Skip to content

২০শে ফেব্রুয়ারী, ২০২৪ খ্রিষ্টাব্দ | মঙ্গলবার | ৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

অন্য রকম পুলি

বাঙালী কিন্তু পুলি পিঠার নাম জানেন না, এমনটি খুঁজে পাওয়াটাই দুষ্কর। চন্দ্রাকৃতি পুলি আমাদের দেশের অনেকের পছন্দের পিঠার তালিকায় সবার শীর্ষে। সময়ের সাথে সাথে পিঠার আকৃতিতেও এসেছে বেশ পরিবর্তন । চিরাচরিত সেই চন্দ্রাকৃতি পুলির আকৃতি থেকে বেড়িয়ে একটু চেষ্টা করলেই তৈরি করা যায় রোল মালাই পুলি। এতে রসনার খাবার টেবিলে আসবে বৈচিত্র্য।

 

 

উপকরণ

 

 

তরল দুধ ৩ কাপ

ঘি ১ টেবিল চামচ

নারকেল কুড়ানো ১ টি

খেজুরের গুর ১ কাপ

চালের গুড়া ২.৫ কাপ

দারুচিনি ২ টি

তেজপাতা ১ টি

এলাচি ২ টি

চিনি ২ টেবিল চামচ

নারিকেল কুড়ানো ৩ কাপ

লবণ পরিমাণ মতো 

 

 

 

 

প্রস্তুত প্রণালী

 

 

 

প্রথমে একটি কড়াইয়ে খেজুরের গুড় দিয়ে, এতে এ টেবিল চামচ পানি। গুড় গলে গিয়ে একটি আঠালো ভাব চলে আসলে নারকেল কুড়ানো দিয়ে মিশিয়ে নিতে হবে। অবশ্যই পানি না শুকানো পর্যন্ত অনবরত নাড়তে থাকতে হবে। এবার চুলায় আরেকটি কড়াই বসিয়ে এতে দুধ, এলাচি, দারুচিনি, তেজপাতা দিয়ে নাড়তে থাকতে হবে। ৪-৫ মিনিট পর এতে চিনি দিইয়ে আবারও নাড়তে থাকতে হবে। এতে লেগে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকবে না। দুধ ঘন হয়ে ২/৩ ভাগে চলে আসলে এতে এক টেবিল চামচ চালের গুড়া দিইয়ে নাড়তে থাকতে হবে। ২-৩ মিনিট পর দুধ মালাইটি নামিয়ে রাখতে হবে।

  
এবার আরেকটি কড়াইয়ে দেড় কাপ পরিমাণ পানি, এক চা চামচ লবণ ফুটিয়ে চালের গুড়া বাকিটুকু দিইয়ে ঢেকে দিতে হবে। ২ মিনিট সেদ্ধ করার পর চামচ দিইয়ে যথা সম্ভব মিশিয়ে নামিয়ে ফেলতে হবে। এক্ষেত্রে মনে রাখতে হবে, শুকনো চালের গুড়ার জন্য দেড় কাপ পানি এবং ভেজা চালের গুড়ার জন্য ১ কাপ পরিমাণ পানি দিতে হবে। 

মিশ্রণ ঠাণ্ডা হলে হাতে ভালোভাবে মিশিয়ে অর্ধেক মিশ্রণ নিয়ে একটি রুটি তৈরি করতে হবে। মনে রাখতে হবে, রুটি সবদিক থেকে সমান পুরুত্বের হতে হবে। এবার রুটির উপরে আগে থেকে তৈরি করে রাখা নারকেল এবং গুড়ের মিশ্রণ ছড়িয়ে দিতে হবে। এবার হাত দিইয়ে চেপে চেপে রুটি তি মুড়িয়ে রোল তৈরি করে নিতে হবে। রোলের দুইপ্রান্ত কেটে সমান করে নেয়া যেতে পারে।

এবার একটি পাত্রে অর্ধেক পানি দিইয়ে, এর উপর একটি ছিদ্রযুক্ত ধাতব পাত্র বসিয়ে দিতে হবে। যাতে ধাতব পাত্রের ছিদ্র দিইয়ে বাষ্প পিঠাকে সেদ্ধ হতে সাহায্য করে। পানি ফুটতে শুরু করলে সাবধানে বড় পিঠা রোলগুলোকে ছিদ্রযুক্ত পাত্রের রেখে ঢেকে দিতে হবে। এভাবে ১৫-২০ মিনিট পুরো আঁচে রেখে দিতে হবে। সময় শেষে পিঠাগুলোকে নামিয়ে ঠাণ্ডা করে কেটে নিতে হবে। 

রান্না শেষে ধৈর্য ধরে ধারালো ছুরি দিইয়ে আস্তে আস্তে কাজটি করতে হবে। যাতে পিঠা ভেঙে না যায়। এবার পিঠাগুলো একটি থালায় সাজিয়ে, এর উপর আগে থেকে করে রাখা দুধ মালাই দিইয়ে পরিবেশন করতে হবে। 

পিঠার রাজত্বে পুলির নাম বেশ সমাদৃত। কিন্তু রোল মালাই পুলি আপনার স্বাদে যেমন পরিবর্তন আনবে, তেমন করেই সাধারণ পুলিতে আনবে অন্যরকম বৈচিত্র্য। আপনার নাস্তা হবে বৈচিত্র্যপূর্ণ এবং সবার থেকে আলাদা।

ডাউনলোড করুন অনন্যা অ্যাপ