Skip to content

১লা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিষ্টাব্দ | বৃহস্পতিবার | ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাসে সিসিটিভি: নারীর নিরাপত্তা নিশ্চিত হোক

নারী-পুরুষের সম্মিলিত উদ্যোগেই একটি সুস্থ সমাজ গঠন করা সম্ভব। কিন্তু সমাজে পুরুষের জন্য যতটা সুযোগ -সুবিধা নিশ্চিত করা গেছে নারীর জন্য তা সম্ভব হয়নি। এর নেপথ্যে রয়েছে পুরুষের নারী বিদ্বেষ। পুরুষতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থায় নারীকে দমিয়ে রাখাই যাদের স্বভাবজাত সেখানে নারীর স্বাবলম্বী জীবন তাদের চক্ষুশূল। ফলে ঘরের বাইরে নারীদের উপস্থিতি ঘটলেই পুরুষের মধ্যে একধরনের শোষণমূলক চিন্তা দেখা দেয়। তাদের পাশবিকতা দিয়ে নারীকে দমিয়ে দিতে চায়।

নারীরা যেন ঘরের বাইরে পা দিতেই ভয় পায় সেই চেতনাকে ধারণ করে এই শ্রেণি নারীকে প্রতিনিয়ত শোষণ করে চলেছে। তার জন্য গণপরিবহনেও হচ্ছে যৌন নির্যাতন, ধর্ষণ! নানারকম নিপীড়নমূলক কর্মকাণ্ড।

গণপরিবহনের এসব কুকর্মকে রুখতে হলে নিশ্চিত করতে হবে নারীর নিরাপত্তা। গড়ে তুলতে হবে সামাজিক প্রতিরোধ। রাষ্ট্রীয় পর্যায় থেকে কঠোরহস্তে দমন করতে হবে নারীর প্রতি এরূপ পাশবিক অত্যাচার। আইনের কঠোর প্রয়োগ অনেকাংশেই কমিয়ে আনবে এসব নিপীড়ন। তবে আইনের চোখ সবসময় বাঁধা। ফলে আইন চায় প্রমাণ। কিন্তু এরূপ ঘটনায় সাক্ষ্য যেন মেলেই না। নানারকম মানসিক টানাপড়েনের মধ্যে দিয়ে কেউই যেতে চায় না। ফলে ভুক্তভোগী নারী তার বিচার পান না।

সহজেই অপরাধীকে শনাক্ত করা যাবে। তাই প্রাথমিক পর্যায়ে নারী ও শিশু মন্ত্রণালয়ের এ উদ্যোগ প্রশংসার দাবিদার। সেইসঙ্গে দেশের সর্বত্র নারীর নিরাপত্তায় গণপরিবহনে সিসি ক্যামেরা বাধ্যতামূলক করতে হবে।

আবার অনেকক্ষেত্রে নারীকেই উল্টো বিপাকে পড়তে হয় নিপীড়নের শিকার হলে! বেশিরভাগই নারীকে দোষারোপ করে তার ওপর ঘটা নির্যাতনের জন্য। এমনকি গণপরিবহনেরত এসব যাত্রীদের মেনে নেওয়া, মানিয়ে নেওয়ার কথায় অপরাধী ছাড় পায় সেসময়। তবে আশার কথা এই যে হয়তো এধরনের সমস্যার সমাধান হতে খুব বেশি আমাদের অপেক্ষার প্রহর গুনতে হবে না।

গণপরিবহনে নারীকে যৌন হয়রানি, ধর্ষণের মতো বহু অপ্রীতিকর পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হচ্ছে বারংবার। কিছুতেই যেন এ ধরনের বেপরোয়া অন্যায়কে থামানো যাচ্ছে না। প্রতিদিন দেশের অভ্যন্তরে ঘটে চলে বহুবিধ অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার। এরূপ অনাকাঙ্ক্ষিত সমস্যার পরিত্রাণ ঘটাতে নারী ও শিশু মন্ত্রণালয় বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

নারী যাত্রীদের নিরাপত্তার স্বার্থে গণপরিবহনে ১০০টি সিসি ক্যামেরা বসানোর উদ্যোগ গৃহীত হয়েছে। নারীদের নিরাপত্তায় সত্যিই এটা প্রশংসনীয় উদ্যোগ। তবে বিশেষ কিছু গণপরিবহনে নয় বরং শহরাঞ্চলের প্রতিটি বাসেই এ সুবিধা নিশ্চিত করতে হবে। এ ব্যাপারে শুধু প্রয়োজন সরকারি আদেশ জারি করা। ব্যক্তিমালিকানাধীন প্রত্যেকটি গনপরিবহণে সিসিক্যামেরা থাকা বাধ্যতামূলক করতে হবে। তাহলে শুধু নারীর নিরাপত্তা জোরদার করা যাবে এমন সঙ্গে চুরি, ছিনতাই, মলমপার্টিদেরও উপদ্রব কমে আসবে। সহজেই অপরাধীকে শনাক্ত করা যাবে। তাই প্রাথমিক পর্যায়ে নারী ও শিশু মন্ত্রণালয়ের এ উদ্যোগ প্রশংসার দাবিদার। সেইসঙ্গে দেশের সর্বত্র নারীর নিরাপত্তায় গণপরিবহনে সিসি ক্যামেরা বাধ্যতামূলক করতে হবে।

ডাউনলোড করুন অনন্যা অ্যাপ