Skip to content

২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিষ্টাব্দ | রবিবার | ১০ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চুল পড়ার সমস্যা দূর হবে পেয়ারা পাতায়

পেয়ারা পুষ্টিগুণ সম্পূর্ণ একটি ফল। পেয়ারা পাতার গুণাগুণও কিন্তু কোন দিক দিয়ে কম নয়। পেয়ারার পাশাপাশি পেয়ারা পাতারও সমান কদর রয়েছে। পেয়ারা পাতা যে চুল পড়া কমাতে সাহায্য করে তা কি জানেন? 

 

পেয়ারা পাতার পুষ্টিমান আপনার চুলকে রুক্ষতার হাত থেকে রক্ষা করে। ফলে চুল পড়ে যাওয়ার প্রবনতা কমে গিয়ে চুলের ঘনত্ব বাড়িয়ে দেয়। সেই সাথে চুলকে করে তুলে ঘন, কালো এবং মসৃণ । প্রায় সকল ছেলে মেয়েরই চুল পড়ার সমস্যা রয়েছে। ফলে চুল অল্পতেই কমে গিয়ে চুলের ঘনত্ব কম করে ফেলে। তাই  এর সমাধান দিবে এবার পেয়ারা পাতা।

 

এক্ষেত্রে পেয়ারা পাতা যেভাবে ব্যবহার করতে হবে  : 

 

১০-১২ টা পেয়ারা পাতা নিয়ে ভালো করে পানি দিয়ে ধুয়ে পরিষ্কার করে নিন। এবার একটি পাত্রে ১ লিটার পরিমাণ পানি নিয়ে এতে পেয়ারা পাতা গুলো দিয়ে দিন। জ্বাল বাড়িয়ে দিয়ে ভালো ভাবে ২০ মিনিট ফুটিয়ে নিন। এতে করে পেয়ারা পাতার মধ্যে যে নির্জাস আছে সেটি পুরোপুরি বের হয়ে যাবে। যা আপনি পানির কালার দেখেলই বুঝতে পারবেন। পানি ভালো ভাবে ফুটে উঠলে নামিয়ে ঠাণ্ডা করে বোতলে  সংরক্ষণ করুন। 

 

যেভাবে ব্যবহার করবেন :

 

চুলে ব্যবহার করার আগে নিশ্চিত করতে হবে ,আপনার চুলে যেনো তেল বা অন্য কিছু ব্যবহার করা না থাকে। শুধু পেয়ারা পাতার এই নির্জাস ই ব্যবহার করতে হবে । এক্ষেত্রে যে ভাবে মাথায় তেল মালিশ করা হয় ঠিক সেই ভাবে সুন্দর করে পুরো মাথায় ২ ঘন্টার জন্য দিয়ে রাখবেন এই নির্জাস । সকালে উঠে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ভালো কোনো শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে নিবেন। অথবা আপনি চাইলে দিনেও ব্যবহার করতে পারেন এই নির্জাস । সেক্ষেত্রেও এই নির্জাস ২ ঘণ্টা চুলে রাখতে হবে । পড়ে শ্যাম্পু করে ফেলতে হবে গোসলের সময়। সপ্তাহে ২দিন এই নির্জাস ব্যবহার আপনাকে দিবে উজ্জ্বল চুল।

 

ফলাফল :

 

পেয়ারা পাতা থেকে যে নির্জাস হয়েছে সেটি মূলত ব্যবহার করতে হবে চুলে। এটি ন্যাচারালভাবে আপনার চুলকে করবে আকর্ষণীয় , ঘন, কালো এবং সেই সাথে মজবুতও। এছাড়া চুলের ত্বকে যদি জ্বালা-পোড়া বা খুশকির সমস্যা থাকে , সেটিও দূর হবে এই নির্জাস ব্যবহারে ।