স্যালাইন দিয়ে করা যাবে করোনা পরীক্ষা

স্যালাইন দিয়ে করা যাবে করোনা পরীক্ষা
স্যালাইন দিয়ে করা যাবে করোনা পরীক্ষা
ডঃ কৃষ্ণ খৈরনার বলেন, এই টেস্ট কিটের ভেতর স্যালাইন ওয়াটার এবং টেস্ট টিউব থাকবে। সেই জল দিয়ে গার্গল করতে হবে রোগীকে। ১৫ সেকেন্ড সেই জল রোগীর মুখে রাখতে হবে।  তারপর মুখের ভেতরের ওই জল টিউবেই ভরে দিতে হবে। এরপর মুখের সেই জলটি টেস্ট টিউবে ভরে ল্যাবে পাঠাতে পরবে। 

স্যালাইন পানি দিয়ে অতি সহজেই করা যাবে করোনা পরীক্ষা। আবার পরীক্ষার ফল মিলবে মাত্র তিন ঘণ্টার মধ্যেই। নাগপুরের এনভায়রনমেন্টাল ইঞ্জিনিয়ারিং রিসার্চ ইন্সটিটিউটের বিজ্ঞানী কৃষ্ণ খৈরনারের নেতৃত্বাধীন একদল বিজ্ঞানী করোনা পরীক্ষার নতুন ও সহজ এই পদ্ধতিটি উদ্ভাবন করেছেন। ইতোমধ্যে আইসিএমআর এই পদ্ধতির অনুমোদনও দিয়েছে।

 

বর্তমানে যে আরটি-পিসিআর পদ্ধতিতে করোনা পরীক্ষা হয়ে থাকে, তার চেয়ে নতুন উদ্ভাবিত এই পদ্ধতি অনেক সহজ। বিজ্ঞানীরা জানাচ্ছেন, এতে কোনও প্রশিক্ষিত স্বাস্থ্যকর্মীর প্রয়োজন পড়ে না। বর্তমান পদ্ধতিতে নাক এবং গলা থেকে নমুনা সংগ্রহের সময়ে অনেকেরই সমস্যা হয়। কিন্তু এই পদ্ধতিতে বাড়িতে বসে নিজেই নমুনা সংগ্রহ করা যাবে। আবার ল্যাবে গিয়ে নমুনা থেকে খুব কম সময়েই এর ফলাফলও পাওয়া যাবে। সন্দেহভাজন ব্যক্তির গার্গল করা স্যালাইন জল থেকেই তিন ঘণ্টার মধ্যে কোভিড রিপোর্ট পাওয়া সম্ভব হবে।

 

ডঃ কৃষ্ণ খৈরনার বলেন, এই টেস্ট কিটের ভেতর স্যালাইন ওয়াটার এবং টেস্ট টিউব থাকবে। সেই জল দিয়ে গার্গল করতে হবে রোগীকে। ১৫ সেকেন্ড সেই জল রোগীর মুখে রাখতে হবে।  তারপর মুখের ভেতরের ওই জল টিউবেই ভরে দিতে হবে। এরপর মুখের সেই জলটি টেস্ট টিউবে ভরে ল্যাবে পাঠাতে পরবে। 

 

এ বার ল্যাবে নিয়ে গিয়ে গার্গল করা যে জলটি দেওয়া হচ্ছে, তাতে বাফার মেশাতে হবে। সেই বাফারটি ভাইরাসকে শনাক্ত করবে। বাফার মেশানোর পর সেই জল স্বাভাবিক ঘরের তাপমাত্রায় রাখতে হবে আধ ঘণ্টা। তারপর ৯৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসে ৬ মিনিট ফোটাতে হবে সেটা। এর ফলে ভাইরাসের আরএনএ বেরিয়ে আসবে। এই আরএনএ থেকে সহজেই জানা যাবে, ব্যক্তি করোনা আক্রান্ত হয়েছেন কি না। এভাবে একসঙ্গে বহু মানুষের করোনা পরীক্ষা সম্ভব হবে। করোনা চিকিৎসায় অতি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে এই পদ্ধতি।