স্ক্যাবিস বা খোসপাঁচড়ায় সতর্কতা 

স্ক্যাবিস বা খোসপাঁচড়ায় সতর্কতা 
সংগৃহীত
বাসায় কোন একজন আক্রান্ত হলে অন্য সদস্যদেরও এ রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি থাকে। বিশেষ করে গরমকালে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতায় ঘাটতি হলে এ রোগ বেশি হয়। একজন থেকে আরেকজনে স্পর্শের মাধ্যমে বা রোগীর ব্যবহৃত কাপড়, গামছা, তোয়ালে, বিছানার চাদর, বালিশ ব্যবহার করলে এ রোগ ছড়াতে পারে। 

স্ক্যাবিস বা খোসপাঁচড়া  একধরনের  চর্মরোগ। এধরণের চর্মরোগ ছোঁয়াচে হয়ে থাকে। এটি ভাইরাস বা ব্যাকটেরিয়া জনিত নয়, বরং এটি ত্বকে বাসা বাঁধে এমন একধরনের কীটের কারণে হয়। এই কীটের নাম স্ক্যাবিয়াই সারকপটিস স্ক্যারিবাই। এটি ত্বকের মধ্যে ডিম পেড়ে বংশবিস্তার করে। 

 

বাসায় কোন একজন আক্রান্ত হলে অন্য সদস্যদেরও এ রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি থাকে। বিশেষ করে গরমকালে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতায় ঘাটতি হলে এ রোগ বেশি হয়। একজন থেকে আরেকজনে স্পর্শের মাধ্যমে বা রোগীর ব্যবহৃত কাপড়, গামছা, তোয়ালে, বিছানার চাদর, বালিশ ব্যবহার করলে এ রোগ ছড়াতে পারে। 

 

স্ক্যাবিস হলে সারা শরীরে চুলকানি হয়। তবে আঙুলের ফাঁকে, নিতম্বে, যৌনাঙ্গে, হাতের তালুতে, কবজিতে, বগল, নাভি ও কনুইয়ে চুলকানি শুরু হয় এবং পরে সমস্যা আরও বাড়তে থাকে। এ ক্ষেত্রে চুলকানি রাতে বেশি হয়। ছোট ছোট ফুসকুড়ি ওঠে, যা খুব চুলকায় এবং তা থেকে পানির মতো তরল পদার্থ বের হতে পারে। 

 

চুলকানির কারণে ক্ষত হতে পারে এবং সে ক্ষেত্রে অন্য সংক্রমণ হওয়ার ঝুঁকি দেখা দেয়। 

 

তাই বিশেষ করে এই গরমের সময় এধরণের সমস্যা থেকে মুক্ত থাকতে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকতে হবে। যদিও বাসায় কোন একজনের হয় তবে তার ব্যবহারে জিনিসপত্র আলাদা করে ফেলতে হবে।  চর্মরোগ বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে হবে।