Skip to content

২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিষ্টাব্দ | রবিবার | ১০ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নারীর কোনো ‘হলিডে’ নেই!

ক্যালেন্ডার বলছে আজ শুক্রবার।  হিসাব মতো, আজ ছুটির দিন। পরিবারের সবাই দুপুর ১২ টা পর্যন্ত নাক ডেকে ঘুমোচ্ছেন।  কিন্তু রোজকার মতো আজও একই সময়ে ঘুম ভাঙে লাকি বেগমের।  ঘুম থেকে উঠেই চলে যান রান্না ঘরের দিকে। বাইরের কুয়াশাচ্ছান্ন সকালের দিকে তাকিয়ে হঠাৎ নিজের মনে প্রশ্ন জাগে, তাঁর কেনো ছুটির দিন নেই?

 

লাকি বেগমের মতো একই প্রশ্ন নিজেকে প্রায় রোজই করেন শারমিন আক্তার।  

পেশায় তিনি একজন শিক্ষিকা। এই তো কিছু দিন আগে মহামারীর কারণে সারা বছরের কর্মব্যস্ততা থেকে পেয়েছেন বিশাল ছুটি। কিন্তু ছুটি হয়েও পুরোপুরি ছুটি মেলেনি তাঁর। বরং যুক্ত হয়েছে আরো হাজারো দায়িত্ব। 

 

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যাওয়ার উদ্দেশ্যে না হলেও ফোনের অ্যালার্মটা একই সময়ে সেট করা ছিল তাঁর। স্বাভাবিক সময়ে কর্মজীবী নারীদের চলতে হয় ঘরে-বাইরে সমান তালে, তাল মিলিয়ে। প্রতিদিন ঘুম ভাঙে নতুন এক চ্যালেঞ্জ নিয়ে। ছুটির দিনেও ব্যতিক্রম কিছু ঘটেনা তাদের সাথে। 

দীর্ঘ ছুটির দিনগুলো নিয়ে কথা বলেন শারমিন আক্তার। তিনি বলেন,  বাইরে তিনি যেমন শিক্ষিকা, ঘরে তেমনি কারো মা, কারো স্ত্রী,  কারো বোন  বা কারো মেয়ে। এত দীর্ঘ সময় ধরে কাছে পেয়ে সবাই  ভিন্ন ভিন্ন আবদার করত।  আর তা মেটাতেই সকাল থেকে সন্ধ্যা পার হয়ে যেত। 

এই ঘটনা কেবল দীর্ঘ ছুটিকালীন, এই সময়ের নয়। ছুটির দিনগুলোতে সাধারণত পুরুষরা আরাম-আয়েশ করে কাটালেও কর্মজীবী নারীদের  কখনো মেটাতে হচ্ছে পরিবারের সদস্যদের নতুন নতুন খাবারের আবদার, কখনো বাচ্চার গল্প শোনার আবদার,  কখনো বাচ্চাদের এলোমেলো করা ঘর গোছানো,  আবার বাচ্চাকে পড়তে বসানোর  ঝামেলাও নেহাত কম নয়। 

 

মা হয়ে যেমন সামলাচ্ছেন ছেলে-মেয়ের আবদার, আবার  মেয়ে হয়ে সামলাচ্ছেন মা-বাবার আবদার আবার কখনো স্ত্রী হিসেবে স্বামীর, বৌমা হিসেবে শ্বশুর-শাশুড়ির আবদার।

সারা দিন কর্মস্থলে সময় কাটানোয় কারণে পরিবারের সদস্যদের  সেভাবে সময় দিতে পারে না অনেকে। তাই অবসর সময়ে সবার প্রতি দায়িত্বটাও কয়েক গুণ বেড়ে যায়। এভাবে কোনো-না-কোনো ব্যস্ততায় কাটে কর্মজীবী নারীদের ছুটির দিনগুলো। 

 

গৃহিণীদের ছুটির দিন বলতে কোনো নামও তো নেই। কাউকে যদি বলা হয়, আপনার স্ত্রীর ছুটির দিন কবে? সে অনায়াসে হেসে বলবে, সারা দিন ঘরে বসে থাকার পর আবার ছুটির দিন দরকার! এ সমস্যা আমাদের পুরুষতান্ত্রিক সমাজের। নারীর ঘরের কাজগুলোকে সমাজ ঠিক কাজ মনে করতে রাজি নয়। 

নারীদের জীবন থেকে অনেকটাই প্রমাণিত হয়ে যায়, নারীদের ডিকশনারিতে  ছুটি শব্দটা খুব একটা খাপ খায় না। প্রতিদিন প্রতিনিয়ত তারা মোকাবেলা করে নতুন নতুন চ্যালেঞ্জ। পরিবারে, কর্মক্ষেত্রে সব বাধা জয় করে বারবার এ-সব নারী প্রমাণ করে 'আমিই নারী আমিই পারি'।