Skip to content

৪ঠা মে, ২০২৪ খ্রিষ্টাব্দ | শনিবার | ২১শে বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আজ কণ্ঠশিল্পী আঞ্জুমান আরা বেগমের জন্মদিন


আজ কণ্ঠশিল্পী আঞ্জুমান আরা বেগমের জন্মদিন। ১৯৪২ সালের ১১ জানুয়ারি তিনি বাংলাদেশের (তৎকালীন বেঙ্গল প্রেসিডেন্সি, ব্রিটিশ ভারত) বগুড়া জেলায় জন্মগ্রহণ করেন।

বাবা কাসিরউদ্দিন তালুকদার বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালীন (২৯ মে, ১৯৭১) শহীদ হন। তার মাতা জিয়াউন্নাহার তালুকদার। তার বড়বোন জেব-উন-নেসা জামাল ছিলেন একজন গীতিকার। আরেক বোন মাহবুব আরা রেডিও ও টেলিভিশনের শিল্পী ছিলেন। উপমহাদেশের প্রখ্যাত সঙ্গীতশিল্পী রুনা লায়লা তার চাচাতো বোন। আঞ্জুমান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজবিজ্ঞান বিষয়ে স্নাতক সম্পন্ন করেন।

আঞ্জুমান ১৯৫৮ সালে ১৬ বছর বয়সে প্রথম চলচ্চিত্রে নেপথ্য গানে কণ্ঠ দেন। ১৯৬২ সালে তিনি এহতেশাম পরিচালিত উর্দু ভাষার চান্দা চলচ্চিত্রের “চান্দনী ভিগি ভিগি হাওয়া” গানে কণ্ঠ দেন। গানটি তখন ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করে।১৯৬৪ সালে তিনি সুভাষ দত্ত পরিচালিত সুতরাং চলচ্চিত্রের “তুমি আসবে বলে ” গানে কণ্ঠ দিয়েছেন। গানটির গীতিকার প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক সৈয়দ শামসুল হক এবং সুরকার সত্য সাহা। এটি সৈয়দ হকের লেখা প্রথম গান। সুভাষ দত্ত পরিচালিত ‘আয়না ও অবশিষ্ট’ চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় গান ‘আকাশের হাতে আছে একরাশ নীল’ গানে কণ্ঠ দিয়েছেন তিনি। গানটির রচয়িতা গাজী মাজহারুল আনোয়ার এবং সুর দেন সত্য সাহা। তার গাওয়া অন্যান্য উল্লেখযোগ্য গানসমূহ হল ‘কে স্মরণের প্রান্তরে’, ‘খোকনসোনা’, ‘বৃষ্টি যখন’ ও ‘সাথী রঙের’। এছাড়া ১৯৬৪ সালে বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রচারিত প্রথম গানে কণ্ঠ দেন তিনি।

আঞ্জুমান আরা বেগমের নেপথ্যে কণ্ঠ দেওয়া চলচ্চিত্রগুলো হলো- হারানো দিন (১৯৬১), চান্দা (১৯৬২), জোয়ার এলো (১৯৬২), তালাশ (১৯৬৩), নাচ ঘর (১৯৬৩), সুতরাং (১৯৬৪), মেঘ ভাঙ্গা রোদ (১৯৬৪), আখরি স্টেশন (১৯৬৫), অভিশাপ (১৯৬৭), নয়নতারা (১৯৬৭), আনোয়ারা (১৯৬৭), উলঝন (১৯৬৭), আয়না ও অবশিষ্ট (১৯৬৮), মলুয়া (১৯৬৯), আপন পর (১৯৭০), মাসুদ রানা (১৯৭৪),বাঁদী থেকে বেগম (১৯৭৫), অঙ্গার (১৯৭৮), নতুন পৃথিবী (১৯৮৪)।

সঙ্গীতে অবদানের জন্য ২০০৩ সালে একুশে পদক পেয়েছেন। এছাড়াও তারকালোক পুরস্কার, বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি থেকে গুণীজন পুরস্কার ও কলধ্বনি পদক পেয়েছেন।

ব্যক্তিজীবনে আঞ্জুমান আরা বেগম মাসুদ আলম সিদ্দিকীর সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। তার পুত্র তারিক মাশরুর দ্য ডেইলি স্টারের উপ-সম্পাদক। কন্যা উমানা এ্যাঞ্জেলিন এশিয়া প্যাসিফিক ইউনিভার্সিটির লেকচারার।

২০০৪ সালের ২৯ মে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে ঢাকার বাংলাদেশ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আঞ্জুমান আরা ইহলোক ত্যাগ করেন। ঢাকার বনানী কবরস্থানে দাফন করা হয় এই সংগীতশিল্পীকে।

আজ এই শিল্পীর জন্মদিন। এই দিনে শ্রদ্ধা ও সম্মানের সাথে স্মরন করছি আঞ্জুমান আরা বেগমের কৃতিত্ব।

অনন্যা/নুপুর/এআই

ডাউনলোড করুন অনন্যা অ্যাপ