সই

সই
সই
শূন্য সে খেলার জায়গা শূন্য সেই দোলনা। সইয়ের রেখে যাওয়া ধুলোতে মলিন আজও তার খেলনা।

কেমন আছো,কিভাবে আছো আমার প্রাণের সই,
ইচ্ছে করে জড়িয়ে ধরে তোমায় একটু ছুঁই। 
পুতুল খেলার জন্য সইদের বাড়ি গিয়েছি কত,
নানা-রঙের ছোট্ট কাপড়ে পুতুল বানিয়েছি শত।

 

কাপড়ের টুকরো নয় শুধু  তা- অনেক আবেগ জড়ানো,
আজও রেখেছি যত্নে পুতুল, স্মৃতিতে  তা মোড়ানো।
সইয়ের সাথে বলতাম আমি মনের যত কথা,
দুঃখ পেলে দৌড়ে যেতাম ভুলতে মনের ব্যথা।

 

আইল ধরে পাখির মতো সীমাহীন আনন্দে ছুটে চলা,
স্কুল থেকে ফেরার পথে শত গল্প বলা।
এক নিঃশ্বাসের সেই কুতকুত খেলায় কেটেছে কত বিকাল,
দরি লাফের সেই আনন্দের মুহূর্তে হেসেছে কত সকাল,

 

একই সাথে একই পথে স্কুলে হয়েছে যাওয়া।
বড়ই গাছে ডিল ছুড়ে কতনা বড়ই খাওয়া,
শূন্য সে খেলার জায়গা শূন্য সেই দোলনা।
সইয়ের রেখে যাওয়া ধুলোতে মলিন আজও তার খেলনা।