টিভি নাটকে নারীদের উপস্থিতি নিষিদ্ধ করেছে তালেবান

টিভি নাটকে নারীদের উপস্থিতি নিষিদ্ধ করেছে তালেবান
ছবি: সংগৃহীত
গত আগস্টের মাঝামাঝি কাবুল দখলের মধ্য দিয়ে গোটা আফগানিস্তানের ক্ষমতার নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পর তালেবানের নতুন সরকার ধীরে ধীরে নিজেদের আদর্শ মোতাবেক আইন-কানুন ও নির্দেশনা জারি করছে। তালেবান, ১৯৯০-এর দশকে তাদের আগের শাসনামলেও নারীদের শিক্ষা গ্রহণ এবং বাইরে কাজ করার ক্ষেত্রে বাধা দিয়েছিল।

আফগানিস্তানে টেলিভিশন নাটকে নারীদের উপস্থিতি নিষিদ্ধ করেছে তালেবান। নতুন আইন অনুযায়ী সাংবাদিক ও উপস্থাপকদের পর্দায় হিজাব পরে উপস্থিত হতে বলা হয়েছে। তবে কোন ধরনের হিজাব ব্যবহার করতে হবে সেই বিষয়ে সুনির্দিষ্ট করে কিছু বলা হয়নি।

 

সাংবাদিকেরা বলছেন, তালেবানের নতুন কিছু নিয়ম অস্পষ্ট আর সেগুলো ব্যাখ্যার প্রয়োজন রয়েছে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে। তালেবানের সৎকাজে উৎসাহ ও অসৎকাজে নিরুৎসাহ সম্পর্কিত মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হাকিফ মোহাজির এএফপিকে বলেন, ‘এগুলো আইন নয় বরং ধর্মীয় নির্দেশনা।’

 

গত আগস্টের মাঝামাঝি কাবুল দখলের মধ্য দিয়ে গোটা আফগানিস্তানের ক্ষমতার নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পর তালেবানের নতুন সরকার ধীরে ধীরে নিজেদের আদর্শ মোতাবেক আইন-কানুন ও নির্দেশনা জারি করছে। তালেবান, ১৯৯০-এর দশকে তাদের আগের শাসনামলেও নারীদের শিক্ষা গ্রহণ এবং বাইরে কাজ করার ক্ষেত্রে বাধা দিয়েছিল।

 

সর্বশেষ তারা আফগান টেলিভিশন চ্যানেলগুলোর জন্য নতুন যে নির্দেশাবলী জারি করলো, সেখানে মোট আটটি ব্যাপারে বিধিনিষেধ দেয়া হয়েছে। এগুলোর মধ্যে ইসলামিক আইন এবং আফগান মূল্যবোধের বিরুদ্ধে যায় এমন চলচ্চিত্র নিষিদ্ধ করার কথা বলা হয়েছে। এছাড়া পুরুষদের শরীরের গোপন অংশগুলো প্রকাশ করার ফুটেজও নিষিদ্ধ করা হয়েছে। 

 

বিনোদনমূলক অনুষ্ঠান গুলোতে ধর্মকে অবজ্ঞা করা যাবে না অথবা আফগানদের কাছে আক্রমণাত্মক মনে হয় এমন সবকিছু নিষিদ্ধ থাকবে। তালেবান বিদেশি ফিল্ম ও বিদেশি মূল্যবোধ প্রচার কঠোর ভাবে নিষেধ করেছে।