Skip to content

১১ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিষ্টাব্দ | বৃহস্পতিবার | ২৭শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সুমিতা দেবীর জন্মদিন আজ

বাংলাদেশ টেলিভিশন ও চলচ্চিত্রের এক সময়ের জনপ্রিয় অভিনেত্রী সুমিতা দেবীর জন্মদিন আজ । সময়ের পরিক্রমায় একের পর অভিনেত্রিরা পর্দা কাপালেও সুমিতা দেবীর নাম যেন আজও মনে রাখার মত। তিনি ১৯৩৬ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি মানিকগঞ্জে জন্মগ্রহণ করেন।

পঞ্চাশের দশকের শেষের দিকে ‘আসিয়া’ ছবির মাধ্যমে চলচ্চিত্র জীবনে পা রাখেন তিনি। তাঁর অভিনীত আসিয়া চলচ্চিত্রটি ১৯৬১ সালে শ্রেষ্ঠ বাংলা চলচ্চিত্রের পুরস্কার লাভ করেন। গুণী এই অভিনয় শিল্পী টেলিভিশন ও চলচ্চিত্রে অভিনয়ের পাশাপাশি কাজ করেছেন বেতার ও মঞ্চ নাটকেও। তিনি প্রধান অভিনেত্রী হিসেবে পঞ্চাশটিরও বেশি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন।

পার্শ্ব-চরিত্র হিসেবে অভিনয় করেছেন শতাধিক চলচ্চিত্রে। তাঁর অভিনীত উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্রগুলো হলো-কখনো আসেনি (১৯৬১), সোনার কাজল (১৯৬২),কাঁচের দেয়াল (১৯৬৩),এই তো জীবন (১৯৬৪),দুই দিগন্ত (১৯৬৪), আগুন নিয়ে খেলা (১৯৬৭), অভিশাপ (১৯৬৭), এ দেশ তোমার আমার, বেহুলা, ওরা ১১ জন ও আমার জন্মভূমি। এছাড়াও তিনি আগুন নিয়ে খেলা, মোমের আলো, মায়ার সংসার, আদর্শ ছাপাখানা ও নতুন প্রভাত নামে পাঁচটি চলচ্চিত্র প্রযোজনা করেন।

ব্রাহ্মণ পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেছিলেন সুমিতা দেবী। তখন তার নাম ছিল হেনা ভট্টাচার্য্য। অমূল্য লাহিড়ী নামীয় এক ব্যক্তির সাথে তার বিয়ে হলেও পরবর্তীকালে তাদের মধ্যে বিবাহ-বিচ্ছেদ ঘটে। পরবর্তীতে চলচ্চিত্র জগতে প্রবেশের পর বাংলাদেশের চলচ্চিত্র জগতের অন্যতম পথিকৃৎ ও প্রখ্যাত বুদ্ধিজীবী জহির রায়হানের সাথে পরিচিত হন।

সুমিতা দেবী পরবর্তীকালে ধর্মান্তরিত হন ও তার নতুন নামকরণ হয় নিলুফার বেগম। অতঃপর তিনি জহির রায়হানের সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন ১৯৬১ সালে। তাদের সংসারে দু’টো পুত্র সন্তান রয়েছে। অনল রায়হান তাদেরই একজন।[১] বিশিষ্ট চলচ্চিত্রকার ফতেহ লোহানী কর্তৃক আসিয়া ছবিতে নাম পাল্টিয়ে সুমিতা দেবী রাখা হয়েছিল। বিয়ের পরও চলচ্চিত্র শিল্পে পূর্বের সুমিতা দেবী নাম নিয়েই পরিচিত ছিলেন।

সুমিতা দেবী ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের একজন সক্রিয় শিল্পী ছিলেন। মেধাবী এই অভিনয় শিল্পী তাঁর কাজের স্বিকৃতিস্বরুপ পেয়েছেন নানা পুরস্কার। ১৯৬২ সালে পান অল পাকিস্তান ক্রিটিক অ্যাওয়ার্ড এবং ১৯৬৩ সালে নিগার প্রাইজ সম্মানে ভূষিত হন তিনি।স্বাধীনতার পর লাভ করেন বাচসাস পুরস্কার ও টেলিভিশন রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ পুরস্কার। এছাড়াও সুমিতা দেবী ২০০২ সালে লাভ করেন আগরতলা মুক্তিযোদ্ধা পুরস্কার এবং জনকণ্ঠ গুণিজন ও প্রতিভা সম্মাননা পুরস্কার।

ডাউনলোড করুন অনন্যা অ্যাপ