Skip to content

২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিষ্টাব্দ | রবিবার | ১০ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শরতের ফ্যাশন যেমন হবে

শরৎ মানেই শুভ্র সুন্দর এক ঋতু। সাদা মেঘের ভেলা আর শিউলি ফুলের মেলার সঙ্গে মানানসই পোশাক না হলে চলে? গ্রীষ্ম-বর্ষা-শীত এই তিনের মিশ্রণ রয়েছে শরতে। এর প্রভাব তো পোশাকে পরবেই। তবে হালকা শীতের আচ থাকলেও গরমের আধিপত্য এ সময়ে বেশি থাকে। তাই সে অনুযায়ী পোশাক নির্বাচন করা উচিত শরতে।

গরম আবহাওয়ায় অতিষ্ঠ জনজীবন। এই তীব্র গরমে আরও অস্বস্তির বিষয় হতে পারে পোশাক। সব ধরনের পোশাক অবশ্যই আরামদায়ক নয়। আবার আমরা অনেক সময় বুঝতেও পারি না, কোন ধরনের পোশাক আমাদের জন্য আরামদায়ক, কোন ধরনের পোশাক আরামদায়ক নয়। তাই এ বিষয়ে একটু চোখ বোলানো যাক।

কাপড়ের ধরন

সুতি
এসময় আরামদায়ক সুতি কাপড়ের পোশাক। এটি অত্যন্ত হালকা, উচ্চ-শোষণ ও বায়ুচলাচল ক্ষমতাসম্পন্ন। তাই অনেকটাই আরামদায়ক এই পোশাক। পোশাক নোংরা হলে সহজে পরিষ্কারও করতে পারবেন। বিভিন্ন ধরনের, রঙের সুতি পোশাক আপনি যেকোনো জায়গায় পরে যেতে পারবেন। হোক সেটা অফিস কিংবা কোনো অনুষ্ঠান।

সিল্ক
সুতি কাপড়ের আরামের কথা অনেকের জানা থাকলেও, অনেকর ধারণা সিল্কের কাপড় বোধহয় গরমে অস্বস্তি দিতে পারে। কিন্তু এ ধারণাটি সম্পূর্ণ ভুল। এটি সুতি কাপড়ের মতো অত্যন্ত হালকা ওজনের। সিল্ক অত্যন্ত আরামদায়ক একটি পোশাক। তাই চোখ বন্ধ করে সহায়তা নিতে পারেন সিল্কের।

খাদি
বর্তমান সময় খাদি কাপড়ের জনপ্রিয়তা অনেকটা বেড়েছে। খাদি কাপড় দেখতে যেমন ক্লাসি লাগে তেমনই গরমে বেশ আরামদায়কও বটে। এ কাপড়ের বিভিন্ন ডিজাইনিং কুর্তি কিংবা কামিজ পরতে পারেন। যাদের শাড়ি পড়া দরকার হবে তারা খাদি কাপড়ের শাড়ি পরতে পারেন।

পোশাকের রং
শরতে হালকা রঙের পোশাক পরাই ভালো। হালকা রঙের পোশাক পরলে গরম কম লাগে। এক্ষেত্রে অবশ্য সাদা সাদা রঙের পোশাক পরলে গরম কম লাগতে পারে। কারণ, সূর্য থেকে বিকিরণ পদ্ধতিতে তাপ পৃথিবীতে এসে পৌঁছায়। কিন্তু সব বস্তুর তাপ বিকিরণ শোষণ করার ক্ষমতা সমান নয়। সাদা রঙের তাপ বিকিরণ শোষণ করার ক্ষমতা সবচেয়ে কম। এই কারণেই সাদা রঙের পোশাক কম উত্তপ্ত হয় এবং গরম কম লাগে।

আর কালো রঙের পোশাকে গরম সবচেয়ে বেশি লাগে। যেহেতু শরতে মোটামোটি গরম ভালোই থাকে তাই কালো রঙের পোশাক থেকে গরমের কয়েকদিন দূরে থাকার চেষ্টা করুন। এছাড়াও দেশীয় পোশাক নকশাকাররা শরতের জন্য বেছে নেয়- সাদা, নীল, সবুজ আর সোনালি রং। শরতে এই রংগুলোতেই ভরসা করার চেষ্টা করুন।

পোশাকের ধরন

এ সময় সালোয়ার-কামিজ, কুর্তি বা ফতুয়া পরতে পারেন। তবে পোশাকটা যদি কামিজ হয় তাহলে সঙ্গে মানানসই রং ও ডিজাইনের সালোয়ার ও ওড়না নিন। প্রচণ্ড গরমের কারণে আরামদায়ক কুর্তা ও ফতুয়ার প্রতিও ঝুঁকছে অনেকে। জিন্সের সঙ্গে মানানসই পোশাকগুলো হতে পারে বিকালের আদর্শ পোশাক। এছাড়াও পালাজো, লং কুর্তি, কিংবা ঢিলেঢালা কাটের পোশাকও আরামদায়ক ও মানানসই হবে। যারা শাড়ি পরতে চান তারা বেছে নিন হালকা রঙের শাড়িগুলো। ফিকে নীল শাড়িতে জরিপাড় দেয়া, চাঁপাফুল রং, ধানি রং, সাদা জমিনে বুটি তোলা জামদানি শাড়ি এবং এর সঙ্গে ম্যাচিং ব্লাউজ। ব্লাউজের হাতা থ্রি কোয়ার্টার হলে ভালো মানাবে।

অনন্যা/এসএএস