কম খরচে ঘর সাজানোর কৌশল

কম খরচে ঘর সাজানোর কৌশল
ঘর সাজাতে কে না পছন্দ করে। প্রত্যেক মানুষ চায় তার ঘরটি হোক সুন্দর করে সাজাতে। ঘর সাজাতে অনেক কিছু করার ইচ্ছা থাকলেও সব সময় পছন্দের ঘর সাজানোর জিনিস কিনার সাধ্য থাকে না। কিন্তু চাইলেই একটু বুদ্ধি খাটিয়ে খুব কম খরচে নিজের ঘরকে সাজানো যায়।

 

 

দেয়ালের রঙ পরিবর্তন

 

আপনার ঘরের দেয়াল আকর্ষণ করতে অনেক ধরন আছে তার মাঝে একটি হলো দেয়ালের রং। ঘরের আকারকে প্রাধান্য দিয়ে রং নির্বাচন করতে হবে। দেয়ালে হালকা রং ব্যবহার করলে ঘরকে বড় দেখায় আর গাঢ় রং ব্যবহার করলে ঘরকে ছোট দেখায়। তাই এক্ষেত্রে হালকা রং নির্বাচন করাই ভালো। এতে ঘরের উজ্জ্বলতা আগের থেকে বেড়ে যাবে।

 

আসবাবপত্রের জায়গা পরিবর্তন

 

ঘরের আকারের উপর আসবাবপত্র সাজান। ঘরের আকার ছোট হলে বেশি আসবাব পত্র না রাখাই ভালো। আসবাবপত্র গুলো নাড়াচাড়া করে দেখুন, নতুন করে সাজান। দেখুন কোথায় কোনটা রাখলে ভালো লাগে। কিছু আসবাব ঘর-বদল করুন, শো-পিস নতুন করে সাজান। শুধু দেখতে হবে ঘরের আসবাবের কোন পরিবর্তনে ঘরটি আরও পরিপাটি হয়ে উঠেছে।

 

ঘরে সবুজের ছোঁয়া

 

যাদের বাগান করার সখ আছে, তারা ঘরের বারান্দা, ছাদ ছাড়াও জানালার ধার ঘেঁষে লতানো গান, ছোট ফুলের গাছ লাগাতে পারেন। অনন্যা ঘর সাজানোর জিনিসের তুলনায় গাছ যেমন সস্তা, তেমনি গাছ ঘরকে করে তুলবে রঙিন এবং জীবন্ত। পুরনো বোতল কেটে, বা টিনের কৌটোয় অথবা কাচের ছোট জারে লাগানো যায় এসব গাছ। বইয়ের তাকে, কিংবা জানালার কার্নিশে, টেবিলের ওপর বা আসবাবের পাশে অল্পস্বল্প সবুজের ছোঁয়া আপনার ঘরে নিয়ে আসবে সজীবতা।

 

ফ্রেমে ফ্রেমে বৈচিত্র্য

 

আমাদের অনেক সুন্দর মুহূর্ত বন্দি থাকে ছবিতে। সেই ছবিগুলো অল্প খরচে বাঁধাই করে দেয়ালে মনের মত সাজান। ঘরের সৌন্দর্য বাড়ানোর পাশাপাশি আপনার স্মৃতিময় হাস্যোজ্জ্বল মুহূর্তগুলো আপনার ঘরকে রাঙ্গিয়ে রাখবে। এছাড়াও আপনার হাতে করা কোনো শিল্প, কিংবা ক্যালেন্ডারের পাতায় পছন্দের কোনো ছবি, ম্যাগাজিন-কাটিং অথবা সুন্দর র‍্যাপিং পেপার, স্কুলের বন্ধুদের লিখা টি-শার্ট, যা কিছু আপনার মনে আলোড়ন তোলে, করে ফেলুন ফ্রেমে বন্দী! ছবি তোলার কথা বলছি না,সত্যিকারের ফ্রেম; দেখবেন কিভাবে ড্রয়ারে, আলমিরায় পড়ে থাকা জিনিস আপনার দেয়ালে বৈচিত্র্য নিয়ে আসে! শুধু তাই নয়, ছোট বড় ফ্রেম দিয়ে সাজানো দেয়াল আপনার রুচিশীলতার বহিঃপ্রকাশ ঘটাবে।

 

আল্পনায় দেয়াল সাজানো

 

আজকাল অনলাইনে বিভিন্ন ওয়েবসাইট বা ফেসবুক পেজে দেয়াল সাজানোর নানা রকম আলপনা পাওয়া যায়; এগুলো দামেও সাশ্রয়ী এবং দেখতেও দারুণ। এগুলো ব্যবহারে খুব কম খরচে দারুণ পরিবর্তন নিয়ে আসা যায় সাদামাটা দেয়ালে। আপনার শোবার ঘর সাজানোর জন্য এটি একটি দারুণ উপায়।

 

সাজসজ্জার আয়না

 

ড্রেসিং টেবিল ছাড়াও ঘরে রুচিশীল আয়নার ব্যবহার আনতে পারে নতুন মাত্রা। দেয়ালজোড়া আয়না যেমন ঘরের আকার বড় দেখাতে ও আলোকিত করতে সাহায্য করে, তেমন আকর্ষণীয় ফ্রেমের ও ডিজাইনের আয়না রুমের শোভা বাড়াতে পারে বহুগুণে। বাজারে ও অনলাইনে কম খরচে সুন্দর যেসব আয়না পাওয়া যায়, সেগুলো কিনে ঘরের দেয়ালে মনের মত সাজাতে পারেন।

 

শো পিস

 

অনেক সময় রাস্তার পাশেও পেতে পারেন দারুণ কিছু ঘর সাজানোর জিনিস। সবসময় বড় দোকানগুলো থেকে যে শোপিস বা ঘর সাজানোর জিনিস কিনতে হবে এমন তো নয়। পথে আসা যাওয়ার সময় রাস্তার দোকানগুলোকে খেয়াল করলে পেয়ে যেতে পারেন আপনার পছন্দের কোন ঘর সাজানোর উপকরণ।

 

ল্যাম্প শেড

 

অল্প খরচে ঘরে আভিজাত্য ফুটিয়ে তুলতে চাইলে ল্যাম্পের জুড়ি মেলা ভার। ঘরের এক কোণে একটি রঙিন ল্যাম্প রেখে দিন। সেটা হতে পারে হলুদ, লাল, নীল, কমলা কিংবা সবুজ অথবা বেশ কিছু রঙের মিশ্রণে তৈরি ল্যাম্প পাওয়া যায় বাজারে। এছাড়া ঝুলানোর জন্য বিশেষ কিছু ল্যাম্প পাওয়া যায়, এর যেকোনো একটা ল্যাম্প আপনি ঘরের কোণে রেখে দিতে পারেন।

 

বাতিল জিনিসের ব্যবহার

 

আজকাল কোন কিছুই ফেলনা নয়।ঘরে ভিন্নতা আনতে ব্যবহার করতে পারেন ফেলে দেয়া বাতিল জিনিসপত্র। চাইলে অনলাইনে ভিডিও টিউটোরিয়াল দেখে বাতিল জিনিসগুলো দিয়ে বানিয়ে ফেলতে পারেন সুন্দর সব শোপিস। যা দেখতে শৈল্পিক ও দৃষ্টিনন্দন সাথে আপনার খরচের টাকাও বাঁচিয়ে দিবে।