প্রয়োজনে নারীদের সেনাবাহিনীতে ফিরিয়ে আনবে তালেবান

প্রয়োজনে নারীদের সেনাবাহিনীতে ফিরিয়ে আনবে তালেবান
ছবি: সংগৃহীত
তথ্য ও সংস্কৃতি বিষয়ক উপমন্ত্রী এবং তালেবানের মুখপাত্র জাবিউল্লাহ মুজাহিদ সেনাবাহিনীর নারী সদস্যদের ব্যাপারে বলেন, প্রয়োজন হলে নারীদের ফের সেনাবাহিনীতে নিয়োগ দেওয়া হবে। সেনাবাহিনীর নারী সদস্যদের নিয়ে তাদের এ পরিকল্পনার কথা আফগানিস্তানের স্থানীয় খামা নিউজ এক প্রতিবেদনে তুলে ধরে। 

তালেবান সরকার ক্ষমতায় আসার পর একের পর এক নিজেদের জায়গা হারিয়েছেন আফগান নারীরা। প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রে কর্মরত নারীদের বিভিন্ন বাঁধার সম্মুখীন হতে হয়েছে। যেসব নারী সদস্য আফগান সেনাবাহিনীতে  কাজ করতেন তাদের ভবিষ্যতও পড়েছে অনিশ্চয়তায়। 


তবে নারীদের এই অনিশ্চয়তার মুখে নতুন গান গাইলেন তালেবান সরকার। তথ্য ও সংস্কৃতি বিষয়ক উপমন্ত্রী এবং তালেবানের মুখপাত্র জাবিউল্লাহ মুজাহিদ সেনাবাহিনীর নারী সদস্যদের ব্যাপারে বলেন, প্রয়োজন হলে নারীদের ফের সেনাবাহিনীতে নিয়োগ দেওয়া হবে। সেনাবাহিনীর নারী সদস্যদের নিয়ে তাদের এ পরিকল্পনার কথা আফগানিস্তানের স্থানীয় খামা নিউজ এক প্রতিবেদনে তুলে ধরে। 


মার্কিন সরকারের নজরদারি প্রতিষ্ঠান স্পেশাল ইন্সপেক্টর জেনারেল ফর আফগানিস্তান রিকনস্ট্রাকশন (এসআইজিএআর) গত বছরের জুলাইতে জানিয়েছিল, আফগান পুলিশ বাহিনীতে ৪ হাজার ২৫৩ জন, সেনাবাহিনীতে একহাজার ৯১৩ জন এবং বিমানবাহিনীতে ১৪৬ জন নারী সদস্য কর্মরত ছিলেন।


উল্লেখ্য, গত ১৫ আগস্ট আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখলে নেয় তালেবান সরকার। ক্ষমতায় আসার পরই দেশজুড়ে মেয়েদের স্কুলগুলো অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ করে দেয়া হয়। নিষিদ্ধ করা হয় ঘরের বাইরে নারীদের কাজ করা। এর আগে, ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্তও নারীদের ঘরের বাইরে কাজ করার অনুমোদন দেয়নি তালেবান সরকার। এরমধ্যেই কিছুদিন আগে কোনো পুরুষ আত্মীয় ব্যতীত একা গাড়িতেও উঠতে পারবেননা আফগান নারীরা এমন নিয়ম জারি করেন তালেবান সরকার।