Skip to content

২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিষ্টাব্দ | রবিবার | ১০ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দুশ্চিন্তা কমানোর উপায়

দুশ্চিন্তা কমানোর উপায়

বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন কারণে মানুষ দুশ্চিন্তাগ্রস্ত হয়ে পড়ে। জীবনের বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ধরণের দুশ্চিন্তা মাথায় ভর করলেও, কিছু-কিছু সময় তা অতিরিক্ত পর্যায়ে চলে যায়। এ কারণে দেখা দিতে পারে বিভিন্ন শারীরিক ও মানসিক সমস্যা। তাই শারীরিক ও মানসিকভাবে সুস্থ থাকতে চাইলে দুশ্চিন্তাকে ছুটি দেয়াই বুদ্ধিমানের কাজ আর এ-ক্ষেত্রে কী কী কৌশল অবলম্বন করতে পারেন, তেমন কিছু নিয়েই আমাদের আজকের আয়োজন:

১. হাসি-খুশি থাকা

শারীরিক ও মানসিক ভাবে সুস্থ থাকার জন্য হাসির বিকল্প নেই বললেই চলে। আপনাকে দুশ্চিন্তা যতই আকড়ে ধরার চেষ্টা করুক না কেন, আপনি চেষ্টা করুন প্রাণ খুলে হাসার। এতে করে আপনার হৃৎস্পন্দনের হারও স্বাভাবিক থাকবে।

২. মেডিটেশন

মানসিক চাপ কমাতে মেডিটেশন কতটা উপকারী, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। মেডিটেশন মানবদেহ, মন ও মস্তিষ্ককে শান্ত ও শিথিল করতে ভূমিকা পালন করে। তাই নিয়মিত মেডিটেশন করার অভ্যাস তৈরি করলে, তা আপনাকে সহজেই দুশ্চিন্তা থেকে দূরে রাখতে সাহায্য করবে।

৩. আবেগ নিয়ন্ত্রণে রাখা

ভালো-মন্দ মিলেই আমাদের জীবন। তবে কোনো ঘটনাকে কেন্দ্র করে অতিরিক্ত আবেগ প্রকাশ করা ভালো নয়। ভালো বা খারাপ, যে ঘটনাই ঘটুক না কেন, শান্ত থেকে সেটা উদযাপন বা সমাধান করা উচিত। অতিরিক্ত আবেগের বশে কোনো সিদ্ধান্ত না নেয়াই ভালো।

৪. পরিস্থিতি মেনে সমস্যার মোকাবেলা

জীবনের প্রতিটি পর্যায়ে আমাদের বিভিন্ন পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে যেতে হয়। দুশ্চিন্তা কমাতে আমাদের যেকোনো পরিস্থিতি মেনে নিয়ে সমস্যার মোকাবেলা করতে শিখতে হবে। তাহলেই দুশ্চিন্তা অনেকাংশে কমে যাবে।

৫. ভেবে-চিন্তে সিদ্ধান্ত নেওয়া

বেশির ভাগ সময় কোনো বিষয়ে সিদ্ধান্তহীনতায় ভোগা বা ভুল সিদ্ধান্তের কারণে দুশ্চিন্তাগ্রস্ত হতে হয়। তাই যেকোনো বিষয়ে ধৈর্যধারণ করে সিদ্ধান্ত নেয়া উচিত। এতে করে মানসিক অবস্থার ওপর কম চাপ পড়বে।

তবে এ-সব ছাড়াও দুশ্চিন্তা থেকে মুক্তির আরো দুটি বিশেষ বিষয় হলো, সঠিক খাদ্যাভ্যাস এবং পর্যাপ্ত ঘুম। খাওয়াদাওয়া, ঘুম সব রেখে শুধু চিন্তায় মগ্ন থাকলে দুশ্চিন্তা কয়েক গুণ বেড়ে যেতে পারে। তাই দুশ্চিন্তা কমাতে সঠিক খাদ্যাভ্যাস ও পর্যাপ্ত ঘুম নিশ্চিত করতে হবে।