পার্টিতে গ্ল্যামারাস লুক

পার্টিতে গ্ল্যামারাস লুক
ছবিঃ সংগৃহীত
সন্ধ্যা বেলার লুকে কম্প্যক্ট পাউডারের তুলনায় ফাউন্ডেশনের স্মুদ বেইজ ভালো মানায়। ভালো করে ব্লেন্ড করে নিন ত্বকের সাথে মানানসই ফাউন্ডেশন। চোখের নিচ এবং ত্বকে দাগের জন্য ব্যবহার করুন সামান্য কনসিলার।

সারাদিন নানান কাজ ও অফিসের ব্যস্ততা শেষে শুধু যে বাসায় শুয়ে বসে কাটাতে পারবেন তা কিন্তু নয়। অনেক ক্ষেত্রে সন্ধ্যা বেলায় পার্টিতে যাওয়ার দাওয়াত পড়ে যায়। কারণ দিনের বেলা বিভিন্ন কাজে ব্যস্ত থাকে। তাই সন্ধ্যা কিংবা রাতের বেলাতেই পার্টি জমে ওঠে।

 

কিন্তু সারাদিনের ঝামেলা শেষে একটু ফ্রেশ দেখানোর জন্য সাজগোজ করার ইচ্ছে একেবারেই যেন উবে যায়। অনেকেই ঝামেলা মনে করেন। কিন্তু আপনি খুব সহজেই মেকআপের সামান্য কারসাজিতে গ্ল্যামারাস লুক পেতে পারেন।

 

স্মুদ বেইজ দিয়ে নিন ত্বকে: সন্ধ্যা বেলার লুকে কম্প্যক্ট পাউডারের তুলনায় ফাউন্ডেশনের স্মুদ বেইজ ভালো মানায়। ভালো করে ব্লেন্ড করে নিন ত্বকের সাথে মানানসই ফাউন্ডেশন। চোখের নিচ এবং ত্বকে দাগের জন্য ব্যবহার করুন সামান্য কনসিলার।

 

চোখে দিন স্মোকি সাজ: সন্ধ্যা বা রাতের পার্টির জন্য চোখের সাজ স্মোকি দিন। এতে গ্ল্যামারাস ও বোল্ড লুক আসবে। পোশাকের সাথে মিলিয়ে ব্লু, গ্রে, ব্ল্যাক ধরণের আইশেডের ডার্ক রঙগুলো ব্যবহার করুন।

 

ব্লাশঅন: রাতের মেকআপে গ্ল্যামারাস লুকের জন্য যেমন বেইজটা হালকা ও স্মুদ দিয়েছেন তেমনি লক্ষ্য রাখবেন ব্লাশঅনের ক্ষেত্রেও। অনেক কড়া রঙের ব্লাশঅন এড়িয়ে চলুন। এতে করে রাতের লুকটাই মাটি হয়ে যাবে। হালকা করে পিংক, পীচ ধরণের ব্লাশঅন দিয়ে নিন।

 

ন্যুড লিপস্টিক দিন: যেহেতু চোখের সাজ স্মোকি দিয়েছেন তাই এর সাথে বেশ ভালো মানিয়ে যাবে ন্যুড লিপস্টিক। পীচ, বেবি পিংক, লাইট ব্রাউন ইত্যাদি রঙের লিপস্টিকগুলো আপনার ঠোঁটের সাজেও নিয়ে আসবে গ্ল্যামারাস লুক।

 

চুল: পোশাকের সাথে মিলিয়ে চুল বাধুন। চাইলে চুল খোলা রেখে দিতে পারেন। আজকাল চুল কার্ল করার ফ্যাশন নেমেছে। অথবা স্ট্রেট করেও ছেড়ে রাখতে পারেন। রাতের পার্টির জন্য বেশ ভালোই মানাবে।

 

ব্যস এইটুকু মেকআপেই আপনি সন্ধ্যার পার্টিতে হয়ে উঠবেন ভীষণ গ্ল্যামারাস। ভারী মেকআপ করা থেকেও পাবেন মুক্তি।