উদ্যোক্তা ও ই-কমার্স

উদ্যোক্তা ও ই-কমার্স
উদ্যোক্তা ও ই-কমার্স
নাসিমা আক্তার নিশা মনে করেন,  প্রতিযোগী হিসেবে একে অপরকে পিছিয়ে দিতে না দিয়ে বরং একে অপরকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়ে এগিয়ে যাওয়াই সফলতার একমাত্র মূলমন্ত্র।  

'উই' নারীদের উদ্যোক্তা হয়ে উঠার এক পথ প্রদর্শক। উদ্যোক্তাদের কাতারে বাংলাদেশের নারীদের এগিয়ে নিয়ে গেছে কয়েক ধাপ। আর গত ৩ মে ২০২১, রোজ  সোমবার ই কমার্স প্রতিষ্ঠান মালভেনের স্পন্সরে অনুষ্ঠিত হয় পাক্ষিক অনন্যা ও উই প্রেজেন্টেস পাক্ষিক অনন্যার নিয়মিত আয়োজন 'উদ্যোক্তার গল্প'।  অনুষ্ঠানে  উপস্থিত ছিলেন 'উই' এর সভাপতি  নাসিমা আক্তার নিশা এবং 'নওরীন'স মীরর' এর প্রতিষ্ঠাতা এবং সিইও হোসনে আরা খান নওরীন৷ 

 

নওরীন একজন উদ্যোক্তা হওয়ার পাশাপাশি যিনি ই কমার্সের কর্পোরেট সাইটেও কাজ করছেন। অনুষ্ঠানের শুরুতে তিনি তার নওরীন'স মীররের পথচলার শুরুর গল্প বলেন। 

 

উই এর সভাপতি নাসিমা আক্তার নিশা ই-কমার্সের মাধ্যমে বিজনেস করা এবং মানুষের আস্থা অর্জনের জন্য যে পদক্ষেপ নিতে হয়েছে,  ই-কমার্সকে সফল ভাবে প্রতিষ্ঠা করতে যে কাজ করতে হয়েছে সেসব অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরেন অনুষ্ঠানে।  তিনি বলেন, একরকম প্রোডাক্ট দেখে অন্যরকম পাচ্ছেন, ই-কমার্স সম্পর্কে  এই যে  অবিশ্বাস তা ঘুচতে নানা রকম ক্যাম্পেইন করতে হয়েছে।  এমনকি নিজের কাজের মাধ্যমে কিভাবে ই-কমার্সের একজন সাধারণ সদস্য থেকে আজকে উইয়ের সভাপতি হলেন সেসব গল্পও শেয়ার করেন। এত বছর ধরে অনেক মানুষের  নিরলস পরিশ্রমের জন্যই আজকে ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম এই পর্যায়ে পৌঁছেছে। অনলাইনে কেনাকাটা অনেক বেড়েছে। অনেক নতুন উদ্যোক্তা এসেছে। কিন্তু  ই-কমার্সে মানুষের বিশ্বাস রেখে ইলেক্ট্রনিক পেমেন্ট করা এখনো অনেকটা পিছিয়ে আছে।  করোনার প্রথমদিকে মানুষ একপ্রকার বাধ্য হয়ে অনলাইন পেমেন্ট করলেও তার ধীরে কমে এসেছে। যা ই-কমার্সের জন্য একটা বড় প্রতিবন্ধকতা এবং মানুষকে এবিষয়ে আশ্বস্ত করা এখন ই-কমার্স প্ল্যাটফর্মের জন্য একটা বড় চ্যালেঞ্জ বলে মনে করে নাসিমা আক্তার নিশা৷ তবে এত বছরের পরিশ্রমের ফলে আজকের ই-কমার্সের ভিত্তি যতটা শক্ত, ভবিষ্যতে আরো শক্ত হবে বলেও আশা রাখেন তিনি। 

 

অনুষ্ঠানে হোসনে আরা নওরীন বর্তমান কর্মক্ষেত্রে প্রতিযোগিতার যে প্রভাব এবং টিকে থাকার জন্য তা কতটা কঠিন সেবিষয়টি তুলে ধরেন। আর নাসিমা আক্তার নিশা মনে করেন,  প্রতিযোগী হিসেবে একে অপরকে পিছিয়ে দিতে না দিয়ে বরং একে অপরকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়ে এগিয়ে যাওয়াই সফলতার একমাত্র মূলমন্ত্র।  

 

নিশা বাংলাদেশের ই-কমার্সের পলিসিতে যেসব ঘাটতি রয়েছে সেসব নিয়ে কথা বলেন। অনুষ্ঠানে তিনি ই-কমার্সের মানবসেবা প্ল্যাটফর্ম নিয়েও আলোচনা করেন৷ যেখানে গতবছরের লকডাউন থেকে মানুষকে বিভিন্ন ভাবে সহযোগিতা করে আসা হচ্ছে। 

 

অনুষ্ঠানের শেখা দিকে হোসনে আরা নওরীন ই-কমার্সের গুরুত্ব ও ভূমিকা নিয়ে আলোচনা করেন। ই কমার্স মূলত এই করোনা পরিস্থিতিতে ব্যবসায়ীদের যেমন সচল রেখেছে তেমনি মানুষের প্রয়োজনও মিটিয়েছে। 
তিনি ব্যবসা ও ই কমার্সে মার্কেট প্লেস এবং চাহিদা সম্পর্কে ধারণা রাখার গুরুত্বও তুলে ধরেন।