Skip to content

২০শে ফেব্রুয়ারী, ২০২৪ খ্রিষ্টাব্দ | মঙ্গলবার | ৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

মাইক্রোসফটের ত্রুটি ধরিয়ে ২২ লাখ রুপি পেয়েছে অদিতি

বিশ্বের বহুল পরিচিত প্রতিষ্ঠান মাইক্রোসফটের তৈরি করা একটি ক্লাউড সিস্টেমের ভুল ধরে ২২ লক্ষ রূপি পেলেন অদিতি সিং নামের এক তরুণী। হ্যাক করে মাইক্রোসফটের তৈরি করা একটি ক্লাউড সিস্টেমের ভুল ধরিয়ে দিয়ে টেক জায়ান্ট এই প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে তিনি এই পুরস্কার পেয়েছেন।

 

অদিতি মাইক্রোসফটের তৈরি করা নতুন অ্যাজিউর ক্লাউড সিস্টেমের ত্রুটি শনাক্ত করেন। এরপর মাইক্রোসফটকে তা জানান অদিতি। মাইক্রোসফটের তরফ থেকে অদিতির শনাক্ত করা ত্রুটিগুলো পুনরায় চেক করা হয়। ওই সিস্টেমের অরক্ষিত ভার্সন কেউ ডাউনলোড করেছে কি না দেখতে সঙ্গে সঙ্গে ত্রুটি শুধরে নেয়নি মাইক্রোসফট। পরে সেটা শুধরে নেয় মাইক্রোসফট। আর ত্রুটি ধরিয়ে দেওয়ার জন্য অদিতিকে পুরস্কার হিসেবে ৩০ হাজার ডলার (ভারতীয় মুদ্রায় ২২ লাখ রুপি) দেয় টেক জায়ান্ট এই প্রতিষ্ঠানটি।

 

কিভাবে এই ক্রটি শনাক্ত করেছেন জানতে চাইলে অদিতি বলেন, মাইক্রোসফট ও ফেসবুকের রিমোট কোড এক্সিকিউশনে (আরসিএ) বাগ বা ত্রুটি ছিল। এই ধরনের ত্রুটি থাকলে হ্যাকাররা সহজেই কোন প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব অভ্যন্তরীণ সিস্টেমে ঢুকে পড়তে পারে।

 

২০ বছর বয়সী অদিতি একজন এথিক‌্যাল হ‌্যাকার। মাস দু’য়েক আগে একইভাবে ফেসবুকেরও কিছু ত্রুটি প্রথম শনাক্ত করে ৭৫০০ ডলার উপহার পেয়েছিলেন অদিতি। ভারতীয় মুদ্রায় যার পরিমাণ ছিল প্রায় সাড়ে পাঁচ লাখ টাকা।

 

অদিতির বেড়ে ওঠা ভারতের দিল্লিতে। দু’বছর আগে প্রতিবেশীর ওয়াই-ফাই পাসওয়ার্ড হ্যাক করার মাধ্যমে তার হ্যাকিং জগতে প্রবেশ ঘটে।হ্যাকিংয়ের প্রতি ভালোবাসা থেকেই হয়ে ওঠন এথিকাল হ্যাকার। যেসব হ্যাকার কম্পিউটার সিস্টেম হ্যাক করে কারো কোন ক্ষতি করে না তাদের বলা হয় এথিক্যাল হ্যাকার।  ফেসবুক, মাইক্রোসফটের মতো এত বড় সংস্থার ভুল ধরিয়ে এত টাকা পেয়ে স্বভাবতই খুশি তিনি।

 

ফেসবুক,মাইক্রোসফট ছাড়াও টিকটক, মজিলা, পেটিএম, এইচপি-র মতো প্রায় ৪০টি প্রতিষ্ঠানের ভুল ধরে দিয়েছিলেন অদিতি। টিকটক অ্যাপে ফরগট পাসওয়ার্ড সিস্টেমে ওটিপি সংক্রান্ত একটি বাগ ধরার পর থেকেই তিনি এথিক্যাল হ্যাকিংয়ে আরও বেশি করে ঝুঁকে পড়েন।  কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়, কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়, স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রশংসাপত্র পেয়েছেন অদিতি।

 

 

 

ডাউনলোড করুন অনন্যা অ্যাপ