Skip to content

২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিষ্টাব্দ | বুধবার | ১৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আজকাল ফ্যাশনে কাঠের গয়নার আধিপত্য

নারীর সাজগোজের অনেক বড় একটি অনুষঙ্গ গয়না। পোশাকের সঙ্গে মিল রেখে বিভিন্ন ধরনের, বিভিন্ন ডিজাইনের গয়না পরতে দেখা যায় নারীদের। একসময় সোনা, রূপা, হিরে, মুক্তাসহ বিভিন্ন ধরনের দামি গয়নার চাহিদা ছিল। আজকালও এসবের চাহিদা রয়েছে বটে, তবে সেই সাথে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে নতুন ধরনের ও নকশার গয়নার ব্যবহার। তার মধ্যে একটি হলো কাঠের গয়না।

কাঠের গয়না দামে যেমন কম, দেখতেও তেমন সুন্দর ও মানানসই৷ তাই বোধহয় এর জনপ্রিয়তা দিন দিন বেড়েই চলেছে। এছাড়া দামি দামি গহনা তো আর রোজ পরা যায় না। কিন্তু কাঠের গহনা যেমন বিয়ে বাড়িতে পরা যায়, অফিসেও পরা যায়। আবার ঘুরতে গেলেও পরা যায়। যেকোনো ধরনের পোশাকের সঙ্গে কাঠের তৈরি গয়না মানিয়ে যায়।

শাড়ির সঙ্গে

একসময় ধারণা করা হতো, শাড়ির সঙ্গে শুধু ভারী গয়নাই মানানসই। কোনো অনুষ্ঠানে যাওয়া মানেই শাড়ি আর তার সঙ্গে ভারী কোনো গয়না। কিন্তু শাড়ির সঙ্গে চাইলে যেকোনো নকশার ও রঙের কাঠের গয়না যেকোনো অনুষ্ঠানে পরা যায়। এক্ষেত্রে শাড়ি ও সাজ অনুযায়ী গয়না পছন্দ করতে হবে। হালকা সাজতে চাইলে মিডিয়াম কিংবা ছোটো আকৃতির গয়না পরতে পারেন, আবার একটু বেশি সাজতে চাইলে বড় দেখে গয়না পছন্দ করতে পারেন। গলায়, হাতে ও কানে একই ধরনের ডিজাইন করা কাঠের গয়না শাড়ির সঙ্গে ভালো লাগবে।

কুর্তি বা সালোয়ার কামিজের সঙ্গে

কুর্তি বা কামিজের সঙ্গেও কাঠের গয়না মানানসই। এক রঙের জামার সঙ্গে একটু লম্বা ও কালারফুল কাঠের গয়না পরতে পারেন। আজকাল বিভিন্ন ধরনের, দৃশ্যের ডিজাইন করা কাঠের গহনা পাওয়া। এক রঙের কুর্তির সঙ্গে এসব গহনা বেশি মানানসই হবে। প্রিন্টের পোশাকের সঙ্গে এমন রঙের গহনা পছন্দ করবেন, যা জামার রঙ থেকে ভিন্ন। কাঠের কানের দুল পরলে ছোটো বা মাঝারি ধরনের পরবেন। সঙ্গে কাঠের চুরিও পরতে পারেন।

জিনস-টপসের সঙ্গে

তরুণীদের কাছে কাঠের গয়নার জনপ্রিয়তা এত বেড়ে যাওয়ার কারণ যেকোনো পোশাকের সঙ্গে পরতে পারা। হালকা ও রঙিন হওয়ায় টপ-জিনসের সঙ্গেও মানিয়ে যায় এই গয়না। জিনস, শার্ট বা টিশার্টের সঙ্গে একটু বড় সাইজের মালা, হাতে কাঠের চুরি বেশ ভালো মানিয়ে যায়।

কাঠের গয়না প্রস্তুত করাও অনেকটা সহজ ও আনুষঙ্গিক জিনিসপত্রের দামও অনেক কম। তাই অনেকেই কাজ বা পড়াশোনার পাশাপাশি অনলাইনে কাঠের গয়নার ব্যবসা করেন। অনেকে তো আবার নিজের শখ অনুযায়ী নিজেই গয়না তৈরি করে পরেন। একটু যত্নের সঙ্গে ব্যবহার করলে এই গয়না দীর্ঘদিন সংরক্ষণ যায়।

অনন্যা/জেএজে