Skip to content

১২ই মে, ২০২৪ খ্রিষ্টাব্দ | রবিবার | ২৯শে বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শীতের ফ্যাশনে শাড়ি

বিভিন্ন অনুষ্ঠানে বিভিন্ন ভাবে শাড়ি পরে আপনি চাইলেই নিজস্ব স্টাইল তৈরি করে নিতে পারেন। শীতের রাত হোক বা দিন, শাড়িতেই হয়ে ওঠা যায় আধুনিকা। বাংলাদেশে শাড়ি শিল্প বেশ পুরনো। তবে দিনে দিনে শাড়ির নকশায় বা ডিজাইনে বেশ অনেক পরিবর্তন এসেছে। যেকোনো অনুষ্ঠানেই চাইলেই সাজতে পারেন আকর্ষণীয়ভাবে। শীতে শাড়ি পরা নিয়ে অনেকেই অনেক ধরনের দ্বিধায় ভুগতে থাকেন। তবে কনকনে শীতেও আপনার স্টাইলে যাতে বাঁধা না পরে সেই ব্যবস্থাও আছে বৈকি৷ চলুন তাহলে শীতে শাড়ির ফ্যাশনে ঠিক কি কি বিষয়গুলো যুক্ত করতে পারেন দেখে নেয়া যাক :

১. শাল:

বেশির ভগ নারীদেরই শীতের সময় শাড়ির সাথে শুধু শাল ব্যবহার করতেই দেখা যায়। যারা শাড়ির সাথে শাল ব্যবহার করবেন তাদের কিছু বিষয় অবশ্যই মাথায় রাখতে হবে। প্রথমত আপনাকে চিন্তা করতে হবে আপনি কোন ধরনের প্রোগ্রামে যাচ্ছেন এবং কি ধরনের শাড়ি পরছেন। যদি অফিশিয়াল কোনো অনুষ্ঠান হয় সিম্পল শাড়ির সাথে সুতির বা উলের চাদর সবচেয়ে মানানসই। আবার যদি বিয়ে বা জাঁকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠান হয় হাল্কা কারুকাজের কিংবা পুরো জমিনে অনবদ্য সূচিকর্ম করা শাল বেছে নিতে পারেন।

২. ব্লাউজ:

শীতের সময় বাজারে ব্লাউজের মধ্যেও উইন্টার কালেকশন থাকে। যা ঠাণ্ডায় এনে দেবে উষ্ণতার ছোঁয়া, সাথে বজায় থাকবে আপনার শাড়ির সাজও। শীতে উলের বা গেঞ্জি কাপড়ের তৈরি বিভিন্ন ধরণের ব্লাউজও পাওয়া যায়। এছাড়াও বিভিন্ন ধরণের কাপড়ের ফুল হাতার ব্লাউজ পরতে পারেন হালকা শীতে।

৩. টি-শার্ট বা শার্ট:

শাড়ির সাথে ব্লাউজের বদলে টি শার্ট বা শার্ট পরে ফেলুন। অনেকেই যারা প্রায় রেগুলার শাড়ি পরেন তাদের জন্যও এই আইডিয়া বেশ উপকারি৷ এক কালার ফুল স্লিভ বা হাফ স্লিভ, একটু ফিটিংস দেখে এরকম টি শার্টের সাথে শাড়ি পরলে শীতটা কম ই লাগবে।

৪. ডেনিম জ্যাকেট:

শীতে ডেনিমের চাহিদা বরাবরই বেশি থাকে। শীতে শাড়ির সঙ্গে ডেনিম জ্যাকেট পরতে পারেন। অনেকেরই পছন্দের স্টাইল এটি। ডেনিম জ্যাকেট দিয়ে শাড়ি পরলে একদিকে যেমন দারুণ স্মার্ট লাগবে অন্যদিকে শীতও অনেক কম লাগবে।

৫. কোটি বা ব্লেজার: লম্বা কোটি পরে নিন আর শাড়ির আঁচল গলায় ওড়নার স্টাইলে পেঁচিয়ে নিন। ব্লেজার বা কোট যাই থাকুক না কেন, শাড়ি পরার পর উপরে চাপিয়ে নিন। তবে কোটের বোতাম লাগাবেন না।

৬. সোয়েটার: শাড়ির সাথে পরতে পারেন বিভিন্ন ধরণের সোয়েটার। যেমন- হাই নেক , পুলওভার, ক্রপড সোয়েটার। হাই নেক, ফুল স্লিভ এই ধরনের টপ হালকা গরম জোগাবে আর আপনাকে বেশ স্মার্টও লাগবে৷ ঠান্ডা যখন বেশ জাঁকিয়ে পড়বে, তখন পরে ফেলতে পারেন পুলওভার। এ ছাড়াও পরতে পারেন ক্রপড সোয়েটারও। এটির সুবিধে হল, দেখতে অনেকটা উলেন ব্লাউজের মতো লাগবে। তবে একটা জিনিস মাথায় রাখবেন সোয়েটার যেনো ঢিলেঢালা না হয়।

ডাউনলোড করুন অনন্যা অ্যাপ