Skip to content

২রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিষ্টাব্দ | শুক্রবার | ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রূপচর্চায় শাকসবজির অবদান

শীত এলেই মাথায় এক গাদা চিন্তা যুক্ত হয় রূপচর্চা নিয়ে। রূপচর্চা করতে অনেকে তো নানান ব্রান্ডের নানা জিনিসের উপর হাজার হাজার টাকা খরচ করতেও পিছপা হন না। কিন্তু রূপচর্চার পেছনে বিশাল অঙ্কের অর্থ খরচ না করে চাইলে আপনি হাতের কাছে থাকা শাকসবজিও ব্যবহার করতে পারেন। 

শীতের সময় আমাদের দেশে বিভিন্ন ধরণের শাকসবজি বাজারে অহরহ পেয়ে যাবেন। শীতের এ সময়ে হাতের কাছে যেসব শাকসবজি পাওয়া যায় এগুলোর মধ্যে বেশ কিছু শাকসবজি আপনি রূপচর্চার জন্য ব্যবহার করতে পারেন। তেমন কয়েকটি শাকসবজি নিয়ে তবে কথা বলা যাক- 

১. লেটুস পাতা: শরীরের জন্য লেটুস পাতা খাওয়া অনেক বেশি উপকারী। খাদ্যতালিকায় যেমন লেটুস পাতা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে রূপচর্চায় ঠিক একইভাবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। নারীর রূপচর্চায়ও লেটুস পাতা ব্যবহার হয়ে থাকে। এক কাপ পরিমাণ পরিষ্কার পানিতে কয়েকটি লেটুস পাতা ফুটিয়ে ঠাণ্ডা করে পানি ছেঁকে নিয়ে তার সাথে আধা চা চামচ গোলাপ পানি মিশিয়ে নিতে হবে। এবারে এ পানি সমস্ত মুখে, গলায় আর হাতে পায়ে লাগিয়ে আধা ঘণ্টা বসে থাকতে হবে। তারপর অল্প গরম পানিতে হাত, মুখ, গলা ও পা ধুয়ে ফেলতে হবে। এবারে ঠাণ্ডা পানিতে পুনরায় সমস্ত স্থান ধুয়ে নিলে ত্বক হয়ে উঠবে কোমল ও মসৃণ।

 

 

 

২. টমেটো: শাকসবজির মধ্যে টমেটোর জনপ্রিয়তা বরাবরই জনপ্রিয়তার তুঙ্গে। কখনো তরকারিতে সহায়ক হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে, কখনো সালাদ হিসেবে। স্বাস্থ্য রক্ষায় ও রূপচর্চায়ও কিন্তু টমেটোর ভূমিকা কম নয়। ত্বক শুষ্ক অথবা কালচে হয়ে গেলে, সেখানে টমেটোর রস মাখলে উপকার পাওয়া যায়। এজন্য টমেটো কেটে নিয়ে শুষ্ক এবং কালচে হয়ে যাওয়া স্থানে অর্থাৎ মুখ, হাত পায়ে ১৫-২০ মিনিট ভাল করে ঘষে নিতে হবে এবং প্রায় ১৫-২০ মিনিট অপেক্ষা করে প্রথমে হাল্কা গরম এবং পরে ঠান্ডা পানিতে ধুয়ে ফেলতে হবে।

 

৩. গাজর : সুস্বাদু ও পুষ্টিকর সবজির মধ্যে গাজর অন্যতম। গাজর বিভিন্ন উপায়ে খাওয়া হয়ে থাকে। নারীর রূপচর্চায় গাজরের রস একটি বিশেষ উপকরণ। মুখের লাবণ্য বৃদ্ধির জন্য একটি গাজর পানিতে ধুয়ে পরিচ্ছন্নতার সাথে পাটায় মিহি করে বেটে এর মধ্যে দু চা-চামচ দুধ এবং এক চা চামচ বেসন মিশিয়ে এই পেস্ট সারামুখে মেখে নিতে হবে। প্রায় ১০-১৫ মিনিটকাল অপেক্ষা করে প্রথমে হাল্কা গরম পানিতে ও পরে ঠাণ্ডা পানিতে মুখ ধুয়ে ফেলতে হবে। এভাবে নিয়মিত গাজরের পেস্ট মুখে মাখলে উপকার পাওয়া যায়।

 

৪. বাঁধাকপি: শীতের সময় সবজি হিসেবে বাঁধাকপির জুরি মেলা ভার। কিন্তু বাঁধাকপিই যে আবার রূপচর্চায় ব্যবহার হতে পারে তা হয়তোবা অনেকে জানেনই না। মুখ কোমল ও মসৃণ রাখতে বাঁধাকপির পেস্ট ব্যবহার করা যায়। এজন্য বাঁধাকপি বেটে রস বের করে পরিমাণমত রস নিয়ে তাতে আধা চা-চামচ ইস্ট, এক চা- চামচ মধু মিশিয়ে গণ পেস্ট বানিয়ে সারা মুখে মেখে ১৫-২০ মিনিটে অপেক্ষা করে প্রথমে হাল্কা গরম ও পরে ঠাণ্ডা পানিতে মুখ ধুয়ে ফেলতে হবে। নিয়মিত এই পেস্ট ব্যবহার ত্বকের লাবণ্য বজায় থাকবে।

 

 

 

ডাউনলোড করুন অনন্যা অ্যাপ