একটা ক্যাম্পাস। যাকে ঘিরে থাকে হাজারটা স্বপ্ন। নতুন স্বপ্ন নিয়ে হাজার হাজার নবীন এই প্রাঙ্গনকে একদিন করে তুলেছিল প্রাণোচ্ছল।
একটা ক্যাম্পাস। যাকে ঘিরে থাকে হাজারটা স্বপ্ন। নতুন স্বপ্ন নিয়ে হাজার হাজার নবীন এই প্রাঙ্গনকে একদিন করে তুলেছিল প্রাণোচ্ছল।
তারপর হুট করে কতগুলো অপরিচিত শব্দ এসে দরজায় কড়া নাড়ল। বলে গেলো বাড়ী ফিরে যাও। ক্যাম্পাস করো শূন্য। সেই যে ক্লাসরুমের বারান্দা গুলো খালি হতে লাগলো। যেখানে একসময় আনাগোনা চলতো একের পর এক ছাত্রছাত্রীর।
তারপর হুট করে কতগুলো অপরিচিত শব্দ এসে দরজায় কড়া নাড়ল। বলে গেলো বাড়ী ফিরে যাও। ক্যাম্পাস করো শূন্য। সেই যে ক্লাসরুমের বারান্দা গুলো খালি হতে লাগলো। যেখানে একসময় আনাগোনা চলতো একের পর এক ছাত্রছাত্রীর।
হলঘর থেকে শুরু করে ঐ যে মামার চায়ের টঙ, সবেতে তালা ঝুলিয়ে দেওয়া হল। কবে ফিরবে আবার এই প্রাঙ্গণে প্রাণ, সে আশায় তালা গুলোতেও মরিচার কয়েক আস্তর জমে গেলো।
হলঘর থেকে শুরু করে ঐ যে মামার চায়ের টঙ, সবেতে তালা ঝুলিয়ে দেওয়া হল। কবে ফিরবে আবার এই প্রাঙ্গণে প্রাণ, সে আশায় তালা গুলোতেও মরিচার কয়েক আস্তর জমে গেলো।
প্রাণে স্পর্শ পায়নি বলে শ্যাওলা জমতে শুরু করলো দেয়ালগুলোতে। হলদে রঙের যে প্রিয় দেয়াল গুলোতে একসময় রঙতুলি দিয়ে নানা কাব্য আঁকা হত, সে দেয়ালের হলদে রঙটাও কেমন ঝরে পড়তে শুরু করেছে।
প্রাণে স্পর্শ পায়নি বলে শ্যাওলা জমতে শুরু করলো দেয়ালগুলোতে। হলদে রঙের যে প্রিয় দেয়াল গুলোতে একসময় রঙতুলি দিয়ে নানা কাব্য আঁকা হত, সে দেয়ালের হলদে রঙটাও কেমন ঝরে পড়তে শুরু করেছে।
হেঁটে চলা প্রিয় বাঁকা রাস্তাটা নোংরা না হোক, এই ভেবে ময়লাগুলোর জন্য যে ঘর বানানো হল সেটা হয়ে উঠেছে এখন সবুজের ভেতর বেড়ে ওঠা আগাছাদের আস্তানা।
হেঁটে চলা প্রিয় বাঁকা রাস্তাটা নোংরা না হোক, এই ভেবে ময়লাগুলোর জন্য যে ঘর বানানো হল সেটা হয়ে উঠেছে এখন সবুজের ভেতর বেড়ে ওঠা আগাছাদের আস্তানা।
আগাছা গুলো যদিও ছেড়ে দেয়নি ফুচকার ঘরটাকেও। একা শূন্য ক্যাম্পাস আর সময় পেয়ে ঠিক দখল করে নিয়েছে সবটা।
আগাছা গুলো যদিও ছেড়ে দেয়নি ফুচকার ঘরটাকেও। একা শূন্য ক্যাম্পাস আর সময় পেয়ে ঠিক দখল করে নিয়েছে সবটা।
এখানে রোজ গানের আসর বসতো। চারদিক থেকে এক এক করে বন্ধুরা যোগ দিতো সে আসরে। এখনো আসর বসে। আসর বসে ঝরে পড়া পাতাদের।
এখানে রোজ গানের আসর বসতো। চারদিক থেকে এক এক করে বন্ধুরা যোগ দিতো সে আসরে। এখনো আসর বসে। আসর বসে ঝরে পড়া পাতাদের।
পদ্মপুকুরের আশেপাশে যে শাপলাগুলো ফুটতো, সেগুলোর দিকে তাকিয়ে কতবার প্রিয়তমার নামে কবিতা লেখা হয়েছিলো কারোর। সে কবিতার খাতাটা সযত্নে থাকলেও বর্ষার শাপলা দেখে মুগ্ধ হওয়া কবেই ঘুচে গেছে।
পদ্মপুকুরের আশেপাশে যে শাপলাগুলো ফুটতো, সেগুলোর দিকে তাকিয়ে কতবার প্রিয়তমার নামে কবিতা লেখা হয়েছিলো কারোর। সে কবিতার খাতাটা সযত্নে থাকলেও বর্ষার শাপলা দেখে মুগ্ধ হওয়া কবেই ঘুচে গেছে।
বৃষ্টি ভেজা পথগুলো আজকাল প্রথম বর্ষের মেয়েটির প্রেমে পড়ার মত রোমাঞ্চিত হতে পারে কিনা সে খোঁজও আর পাওয়া যায় না। বহুদিন পেরিয়ে যায়...
বৃষ্টি ভেজা পথগুলো আজকাল প্রথম বর্ষের মেয়েটির প্রেমে পড়ার মত রোমাঞ্চিত হতে পারে কিনা সে খোঁজও আর পাওয়া যায় না। বহুদিন পেরিয়ে যায়...
তারপরো এই ক্যাম্পাস, প্রতিটি দেয়াল, মেঠোপথ, টঙের চা, টক ঝালের ফুসকা, রঙিন গল্প আঁকা দেয়াল কিংবা ঐযে দেয়ালে আঁকা একজন নেতার তর্জনীর ধারে রক্ত গরম হয়ে উঠা ছাত্রদের অপেক্ষায় থাকে। একদিন নতুন সকাল আসবে।
তারপরো এই ক্যাম্পাস, প্রতিটি দেয়াল, মেঠোপথ, টঙের চা, টক ঝালের ফুসকা, রঙিন গল্প আঁকা দেয়াল কিংবা ঐযে দেয়ালে আঁকা একজন নেতার তর্জনীর ধারে রক্ত গরম হয়ে উঠা ছাত্রদের অপেক্ষায় থাকে। একদিন নতুন সকাল আসবে।
সূর্যের নতুন রশ্মি জানিয়ে দেবে অপরিচিত নতুন শব্দ গুলোও পালিয়ে গেছে। তুমি ফিরে এসো, ফিরে এসো এই প্রাঙ্গণে।
সূর্যের নতুন রশ্মি জানিয়ে দেবে অপরিচিত নতুন শব্দ গুলোও পালিয়ে গেছে। তুমি ফিরে এসো, ফিরে এসো এই প্রাঙ্গণে।