যে দেশে সূচনা সে দেশেই পালিত হয়না মে দিবস!

যে দেশে সূচনা সে দেশেই পালিত হয়না মে দিবস!
যে দেশে সূচনা সে দেশেই পালিত হয়না মে দিবস!
১৮৮৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো শহরের উপযুক্ত মজুরি আর দৈনিক ৮ ঘণ্টা কাজের দাবিতে বিক্ষোভ শুরু করেন ওই শহরের কিছু শ্রমিকরা। কিন্তু আন্দোলনরত শ্রমিকদের দমাতে মিছিলে এলোপাথাড়ি গুলি চালায় পুলিশ। এতে ১১ শ্রমিক নিহত হন। এছাড়াও আহত ও গ্রেফতার হন আরও বহু শ্রমিক। এর পরে  গ্রেফতারকৃত শ্রমিকদের মধ্যে ছয়জনকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়। 

আজ পহেলা মে, আন্তর্জাতিক মে দিবস। ১৮৯০ সাল থেকে শ্রমজীবী মানুষের অধিকার ও দাবি আদায়ের লক্ষ্যে প্রতিবছর এই দিনটিতে বিশ্বব্যাপী পালিত হয় আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবস। কিন্তু এই শ্রমিক দিবসের সূচনা যুক্তরাষ্ট্র থেকে হলেও এ দেশটিতেই পালিত হয়না দিনটি৷ 

 

১৮৮৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো শহরের উপযুক্ত মজুরি আর দৈনিক ৮ ঘণ্টা কাজের দাবিতে বিক্ষোভ শুরু করেন ওই শহরের কিছু শ্রমিকরা। কিন্তু আন্দোলনরত শ্রমিকদের দমাতে মিছিলে এলোপাথাড়ি গুলি চালায় পুলিশ। এতে ১১ শ্রমিক নিহত হন। এছাড়াও আহত ও গ্রেফতার হন আরও বহু শ্রমিক। এর পরে  গ্রেফতারকৃত শ্রমিকদের মধ্যে ছয়জনকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়। 


এতে করে চলমান বিক্ষোভ আরও প্রকট আকার ধারণ করে। ধীর ধীরে আন্দোলন ছড়িয়ে পড়ে সারাবিশ্বে। পরবর্তী সময়ে আন্দোলনরত শ্রমিকদের দাবি মেনে নিতে বাধ্য হয় যুক্তরাষ্ট্র সরকার। ১৮৮৯ সালের ১৪ জুলাই ফ্রান্সে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক শ্রমিক সম্মেলনে পহেলা মে শ্রমিক দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয়। পরের বছর ১৮৯০ সাল থেকে পহেলা মে বিশ্বব্যাপী ‘মে দিবস’ বা ‘আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবস’ হিসেবে পালন হয়ে আসছে।


বিশ্বের  ৮০টিরও বেশি দেশে মে দিবস সাধারণ ছুটি ও শ্রমিক দিবস হিসেবে পালিত হয়ে থাকে। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রে শ্রমিক দিবসের সূচনা হলেও পহেলা মে তে দেশটিতে পালিত হয়না শ্রমিক দিবস। বরং এর পরিবর্তে সেপ্টেম্বর মাসের প্রথম সোমবার শ্রমিক দিবস হিসেবে পালন করে যুক্তরাষ্ট্র৷ 


এর কারণ হিসেবে বলা হয়, ১৮৮৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো শহরের হে মার্কেটের হত্যাকাণ্ডের পর তৎকালীন সময়ে দেশটিতে দায়িত্ব-রত প্রেসিডেন্ট গ্রোভার ক্লিভল্যান্ড মনে করেছিলেন পয়লা মে  যেকোনো আয়োজন যেকোনো হানাহানিতে পর্যবসিত হতে পারে। এ কারণে  ১৮৮৭ সালেই তিনি পহেলা মে-র পরিবর্তে সেপ্টেম্বরে দিবসটি পালনের প্রতি  আগ্রহী হন।