চুল পড়া রোধ করে যেসব খাবার 

চুল পড়া রোধ করে যেসব খাবার 
ছবিঃ সংগৃহীত
চুলের জন্য প্রোটিন খুবই প্রয়োজনীয় উপাদান। তাই প্রতিদিন আপনি খাবারে কী পরিমাণ প্রোটিন গ্রহণ করছেন তা জরুরি। এক্ষেত্রে ডিম হতে পারে আপনার প্রতিদিনের খাদ্য তালিকার আবশ্যক খাবার। কারণ এতে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন থাকে। ডিম খাওয়ার পাশাপাশি চুলে ডিম মাখলেও উপকার পাবেন।

আমাদের সবারই কমবেশি চুল পড়ে। হয়তো কারও কম আবার কারও বেশি। সাধারণভাবে দিনে ৫০ থেকে ১০০টি চুল পড়া স্বাভাবিক। তবে এর বেশি হলেই তা চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। চুল পড়া রোধে খাবারের তালিকা তৈরিতে মনযোগী হতে হবে। কিছু খাবার রয়েছে যা ভেতর থেকে পুষ্টি সরবরাহ করে আমাদের চুলকে উজ্জ্বল ও সুন্দর করে তোলে। পাশাপাশি বন্ধ হয় চুল পড়াও-


চুলের জন্য প্রোটিন খুবই প্রয়োজনীয় উপাদান। তাই প্রতিদিন আপনি খাবারে কী পরিমাণ প্রোটিন গ্রহণ করছেন তা জরুরি। এক্ষেত্রে ডিম হতে পারে আপনার প্রতিদিনের খাদ্য তালিকার আবশ্যক খাবার। কারণ এতে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন থাকে। ডিম খাওয়ার পাশাপাশি চুলে ডিম মাখলেও উপকার পাবেন। ডিমের সমৃদ্ধ জৈব প্রোটিন শরীরের পুষ্টি চাহিদা মেটানোর মতোই চুলকেও পুষ্টি যোগায়। ডিমের সাদা অংশের মতোই কুসুমসহ পুরো ডিমও চুলে মাখা যায়। চুলের যত্নে ডিম খুবই উপকারী।


চুল পড়া রোধে ভিটামিন সি খুব জরুরি। চুলে পুষ্টি পৌঁছে দিয়ে দ্রুত চুল জন্মাতে সাহায্য করে ভিটামিন সি। তাই বেশিরভাগ পুষ্টিবিদ প্রতিদিন লেবু খাওয়ার পরামর্শ দেন। দিনে লেবুর রসের সাথে পানি মিশিয়ে পান করে উপকার পাবেন। কমলাতেও ভিটামিন সি রয়েছে তাই কমলাও খেতে পারেন নিয়মিত।এতে আপনার চুল পড়া কমবে এবং চুল সুন্দর হবে।


বাদাম কিংবা শুকনো ফল জাতীয় খাবারে রয়েছে বেশকিছু পুষ্টিগুণ। বাদাম, ফ্লাক্স সীড, আখরোট, তিল প্রভৃতিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড। চুল পড়া বন্ধে বাদামের জুড়ি নেই। চুলের কিউটিকল মজবুত করতে আর স্ক্যাল্পে পুষ্টি জোগাতে রোজ একমুঠো করে বাদাম খান।


আয়রনের অভাবে অ্যানিমিয়া হয়।এর ফলে চুল পড়া অনেক বেড়ে যায় তাই আয়রনের ভালো উৎস হিসেবে সিমের দানা, ডার্ক চকলেট, মসুর ডাল, মাংস, শুকনো ফল, ঢেঁকি ছাটা লাল চাল ইত্যাদি খেলে চুল পড়া থেকে নিস্তার পাবেন।


চুল পড়া কমাতে গাজর খুব ভাল একটি উপাদান। বিটা ক্যারোটিন একটি পুষ্টি যা চুল পড়া রোধে সহায়তা করে। গাজর বিটা ক্যারোটিন সমৃদ্ধ। গাজরে ভিটামিন কে, সি, বি 6, বি 1, বি 3, বি 2,পটাসিয়াম এবং ফসফরাস সমৃদ্ধ যা স্বাস্থ্যকর এবং শক্তিশালী চুলের জন্য প্রয়োজনীয়। প্রতিদিন গাজরের রস পান করা চুলের ক্ষতিকে উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস করতে পারে।


এছাড়া পালং শাকও চুল পড়া রোধে অনেক কার্যকারী ভূমিকা পালন করে।পালং শাকে আয়রন সমৃদ্ধ, এতে রয়েছে সিবাম, যা চুলের প্রাকৃতিক কন্ডিশনার হিসেবে কাজ করে। শাক শরীরকে ওমেগা-৩ এসিড, ম্যাগনেসিয়াম, পটাশিয়াম ও ক্যালসিয়াম সরবরাহ করে।