একজন ভালো সঙ্গী হয়ে উঠবেন যেভাবে!

একজন ভালো সঙ্গী হয়ে উঠবেন যেভাবে!
একজন ভালো সঙ্গী হয়ে উঠবেন যেভাবে!
একে অপরকে ঠিকমতো সময় না দেয়ার কারণে সম্পর্কে চির ধরে এবং দূরত্ব হয়।  এই প্রবণতা বর্তমানে খুব বেশি দেখা যাচ্ছে। সারাদিনের ব্যস্ততা শেষে যেটুকু সময় হাতে থাকে তাও আমরা ফোনের পেছনে ব্যয় করি।  এতে করে তৈরি হয় দূরত্ব।  তাই যতটা সম্ভব আপনার সঙ্গীকে সময় দেওয়ার চেষ্টা করবেন। এতে করে দুজনের মধ্যে কোন কারণে দূরত্ব সৃষ্টি হলেও তা কমে যাবে।

প্রত্যেকটি মানুষের জীবনে অনেক বড় একটি চাওয়া থাকে একজন ভালো সঙ্গীর সাথে সারাটি জীবন পার করা ।  আপনি যেমন চাচ্ছেন জীবনে একজন ভালো সঙ্গী পেতে আবার একই সাথে আপনাকেও বিপরীত দিকের মানুষটির জন্য  হয়ে উঠতে হবে একজন ভালো সঙ্গী।  তাই আপনাকে খেয়াল রাখতে হবে বিশেষ কিছু বিষয়_ 

 

 

 

সুন্দর পোশাক ও সাজ 

 

সকলেই আমরা সুন্দরের পূজারী।  সুন্দর জিনিসগুলো সবার আগে আমাদের আকর্ষণ করে।  আর আপনার প্রিয় মানুষটি  অবশ্যই চাইবেন আপনাকে যেন সবথেকে সুন্দর লাগে।  
মাঝেমধ্যে আপনার সঙ্গীকে খুশি করতে সুন্দর করে সাজুন এবং সুন্দর পোশাক পরুন। এতে করে দেখবেন আপনার আত্মবিশ্বাসও বেড়ে যাবে।

 


পছন্দসই রান্না

 

ভোজন রসিক বাঙালিকে পটাতে হলে ভালোমন্দ খাওয়াবেন না তা কখনো হয়।  পছন্দের খাবারটি পেলে অল্পতেই খুশি হয়ে যাবে আপনার সঙ্গী। তাই মাঝেমধ্যেই আপনার সঙ্গীর পছন্দের কোন খাবার রান্না করতে পারেন। 

 


একসঙ্গে সময় কাটানো


একে অপরকে ঠিকমতো সময় না দেয়ার কারণে সম্পর্কে চির ধরে এবং দূরত্ব হয়।  এই প্রবণতা বর্তমানে খুব বেশি দেখা যাচ্ছে। সারাদিনের ব্যস্ততা শেষে যেটুকু সময় হাতে থাকে তাও আমরা ফোনের পেছনে ব্যয় করি।  এতে করে তৈরি হয় দূরত্ব।  তাই যতটা সম্ভব আপনার সঙ্গীকে সময় দেওয়ার চেষ্টা করবেন। এতে করে দুজনের মধ্যে কোন কারণে দূরত্ব সৃষ্টি হলেও তা কমে যাবে।

 


ঘুরতে যাওয়া


নিজেদের জীবনকে সবসময় চার দেয়ালে বন্দি না রেখে মাঝেমধ্যে খোলা আকাশের নিচে বেরোতেই পারেন।  মোদ্দা কথা একঘেয়েমি জীবনে পরিবর্তন আনা উচিত।  দূরে না হলেও কাছে পিঠে কোথাও ঘুরতে পারেন। চাইলে কোন রেস্তোরাঁয় খেতে যেতে পারেন,  ক্যান্ডেল লাইট ডিনারের আয়োজন করতে পারেন বা একসাথে রোমান্টিক মুভি দেখে আসতে পারেন।  
এতে করে একে অপরের প্রতি ভালোবাসা বাড়বে।

 

 

শরীর চর্চা করা


নিজেকে সুন্দর ও সুস্থ রাখার চেষ্টা করুন। তাই সবার আগে দরকার হবে শরীরকে ফিট রাখা। 
তাই প্রথমেই একটি ফিটনেস চার্ট তৈরি করে নিতে পারেন। নিজেকে ফিট রাখতে সেই অনুযায়ী খাওয়া দাওয়া করতে পারেন। সেই সাথে শরীরচর্চা চালিয়ে গেলোও মন্দ হয় না। আর সাথে আপনার সঙ্গীকেও সাথে নিয়ে শরীর চর্চা করতে পারেন। এতে করে একসাথে  আরো কিছু মুহূর্ত কাটাতে পারবেন।