Skip to content

১লা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিষ্টাব্দ | শনিবার | ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পা ফাটা দূর করতে পেঁয়াজের ভূমিকা!

শীতে পা ফাটা একটি বড় সমস্যা। শীত পড়তে না পড়তেই দেখা যায় অনেকের পায়ের গোড়ালির অংশ ফেটে যায়। এর কারণ হলো শীতে পায়ের নিচের ত্বক অন্য সময়ের চেয়ে বেশি শুষ্ক থাকে। তাই এই পা ফাটার সমস্যা দেখা দেয়। পা ফাটলে পা অনেক খসখসে হয়ে যায় আর দেখতেও খারাপ লাগে অনেক। আবার পা ফাটা অনেক সময় মারাত্মক আকারও ধারণ করতে পারে। পা ফেটে রক্ত বের হওয়ার উপক্রম হয়। ব্যথা হয়, তখন হাঁটতেও সমস্যা হয়। আর দীর্ঘদিন পা ফাটার সমস্যা থেকে ইনফেকশন হতে পারে। তাই শীতে পায়ের বাড়তি যত্ন নিতে হয়। 

এক্ষেত্রে পা ফাটার সমস্যা সমাধানে পেঁয়াজের রস ব্যবহারে ভালো উপকার পেতে পারেন। বিভিন্ন প্রসাধনী ব্যবহার করেও পা ফাটা উপশম করা গেলেও পেঁয়াজের রস এক্ষেত্রে খুবই কার্যকর। 

 

চলুন জেনে নিই পা ফাটা রোধে পেঁয়াজের ব্যবহার

 

পেঁয়াজের রস পা ফাটার জন্য খুবই উপকারী। পেঁয়াজের রস পায়ের শুষ্কতা দূর করে। পেঁয়াজের মধ্যে রয়েছে ফসফরাস, দস্তা, ম্যাগনেসিয়াম এবং আয়রন। এ ছাড়া শরীরের অতিরিক্ত টক্সিন (ক্ষতিকর পদার্থ) বের করে দেয় পেঁয়াজ। সেই সঙ্গে ঠিক রাখে রক্ত প্রবাহ। পেঁয়াজে আরও রয়েছে ভিটামিন এ, সি ও ই। ভিটামিন সি ত্বককে সুস্থ রাখে এবং ভিটামিন ই ত্বকের আর্দ্রতা বজায় রাখে। আর এসব ভিটামিনই ত্বককে যাবতীয় ক্ষতির হাত থেকে বাঁচায়। 

 

ব্লেন্ডারে পেঁয়াজ ব্লেন্ড করে রস বানিয়ে তার মধ্যে এক চামচ মধু ও অলিভ অয়েল মিশিয়ে গোড়ালির ফাটা স্থানে ব্যবহার করুন। ২০ থেকে ২৫ মিনিট ম্যাসাজ করে ঠাণ্ডা পানিতে পা ধুয়ে নিন। এক সপ্তাহ নিয়মিত ব্যবহার করলে ভালো ফল পাবেন পা ফাটা দূর হবে।

 

এ ছাড়াও রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে পেঁয়াজের রসেতে পেঁয়াজের রসের সঙ্গে সরিষার তেল, অলিভ অয়েল ও ক্যাস্টর অয়েল মিশিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে। ফাটার স্থানে মিশ্রণটি ভালোভাবে ম্যাসাজ করে ব্যবহার করে মোজা পরে ঘুমিয়ে পড়ুন। পরদিন সকালে উঠে ভালো করে পা দু’টো ধুয়ে নিন। এতে করে পা ফাটা দূর হয়ে যাবে।