জাঁকজমকপূর্ণ সাজে কাটুক অষ্টমী

জাঁকজমকপূর্ণ সাজে কাটুক অষ্টমী
ছবি:সংগৃহীত
দুর্গাপূজায় অষ্টমীতে একটু ভারী সাজই বেশি ভালো লাগে। এদিন লাল, মেরুন,গাড় নীল অথবা বেগুনি রঙের প্রাধান্য দেওয়া যেতে পারে। এছাড়া সাদা শাড়ি লাল পাড় অষ্টমীর জন্য বেষ্ট অপশন। সকালের দিকে চাইলে এক প্যাঁচে শাড়ি পরতে পারেন। কিন্তু সকালে ও রাতের সাজের পার্থক্য মাথায় রাখতে হবে।

দুর্গাপূজার সবচেয়ে আকর্ষণীয় এবং জাঁকজমকপূর্ণ দিন হচ্ছে অষ্টমী। অন্য সব দিনের তুলনায় অষ্টমী পূজা খুব জাঁকজমক পূর্ণ হয়। অষ্টমীতে সন্ধি পূজা আবার কোথাও কোথাও কুমারী পূজা হয়। এদিনে জাঁকজমক পূর্ণ ভাবে নিজেকে না সাজালে কি আর চলে! অষ্টমীর সাজ কেমন হবে এই নিয়ে আজকে আমাদের আয়োজন।


দুর্গাপূজায় অষ্টমীতে একটু ভারী সাজই বেশি ভালো লাগে। এদিন লাল, মেরুন,গাড় নীল অথবা বেগুনি  রঙের প্রাধান্য দেওয়া যেতে পারে। এছাড়া সাদা শাড়ি লাল পাড় অষ্টমীর জন্য বেষ্ট অপশন। সকালের দিকে চাইলে এক প্যাঁচে শাড়ি পরতে পারেন। কিন্তু সকালে ও রাতের সাজের পার্থক্য মাথায় রাখতে হবে।


দিনের মেকআপ হালকা হলেই ভালো দেখাবে। প্রথমে মুখ ভালোভাবে পরিষ্কার করে ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নিতে হবে। প্রাইমার লাগিয়ে কয়েক মিনিট অপেক্ষা করে অল্প অল্প  করে ফাউন্ডেশন নিয়ে ব্লেন্ড করতে হবে। ফাউন্ডেশন ব্লেন্ড করা হয়ে গেলে কনসিলার লাগিয়ে ভালোভাবে ব্লেন্ড করে পাউডার দিয়ে পুরো বেজটা সেট করে নিতে হবে।


ডার্ক ব্রাউন কালার আইব্রোশ্যাডো দিয়ে হালকা ভাবে আইব্রো শেইপ করে নিন।চোখে হালকা রঙের শ্যাডো লাগিয়ে আইলাইনার ও মাশকারা দিন। ঠোঁটে পিচ, রোজি অথবা ন্যুড ধরনের লিপস্টিক লাগাতে পারেন। শাড়ি পড়লে কপালে টিপ পড়তে কিন্তু ভুলবেন না। সাথে পড়তে পারেন কাঠের গহনা। বেশিক্ষণ বাইরে থাকলে চুল খোলা রাখাই ভালো। সামনে ফুলিয়ে সেট করে পিছনে হাত খোঁপা করতে পারেন। চাইলে খোঁপায় গুঁজে দিতে পারেন সুন্দর তাজা ফুল।

 

অষ্টমীর রাতের সাজটা চাই জমকালো ও আকর্ষণীয়। বেজটা সকালের মতোই রাখার চেষ্টা করবেন। একটু ভারী বেজ মেকআপ চাইলে ফুল কভারেজ ফাউন্ডেশন ব্যাবহার করবেন। পেনসিল দিয়ে আইব্রো এঁকে নিন। এবার ডার্ক ব্রাউন কালার আইব্রোশ্যাডো দিয়ে আইব্রো হালকা শেইপ করে নিন।চোখে  নীল, অ্যাশ অথবা পোশাকের সাথে মিলিয়ে গাঢ় যে কোন রঙের আইশ্যাডো লাগিয়ে নিন। চোখের ইনার সাইডে সামান্য সিলভার বা গোল্ডেন হাইলাইটার ব্যবহার করে নিন। চোখে মোটা করে আইলাইনার লাগান। আইলাইনার শুকিয়ে গেলে পাপড়িতে কয়েক পরত মাশকারা লাগান। এতে চোখ আরও বেশি আকর্ষণীয় লাগবে।


ব্লাশন প্যালেট দিয়ে কন্টোরিং করে নিন। চিক এবং কানের মাঝ বরাবর থেকে টেনে ব্রাশ দিয়ে কন্টোরিং করুন। কন্টোরিংয়ের জন্য ডার্ক ব্রাউন ব্লাশন বেছে নিন। এতে চিক অনেক বেশি হাইলাইট হবে এবং ব্লাশনের সাহায্যে মুখের শেইপ কেটে নিতে পারবেন। কন্টোরিয়ের পর আবার ফিনিশিং পাউডার দিয়ে বেইজটা হালকা টাচ-আপ করে নিন। এতে কন্টোরিংয়ে সামঞ্জস্য বজায় থাকবে। লাইট পিচ পিঙ্ক কালার অথবা ব্রাউনিশ কালার ব্লাশন দিয়ে দুই গালের চিককে হাইলাইট করুন। কপালে, নাকে ও গালের উপরের দিকে হাইলাইটার ব্যবহার করুন। ঠোঁটে গাঢ় লিপস্টিক লাগাতে পারেন।তারপর মন মতো গহনা ও টিপ পরে নিবেন। চুল পরিপাটি করে বেঁধে রাখুন। অষ্টমীতে চুলে ঝুমকা দেওয়া কাটা বেশ মানাবে। সাথে নাকে নাক-ফুল বা নথ পড়লে আপনার সাজ আরও আকর্ষণীয় হয়ে উঠবে।