Skip to content

৫ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিষ্টাব্দ | শুক্রবার | ২১শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

লেবুর রসের উপকারিতা

লেবু একটি বহুমুখী উপকারী ফল। এর গুনাগুণ বলে শেষ করার মতো না। শাহী ভোজে খাবারের স্বাদ বাড়াতে, রূপচর্চার ক্ষেত্রে, কিংবা স্বাস্থ্য ভাল রাখতে লেবু এক উপকারী নাম।

 

১. লেবুর রসে প্রায় ৫% সাইট্রিক এসিড থাকে। সাইট্রিক এসিড খাদ্যের স্বাদ বৃদ্ধি করে। তাই রান্নার উপাদান হিসেবে অনেকে লেবু ব্যবহার করে।

 

২. লেবু শরীরের চর্বি কাটাতে সাহায্য করে। লেবু মেটাবোলিজম বাড়ায় যার কারণে শরীরে মেদ কমে।

 

৩. প্রচুর ঘামের ফলে শরীর থেকে প্রচুর ইলেক্ট্রোলাইট বের হয়ে যায়। লেবুতে প্রচুর পরিমাণে ইলেক্ট্রোলাইট তথা ম্যাগনেসিয়াম, ক্যালসিয়াম, পটাসিয়াম ইত্যাদি থাকে। তাই লেবু-পানির মিশ্রণ শরীরের ইলেক্ট্রোলাইটের অভাব পূরণ করে। শরীরকে সতেজ করে।

 

৪. লেবুর রস পরিপাক নালীতে প্রবেশ করে শরীরে শক্তি বৃদ্ধি করে। লেবুতে বিদ্যমান সাইট্রিক অ্যাসিড কোলন, পিওথলি ও লিভার খেকে বর্জ্য পদার্থ বের করতে সাহায্য করে।

 

৫. লেবুর রস ভাইরাস জনিত সংক্রমণের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে।

 

৬. লেবুর রস হজমে ব্যাপকভাবে সাহায্য করে, এছাড়া নালী থেকে বর্জ্য পদার্থ বের করে দেয়।এবং কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে।

 

৭. ত্বক পরিষ্কার করে, লেবুতে উপস্থিত ভিটামিন সি ত্বকের কোষের ক্ষয় প্রতিরোধে কার্যকরী ভূমিকা পালন করে, এর সাথে শরীরে কোলাজেন তৈরি করে। যা মুখের অবাঞ্ছিত দাগ দূর করে ও উজ্জ্বলতা ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করে।

লেবু আমাদের ত্বক ও স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারী। কিন্তু অতিরিক্ত কোন কিছু ভাল না। তেমনি অতিরিক্ত লেবু খেলে আমাদের শরীরে নানা ধরনের ক্ষতি হতে পারে। অতিরিক্ত লেবু খাওয়ার ফলে আপনার এসিডিটির সমস্যা দেখা দিতে পারে। লেবুতে থাকা সাইট্রিক এসিড আপনার দাঁতের এনামেল নষ্ট করে দিতে পারে আবার কখনো কখনো আপনার মাইগ্রেনের সমস্যাও বৃদ্ধি করে দিতে পারে। তাই লেবু খাওয়ার আগে আপনার স্বাস্থ্যকর পরিমাণটি জানতে হবে। সাধারণত দিনে ১০০-১২০ মিলিগ্রাম লেবু খাওয়া স্বাস্থ্যকর।
 

 

 

ডাউনলোড করুন অনন্যা অ্যাপ