Skip to content

২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিষ্টাব্দ | শনিবার | ৯ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঝটপট ব্যাচেলার স্পেশাল শুঁটকি ভর্তা 

আমার এই সহজ শুঁটকির রেসিপি।

 

 

উপকরণ

 

যেকোন ছোটমাছের শুঁটকি- ৫০ গ্রাম
পেয়াজ- ১ কাপ
রসুন(বড়)- অর্ধেক
কাঁচা মরিচ- ১ কাপ
লবণ পরিমাণমত
তেল
ধনে পাতা (সামান্য)

 

 

প্রস্তুত প্রণালি 

শুঁটকিগুলো কুসুম গরম পানিতে ধুয়ে পরিষ্কার করে নিন।একটা পানি ঝরানোর পাত্রে রেখে দিন শুঁটকি থেকে পানিটুকু ঝরে যাওয়ার জন্য। এক কাপ পেয়াজ স্লাইস করে কেটে নিন। খেয়াল রাখতে হবে খুব বেশী মোটা বা চিকন যেন না হয়। এরপর মরিচগুলো মাঝখান দিয়ে কেটে দু টুকরো করে নিন। রসুনগুলো কেটে নিন ছোট করে।

এবার একটা কড়াইয়ে এক টেবিল চামচ তেল দিয়ে দিন। তেল গরম হয়ে গেলে তাতে পেয়াজ রসুন আর মরিচ ভেজে নিন একে একে। পেয়াজগুলো ৪-৫ মিনিট ভাজলেই দেখবেন পেয়াজগুলো নরম নরম হয়ে এসেছে, কিন্তু বাদামী হতে শুরু করেনি। এরকম অবস্থায়ই নামিয়ে নিন। কাঁচামরিচগুলো তেলে দেবার পর যখন মরিচের গায়ের রঙ ফ্যাকাসে হয়ে যাবে তখন নামিয়ে নিন।

তবে খেয়াল রাখবেন, মরিচ যেন ভালভাবে সেদ্ধ হয় অর্থাৎ কাঁচা না থাকে। এরপর তেলে শুঁটকিটা ভেজে নিন হালকা মুচমুচে করে। বেশী মুচমুচে করে ফেলবেন না, তাহলে শুঁটকিগুলো গুড়ো হয়ে যাবে। শুঁটকির কিনারাগুলো মুচমুচে হবে কিন্তু ভেতরের অংশটুকু নরম থাকবে।

শুঁটকি ভাজা হলে আগে লবণ দিয়ে পেয়াজ, মরিচ আর রসুন ভালোভাবে মাখিয়ে ভরতা করে নিন। এরপর শুঁটকি দিয়ে দিন। শুঁটকিগুলো শীল দিয়ে বা শক্ত কিছু দিয়ে আধা থেঁতো করে নিন। পুরো বাটা বানিয়ে ফেলার প্রয়োজন নেই! আধা থেঁতো করে সেটাকে মাখিয়ে ফেলুন। এরপর ধনেপাতা কেটে মাখিয়ে নিন। আপনি চাইলে সরিষার তেলও দিতে পারেন খানিকটা। কিংবা আচারের তেল। তবে সরিষার তেল বা ধনেপাতা, এ দুটো না দিলেও চলে।

 

ব্যস! তৈরি হয়ে গেলো ঝটপট ব্যাচেলার স্পেশাল সহজ শুঁটকি ভর্তা!