Skip to content

৫ই মে, ২০২৪ খ্রিষ্টাব্দ | রবিবার | ২২শে বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চলে গেলেন রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের প্রথম নারী চেয়ারম্যান লুনা শামসুদ্দোহা

 

সফটওয়্যার খাতের মানোন্নয়নে দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতে নারী উদ্যোক্তা হিসেবে ১৯৯২ সালে দোহাটেক নিউ মিডিয়া প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে তার ব্যবসায়িক জীবনের সূচনা ঘটে এবং দেশের একজন আইটি বিশেষজ্ঞ হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেন। তার প্রতিষ্ঠান সরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানেই-গভর্নেন্স প্রকল্পের সঙ্গে যুক্ত, এরমধ্যে ই-জিপি সিস্টেম অন্যতম। ২০০৭-২০০৮ সালে তিনি জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরিতেও গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন।

 

এই প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে দেশে বায়োমেট্রিক্স সফটওয়্যার জনপ্রিয় করে তোলেন তিনি। এছাড়াও দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতে নারীদের মানোন্নয়ন এবং আন্তঃসহযোগিতার উদ্দেশ্য বাংলাদেশ ওমেন ইন আইটি (বিডব্লিউআইটি) সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেন। শুধু সফটওয়্যার নয়, শিক্ষামূলক এবং ফিন্যান্সিয়াল প্রতিষ্ঠানের জন্য বহুমুখী সফটওয়্যার তৈরি করে সুনাম অর্জন করেছে দোহাটেক।

 

সফটওয়্যার উন্নয়নে সফল নারী উদ্যোক্তা হিসেবে ২০১৩ সালে ‘অনন্যা শীর্ষ ১০ পুরস্কার’ পান লুনা শামসুদ্দোহা। তথ্য প্রযুক্তি খাতে নারী উদ্যোক্তা হিসেবে এবারই তাকে প্রথম এই সম্মাননা দিলো পাক্ষিক অনন্যা। সোমবার জাতীয় জাদুঘরের বেগম রোকেয়া মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তৎকালীন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু লুনা সামসুদ্দোহার হাতে এই সম্মাননা তুলে দেন।

 

চলে গেলেন রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের প্রথম নারী চেয়ারম্যান লুনা শামসুদ্দোহা

 

এছাড়াও ২০০৫ সালে তিনি সুইচ ইন্টারঅ্যাকটিভ মিডিয়া সফটওয়্যার অ্যাসোসিয়েশন (সিমসা) পুরষ্কার অর্জন করেন। এরপর তিনি দেশের আইসিটি খাতে নারীদের উৎসাহী করে তোলার জন্য বিশেষ সম্মাননা পুরষ্কার পান। এদিকে দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতে নারীদের মানোন্নয়ন এবং আন্তঃসহযোগিতার উদ্দেশ্য বাংলাদেশ ওমেন ইন আইটি (বিডব্লিউআইটি) সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেন। ২০১৩ সালে প্রযুক্তি খাতে নারীদের এগিয়ে নিয়ে যাওয়া এবং নারীর ক্ষমতায়ন বৃদ্ধির কারণে গ্লোবাল উইমেন ইনভেন্টরস অ্যান্ড ইনোভেটরস নেটওয়ার্ক (গুইন) সম্মাননা পান।

 

তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগ থেকে ১৯৭৮ সালে এমএ ডিগ্রি অর্জন করেন। এরপর তিনি একই বিশ্ববিদ্যালয়ের আধুনিক ভাষা ইন্সটিটিউট-এ প্রভাষক হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন।

 

 

ডাউনলোড করুন অনন্যা অ্যাপ