Skip to content

৫ই মে, ২০২৪ খ্রিষ্টাব্দ | রবিবার | ২২শে বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

অপবিত্র মেয়ে

আমাকে আজ তোমরা অপবিত্র বলছো কেন?
আমিতো অপবিত্র হতে চাইনি!
আমিতো চেয়েছিলাম
সব মেয়েদের মতো
সমাজে মাথা তোলে বাঁচতে।

 

গরীব হয়ে জন্ম নেয়াটা কি
আমার অপরাধ?
অভাব-অনটন দূর করার জন্য
আমায় দিয়েছো বিক্রি করে।

 

আমার জীবনেতো সুন্দর সকাল ছিল
ছিল রোদেলা দুপুর
ছিল পড়ন্ত বিকেল
ছিল আলো-জ্বলমলে সন্ধ্যাতারা।

 

সব কিছু কেন? এমন হল,
বল না মা!
আমায় বিক্রি করে
সে টাকায় সংসার চালাচ্ছো
তাতে কোন পাপ হয়নি!

 

আমার রক্তে-মাংসে উপার্জনের টাকায়
তোমার জন্য একটি শাড়ী কিনে দিয়েছি,
সেই শাড়ী ছুড়ে ফেলে দিলে
পাপের টাকা বলে-বলে।

 

আজ আমার উপার্জনের টাকা
তোমাদের কাছে,পাপের টাকা হয়ে গেল।
কেন? মা
তুমি-ও-তো একজন নারী!

 

তুমি কি?
আমার কষ্টের কথা বুঝতে পারছোনা।
তোমাদের সুখের জন্যইতো আমাকে
এই আবর্জনায় বিক্রি করে ছিলে।

 

প্রতি দিন  পাড়া প্রতিবেশী আঙ্গুল তুলে বলে
ঐ যে যাচ্ছে অপবিত্র মেয়ে।
তারাতো জানে না,আমি আজ কি কারণে চলছি
অন্ধকার গলির হাত ধরে।

 

অভাবের তাড়নায় করেছো
বিক্রি অন্ধ গলির মাঝে।
আজ কেন?
তোমরাই আবার মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছো
অপবিত্র-মেয়ে বলে।

 

মাগো তোমাদের অভাব কি?
আজও ছাড়েনি, তোমাদের উঠোন থেকে!

 

 

 

ডাউনলোড করুন অনন্যা অ্যাপ