Skip to content

১৭ই মে, ২০২৪ খ্রিষ্টাব্দ | শুক্রবার | ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

লোকসংগীতের দৌলতে খ্যাতি পাচ্ছে ফিনল্যান্ডের কাউস্টিনেন

বিশ্বায়নের চাপে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য হারিয়ে যাচ্ছে৷ ফিনল্যান্ডের এক অঞ্চলে লোকসংগীত, লোকনৃত্য, বাদ্যযন্ত্র ও ছন্দের টানে এখনো অনেক মানুষ ছুটে যাচ্ছেন৷ এক উৎসবে সেই ঐতিহ্য জীবন্ত হয়ে ওঠে৷

আপাতদৃষ্টিতে ফিনল্যান্ডের কেন্দ্রভাগে কাউস্টিনেন অঞ্চল আকর্ষণহীন মনে হলেও বাস্তবে সেই ধারণা ঠিক নয়৷ সেখানে সন্ধায় মনোরঞ্জনের খাসা ব্যবস্থা৷ কাউস্টিনেন দূর-দূরান্তেও আমুদে সাংগীতিক ঐতিহ্যের জন্য পরিচিত৷ সেখানকার তরুণ প্রজন্মের কাছেও সেই লংগীত বেশ জনপ্রিয়৷

১৬ বছর বয়সি এর্কি অন্য টিনএজারদের মতোই অনেক সময় ল্যাপটপ ঘেঁটে কাটায় এবং গিটার বাজায়৷ তবে বেহালাকেই সে বেশি গুরুত্ব দেয়৷ সে বলে, ‘‘যখনই আমি স্কুলে বেহালা বাজাতে চাই আমার কয়েকজন বন্ধু বলে, না না দয়া করে একেবারেই কোরো না৷ কিন্তু মনে হয় আজকাল আমার বন্ধুদের জন্যও সেটা স্বাভাবিক হয়ে উঠেছে৷ আমি কিছু লোকগীতি বাজাই৷”

এর্কি প্রতি বছর কাউস্টিনেনের লোকসংগীত অনুরাগীদের সঙ্গে এক সপ্তাহ ধরে সারা দিনের রিহার্সালে যোগ দেয়৷ সবার জন্য উন্মুক্ত সেই উৎসবে সবচেয়ে তরুণ লোকসংগীত অনুরাগীদেরও আমন্ত্রণ জানানো হয়৷ গোটা ফিনল্যান্ড থেকে মানুষ এসে সেই উৎসবে যোগ দেন৷

বিভিন্ন জায়গায় ঐতিহ্যগত লোকসংগীত লোপ পাচ্ছে৷ তবে কাউস্টিনেনের পরিস্থিতি আলাদা৷ ফিনিশ লোকসংগীত ইনস্টিটিউটের মাটি হাকামেকি মনে করেন, ‘‘কাউস্টিনেনের এমন ধরনের সুখ্যাতি এবং সংগীত, ঐতিহ্য, লোকনৃত্য ও উৎসব না থাকলে পরিস্থিতি একেবারে অন্যরকম হতো৷ লোকসংগীত আসলে কিন্তু ভবিষ্যতের সংগীত৷”

এর্কি সেইসঙ্গে অতীত সম্পর্কেও আগ্রহী৷ তার ৭৩ বছর বয়সি পিতামহ মাউনো ইয়েরভেলে কাউস্টিনেনের বাদ্যযন্ত্র ও অভিনব ছন্দের ইতিহাস সম্পর্কে সব কিছু জানেন৷ তাঁর বাবাও সংগীতশিল্পী ছিলেন৷ তিনি বলেন, ‘‘সে যুগে তার গ্রীষ্মে বিয়ের অনুষ্ঠানে বাজনা বাজিয়েছেন৷ কমপক্ষে সারা দিন, কখনো এমনকি তিন দিন ধরে অনুষ্ঠান চলেছে৷”

ইউরোপীয় ইউনিয়নের এক প্রকল্পের আওতায় সাংস্কৃতিক গবেষকরা ইউরোপের উত্তরাঞ্চলে এমন ধরনের ‘স্টোরি’ সংগ্রহ করছেন৷ আইসিএইচ নর্থ প্রকল্পের সারা কাল-ফ্র্যোইড্যো বলেন, ‘‘এক জীবন্ত ঐতিহ্য এমন এক প্রক্রিয়া যার বিকাশ ঘটে চলেছে এবং এখনো চালু আছে৷ কোনো কিছু আর্কাইভে রাখার অর্থ, সেটা আর জীবন্ত ঐতিহ্য নয়৷ অনেকটা মিউজিয়ামের মতো৷”

কাউস্টিনেন এমন এক জায়গা, যা ফিনল্যান্ডের ঐতিহ্য বাঁচিয়ে রেখেছে৷ বিদায়ী কনসার্টের সময়ে আবেগের ঝড় উঠলো৷

অনন্যা/এআই

ডাউনলোড করুন অনন্যা অ্যাপ