Skip to content

১লা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিষ্টাব্দ | বৃহস্পতিবার | ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আজ হেমা মালিনীর জন্মদিন

ভারতীয় শোলে সিনেমার বাসন্তী কে চেনেন না এমন মানুষ পাওয়া যায় না। এই বাসন্তী চরিত্রে অভিনয় করা অভিনেত্রী হলেন হেমা মালিনী। হেমা মালিনী একাধারে অভিনেত্রী, প্রযোজক ও পরিচালক।

১৯৪৮ সালের ১৬ অক্টোবর হেমা মালিনী জন্মগ্রহণ করেন। ষাটের দশকের এই অভিনেত্রী ছিলেন জাতিগতভাবে তামিল। তার মায়ের নাম ছিলো জয়ালক্ষ্মী চক্রবর্তী এবং পিতার নাম ছিলো ভিএসআর চক্রবর্তী। তার ইতিহাস নিয়ে পড়ার আগ্রহ ছিলো, তিনি চেন্নাই (তৎকালীন মাদ্রাজ) শহরের মহিলা সভায় যোগ দিয়েছিলেন কারণ তিনি নারীবাদও পছন্দ করতেন। একাদশ শ্রেণিতে পড়াকালীন হেমা অভিনয় জগতে প্রবেশের চিন্তা করেছিলেন।

১৯৮০ সালে অভিনেতা ধর্মেন্দ্রর সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন, এবং তার সঙ্গে হেমা প্রথম তুম হাসিন ম্যাঁ জাওয়ান (১৯৭০) চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। ধর্মেন্দ্র আগে থেকেই বিবাহিত ছিলেন এবং তার দুই ছেলে সানি দেওল এবং ববি দেওল পরে সফল হিন্দি চলচ্চিত্র অভিনেতা হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছিলেন; অপরদিকে হেমার গর্ভেও ধর্মেন্দ্রর এশা দেওল এবং অহনা দেওল নামের দুটি মেয়ে হয়েছিলো, এশাও পরে অভিনেত্রী হন।

ষাটের দশক থেকে বর্তমান সমানভাবে পরিচিত এই নায়িকা তার কর্মজীবন তামিল ভাষার চলচ্চিত্র দ্বারা শুরু করেছিলেন, তার অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্র ছিলো ইদু সাথিয়া যেটি ১৯৬২ সালে মুক্তি পেয়েছিলো। ১৯৬৮ সালে হিন্দি চলচ্চিত্র শিল্পের মহানায়ক রাজ কাপুর এর সঙ্গে হেমা অভিনীত চলচ্চিত্র স্বপ্ন কা সৌদাগর মুক্তি পায়। এরপরই হেমা মালিনী হিন্দি চলচ্চিত্র শিল্পে তিনি ‘ড্রিম গার্ল’ বা ‘স্বপ্নের তরুণী’ নামে পরিচিতি এই চলচ্চিত্রের মাধ্যমে প্রাথমিকভাবে পেয়েছিলেন।

হেমা মালিনী অভিনীত উল্লেখযোগ্য সিনেমাগুলো হলো সীতা অর গীতা, শোলে, ড্রিম গার্ল, হ্যায় রাম, বাগবান, ফারিস্তে, গঙ্গা প্রভৃতি।

তিনি সর্বমোট ১১ বার ফিল্মফেয়ার পুরষ্কারে সেরা অভিনেত্রী হিসেবে মনোনয়ন পান। ২০০০ সালে তিনি পদ্মশ্রী সম্মাননা লাভ করেন। আজ অভিনেত্রীর জন্মদিনে তার প্রতি রইলো বিনম্র শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা।

ডাউনলোড করুন অনন্যা অ্যাপ