা পরীক্ষা নেওয়ার নির্দেশ দেয়। কিন্তু পিএসসি সে রায় মেনে না নিয়ে, তার বিরুদ্ধে আপিল করে। ফলে চেম্বার জজ আদালত হাইকোর্টের রায়টি স্থগিত করে দেয়। আপিল বিভাগে ঐ আবেদনের উপর আবার শুনানি হয়। শুনানি শেষে স্বচ্ছ আদালত ভাইভা পরীক্ষা নেওয়ার জন্য পিএসসিকে নির্দেশ দেয়।

 

আইনজীবীরা জানান, কতদিনের মধ্যে ভাইভা পরীক্ষা নিতে হবে পিএসসিকে সে বিষয়ে এখনো কিছু জানা যায় নি। আদালতের আদেশ পাওয়া গেলে জানা যাবে কতদিনের মধ্যে ভাইভা পরীক্ষা নেওয়া হবে।