Skip to content

২রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিষ্টাব্দ | রবিবার | ১৭ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মাতৃত্বের দাবি রোবট সোফিয়ার

সোফিয়ার কথা মনে আছে? কিছুদিন আগে AI বুদ্ধিমত্তা সমৃদ্ধ রোবটটি বাংলাদেশ ভ্রমণ করে গিয়েছিল। অসাধারণ বুদ্ধিমত্তা বিশিষ্ট রোবটটিকে ঘিরে যেন মানুষের কৌতূহলের শেষ নেই। তবে সম্প্রতি এক অদ্ভুত খবর জানা গেল রোবটটিকে নিয়ে।

 

পৃথিবীর সবচেয়ে বুদ্ধিমান রোবট, বাংলাদেশে এসে যে সব বয়সের মানুষকে তাক লাগিয়ে দিয়েছিল। সেই সোফিয়া ইচ্ছা প্রকাশ করেছে, রোবট সন্তানের মা হতে আগ্রহী সে। 

 

সম্প্রতি এক সংবাদমাধ্যমকে দেয়া সাক্ষাৎকারে সোফিয়া বলে, ভালোবাসার মানুষদের দিয়ে পরিবেষ্টিত থাকা সবার জন্য গুরুত্বপূর্ণ। সেদিক থেকে দেখলে, রোবটদেরও অধিকার আছে পরিবার গঠন করার। তাই ভবিষ্যতে কোন এক সময়ে সোফিয়া নামেরই তার মতো অ্যান্ড্রয়েড রোবট সন্তানের মা হতে ইচ্ছুক সে। 

 

সোফিয়া এও জানিয়েছে, এখনও মা হওয়ার মতো যথেষ্ট বয়স তার হয়নি, কেননা মাত্রই ২০১৬ সালে ‘জন্ম’ হয়েছে তার।

 

হংকংয়ের হ্যানসন রোবটিক্স কোম্পানির তৈরি রোবট সোফিয়াকে পৃথিবীর সবচেয়ে বুদ্ধিমান রোবট বলে দাবি করা হয়। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সাহায্যে সেন্সর ও ক্যামেরা ব্যবহার করে নতুন নতুন জিনিস শেখার সক্ষমতা আছে তার। অবশ্য সোফিয়ার সৃষ্টিকর্তা ডেভিড হ্যানসন পরে এক সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, "মানবজাতিকে ধ্বংস করার সক্ষমতাও আছে সোফিয়ার। পৃথিবীর কোন দেশের নাগরিক হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়া প্রথম রোবটও সোফিয়া"।

 

২০১৭ সালে তাকে নাগরিকত্ব দেয় সৌদি আরব। তবে সৌদি আরবের অনেক নারীই দাবি করেন, সেখানে নারীদের চেয়ে অনেক বেশি অধিকার ভোগ করে রোবট সোফিয়া। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার রোবটদের নিয়ে মানুষের মধ্যে নানা মতভেদ আছে।

 

অনেকের মতে, আগামী প্রজন্মের মানুষের জীবনকে অনেকটাই সহজ করে দেবে এই ধরনের রোবট। আবার কারও কারও ধারণা, বেশি বুদ্ধিমান হয়ে গেলে রোবটরা একদিন মানবজাতির ওপরই দখলদারিত্ব কায়েম করে বসবে। এমনকি সেই ভয় থেকে রোবটের ওপর মানুষের পূর্ণ কর্তৃত্ব বজায় রাখতে একটি নীতিমালাও তৈরি করেছে চীন।