Skip to content

৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিষ্টাব্দ | রবিবার | ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বন্যার্তদের জন্য ট্রফি নিলামে তুলছেন রিপা

শাহেদা আক্তার রিপা, নামটি বেশ আলোচনায় আসে গত বছর ডিসেম্বরের দিকে। গত বছর ডিসেম্বরে ঢাকায় অনুষ্ঠিত অনূর্ধ্ব-১৯ নারী সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে বাংলাদেশকে চ্যাম্পিয়ন করায় বিশাল ভূমিকা রাখেন তিনি। পাশাপাশি একাই পাঁচ গোল করে পেয়েছিলেন সর্বাধিক গোলদাতা ও টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড় হওয়ার পুরষ্কার। ১৬ বছর বয়সী রিপা তার ছোট্ট ক্যারিয়ারের এই বিরাট অর্জনকে এবার বিলিয়ে দিতে চান মানুষের মাঝে।

বর্তমানে সিলেট-সুনামগঞ্জসহ বিভিন্ন এলাকার মানুষ বন্যার কারণে পানি-বন্দী অবস্থায় মানবেতর জীবনযাপন করছে। তাদের সাহায্য করতে দেশের বিভিন্ন মানুষ বিভিন্ন উপায়ে এগিয়ে আসছে। বন্যার্তদের জন্য আরও অন্য সবার মত মন কেঁদেছে রিপারও৷ একদিকে তিনি নিজেই লড়েন অভাবের সঙ্গে। তারপরও যেটুকু সামর্থ্য আছে তা দিয়েই দাঁড়াতে চান বন্যার্ত মানুষের পাশে। এক্ষেত্রে নিজের ক্যারিয়ারের এই সবচেয়ে মূল্যবান ট্রফিটি নিলামে উঠাতে চান রূপা। ট্রফি বিক্রির টাকা দিয়ে সাহায্য করতে চান বন্যার্তদের।

বয়সে ছোট হলেও তার এমন মহৎ এবং বৃহৎ উদ্যোগ মুগ্ধ করেছে সবাইকে। ছোট রিপার এমন মানবিক উদ্যোগে রীতিমতো অবাক বাবা-মা সহ পরিবারের সবাই। তারাও এক কথায় রাজি হয়েছেন রিপার এ পরিকল্পনায়। রিপা তার এই পরিকল্পনা তুলে ধরেছিলেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে। সেখানে দেয়া এক স্ট্যাটাসে তিনি লিখেন, ‘আমি শাহেদা আক্তার রিপা, বাংলাদেশ মহিলা অনূর্ধ্ব -১৯ ফুটবল টিমের একজন সদস্য। সিলেটে বন্যার্ত মানুষের পাশে দাড়াতে আমি ছোট্ট একটি উদ্যোগ নিয়েছি। আমার ছোট্ট ক্যারিয়ার জীবনে আমার সবচেয়ে যেটা বড় পাওয়া সেটা হল, ২০২১ সালে শেষ হওয়া সাফ অনূর্ধ্ব -১৯ চ্যাম্পিয়নশিপে টুর্নামেন্টে আমরা চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলাম। ঐ টুর্নামেন্ট এর আমি সেরা গোলদাতা (৫ গোল) ও সেরা খেলোয়াড় (৩ ম্যাচে) হয়েছিলাম। উক্ত সেরা গোলদাতার ট্রফিটি আমি নিলামে তুলতে চাই। যার সম্পূর্ণ অর্থ ব্যয় হবে সিলেটের বন্যার্ত মানুষের পাশে। কোনো দয়াবান ব্যক্তি যদি এই মহৎ কাজের অংশীদার হোন তাহলে আমরা কিছুটা হলেও বন্যার্ত মানুষের পাশে থাকতে পারবো।’

সেই স্ট্যাটাসে তিনি আরও লিখেছেন, ‘আমার এই ট্রফিটা আমার বাড়িতে সাজিয়ে রাখা আছে, হয়তো সারাজীবন থাকবে। কিন্তু কোনো মানুষের কাজে আসবে না। এই মূহুর্তে সিলেটের সবচেয়ে বেশি যেটা দরকার সেটা হল সবার সহযোগিতা। আমি যদি সিলেটের পাশে একটু হলেও দাড়াতে পারি তাহলে আপনাদের সবার প্রতি চির কৃতজ্ঞ থাকিব।’ পাশাপাশি তিনি গণমাধ্যমকর্মীদের এ তথ্য সবার কাছে পৌঁছাতে অনুরোধ করেন।

বিভিন্ন গণমাধ্যমের করা সংবাদের ভিত্তিতে ব্যাপক সারা পান তিনি। আবারও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তিনি জানান, ট্রফি নিলামের ব্যাপারে অনেকেই জানতে চেয়েছেন। দেশ ও দেশের বাইরে থেকে অসংখ্য মানুষ ট্রফির নিলামে অংশগ্রহণ করতে চায়। খুব শীঘ্রই নিলামের চূড়ান্ত সিদ্ধান্তটি জানিয়ে দেওয়া হবে।

অনন্যা/জেএজে

ডাউনলোড করুন অনন্যা অ্যাপ