সবচেয়ে বড় নামের রেকর্ড যে নারীর দখলে

সবচেয়ে বড় নামের রেকর্ড যে নারীর দখলে
ছবি: সংগৃহীত
মেয়ের নামে ১০১৯ টি অক্ষর ব্যবহার করেন এবং ফের মেয়ের জন্ম সনদ তৈরি করেন। এই সনদটির বর্তমান দৈর্ঘ্য প্রায় দুই ফুট। তবে শুধু দীর্ঘ আকারের একটি নামই নয় ওই নারী তার মেয়ের ৩৮ শব্দের একটি মধ্যম আকারের নামও রেখেছেন। 

মানুষ অভিনব কিছু করতে কিংবা আলোচনায় আসতে কতকিছুই না করছে। বিশ্বজুড়ে এমন অভিনব কিছু করার প্রত্যাশায় কত জন কত তরিকা ব্যবহার করছেন। এবার এমন একজনের সম্পর্কে জানা যাক যার নাম কিনা মোট ১০১৯ টি অক্ষরের। বলার অপেক্ষাই রাখে না এই নামটিই বিশ্বের দীর্ঘতম নাম। 

 

মেয়ের জন্মের পর অভিনব কিছু করার  সিদ্ধান্ত নেন এক মার্কিন নারী। অনেক ভেবেচিন্তে বের করেন, একটি দীর্ঘ নাম রাখলে কেমন হয়। যেমন কথা তেমন কাজ।  নিজের মেয়ের জন্য বিশাল একটি নাম রাখেন তিনি। সান্ড্রা উইলিয়ামস নামের ঐ নারীর মেয়ে ১৯৮৪ সালের ১২ সেপ্টেম্বর জন্মগ্রহণ করেন। তখন তার স্বামী তাদের সন্তানের জন্ম সনদে এই নাম ‘Rhoshandiatellyneshiaunneveshenk Koyaanisquatsiuth Williams’ লিপিবদ্ধ করেন।

 

 

কিন্তু এ নামে একদমই খুশি ছিলেন না সান্ড্রা উইলিয়ামস। এরপরই তিনি মেয়ের নামে ১০১৯ টি অক্ষর ব্যবহার করেন এবং ফের মেয়ের জন্ম সনদ তৈরি করেন। এই সনদটির বর্তমান দৈর্ঘ্য প্রায় দুই ফুট। তবে শুধু দীর্ঘ আকারের একটি নামই নয় ওই নারী তার মেয়ের ৩৮ শব্দের একটি মধ্যম আকারের নামও রেখেছেন। 

 

 

তবে চিন্তার কোনো কারণ নেই, তাকে ডাকতে হলে এতোগুলো শব্দ একসাথে উচ্চারণ করে কারো দাঁত ভাঙতে হয়না। তার ডাকনাম কেবলই দুই অক্ষরের। পরিবারের সকলে তাকে 'জিমি' বলেই সম্বোধন করেন।  

 

 

বর্তমানে গিনেস বুক ওয়ার্ল্ডে স্থান পাওয়া সবচেয়ে বড় নাম জিমির। তার আগে এই স্থানটি ছিলো হোবার্ট বালিন নামের এক ব্যক্তির৷ তার নামে অক্ষর এর সংখ্যা ছিলো ৭৪৭টি। আর জিমির নামের অক্ষরের সংখ্যা ১০১৯ টি। সেই হিসেবে অক্ষরের দিক থেকে বেশ অনেকটাই এগিয়ে এই মার্কিন নারী। আর তার এই দীর্ঘ নামের রেকর্ড ভাঙতে হলে যে কারো নামে অবশ্যই ১০১৯ টির বেশি অক্ষর থাকতে হবে।