Skip to content

১০ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিষ্টাব্দ | বুধবার | ২৬শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

অনূর্ধ্ব-২০ সাফজয় বাংলাদেশের: অগ্রযাত্রায় আরেকটি মুকুট

অনূর্ধ্ব-১৫ টুর্নামেন্ট থেকে শুরু করে এখন অনূর্ধ্ব-২০| সময়টা খুব একটা বেশি নয়। যেই নারীরা অনূর্ধ্ব-১৫-তে ঘরের মাটিতে নেপালের সঙ্গে হেরে গিয়েছিল; ঠিক সেই মাটিতেই নতুন কিছু অপ্রতিরোধ্য, দুরন্ত নারী বিজয়ের পতাকা উড়িয়েছে। নেপালের সঙ্গেই ৩-০ গোলে সাফ চ্যাম্পিয়ন হয়ে উৎসবে মেতেছে জুনিয়র সাবিকুন্নাহার, রূপমা চাকমারা। গত বৃহস্পতিবার কমলাপুর স্টেডিয়ামে ৩-০ গোলে কাকতালীয়ভাবে নেপালের সঙ্গে এই বিজয় অর্জন করেছে।

দুর্দমনীয় এই বিজয়ই প্রমাণ করে নারীরা হেঁটে চলেছে লক্ষ্য অর্জনের পথে। এই খেলায় বাংলাদেশের দুই খেলোয়াড়ের হাতে উঠে এসেছে সবচেয়ে মূল্যবান তিনটি পুরস্কার। যেখানে শামসুন্নাহার জুনিয়র একাই গোল্ডেন বুট আর বল নিজের ঝুলিতে বহন করছেন। রূপমা চাকমা পেলেন সেরা গোল রক্ষকের পুরস্কার। সবমিলিয়ে অনূর্ধ্ব-২০ টুর্নামেন্টে বাংলাদেশ অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন।

এর আগে, গত সেপ্টেম্বর মাসে নেপালের কাঠমুন্ডুতে বিজয়ের পতাকা উড়িয়েছিলো সাবিনা-কৃষ্ণারা। ঠিক সাড়ে পাঁচ মাসের ব্যবধানে ঢাকায় কমলাপুরের বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে সাফের বয়সভিত্তিক পর্যায়ে আয়োজিত টুর্নামেন্টে বিজয়ের পতাকা ওড়ে।

অদম্য নারীরা একের পর এক বিজয় ছিনিয়ে আনছে। যেন নারীদের অগ্রগতির দ্বার উন্মোচিত হচ্ছে এক এক করে। যে দেশের নারীরা একসময় ঘর থেকে বের হওয়ার কথা চিন্তা করতে পারতো না, আজ সেই দেশের নারীরা দাপিয়ে বেড়াচ্ছে এক দেশ থেকে অন্য দেশে। ছিনিয়ে আনছে বিজয়। বাংলাদেশের মানুষকে দিচ্ছে গর্ব আর অহঙ্কার করার মতো কিছু অর্জন। নারীরা শিক্ষিত হচ্ছে। চিনতে এবং জানতে শিখছে বিশ্বকে। আর এই জানার জায়গাকে ভিত্তি করে পৌঁছে যাচ্ছে উচ্চ শিখরে। নারী শুধু রাঁধতে নয়, বিজ্ঞান, প্রযুক্তি, খেলা, চাকরি, বাস ট্রেন চালানো, এমনকি এভারেস্ট জয়েও এগিয়ে আছে।

‘নারী আইপিএলের নিলামে জাহানারাসহ ৯ বাংলাদেশি সর্বোচ্চ মূল্য’ শিরোনামে সেদিন একটি খবর প্রকাশিত হয়েছে। ছোট্ট এই শিরোনামে ফুটে উঠেছে বর্তমান নারীদের এগিয়ে যাওয়ার চিত্র।

ভারত, নেপাল, ভুটান সবাইকে ছাপিয়ে বাংলাদেশ এগিয়ে। তাদের সামনে কোনো দলই পাত্তা পায়নি। অপরাজিত অবস্থায় চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশের নারীদের এই এক অবিশ্বাস্য জয়। নারীরা তাদের যোগ্যতা দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। এভাবে আরও অনেক কণ্টকাকীর্ণ পথ এগিয়ে যেতে হবে। নারীদের প্রয়োজন পিছু কথা শুনে থেমে না গিয়ে দুর্বার গতিতে স্থির লক্ষ্যে এগিয়ে যাওয়া।

ডাউনলোড করুন অনন্যা অ্যাপ