Skip to content

২২শে ফেব্রুয়ারী, ২০২৪ খ্রিষ্টাব্দ | বৃহস্পতিবার | ৯ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

আম খেতেও মানুন বিধিনিষেধ 

আম অত্যন্ত সুস্বাদু ও রসালো একটি ফল। আর সময় এখন আমের। বাজারে কিংবা বাড়ীতে নানা জাতের সুমিষ্ট আম। আর আম পছন্দ করেন না এমন মানুষও হাতে গোনা কয়েকজন হবেন হয়তো। মৌসুম এলে সকলেই একটু আয়োজন করে আম খেতে চান। কিন্তু আবার চিন্তাও থেকে যায়। যারা বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত বা যারা ওজন নিয়ন্ত্রণে ডায়েট করেন তারা ঠিক কতটা আম খাবেন। 

 

প্রথমত আমে প্রচুর ভিটামিন এ ও সি আছে। আম আঁশ জাতীয় ফল হওয়ায় পরিপাকে দারুণ কাজ করে। এছাড়াও আমে রয়েছে শর্করা ৩৩.৮ গ্রাম, ক্যালসিয়াম ২৮ মিলিগ্রাম, লৌহ ২.৬ মিলিগ্রাম, ভিটামিন এ ৫০০০ মাইক্রোগ্রামের ওপর। আঁশ ৭ গ্রামের বেশি। পটাশিয়াম ১৯৬ মিলিগ্রাম, ম্যাগনেসিয়াম ৩০২ মিলিগ্রাম, লাইকোপেন ২২.৩ মিলিগ্রাম। একটা আমে ক্যালরির পরিমাণ মোটামুটি ১৫০ হয়ে থাকে। 

 

তাই যারা ওজন নিয়ন্ত্রণে ডায়েট করেন তারা আম খেলেও আমের সমপরিমাণ শর্করা জাতীয় অন্য খাবার বাদ দিতে হবে। যারা ডায়াবেটিস রোগী তারা দিনে ৩০-৪০ গ্রাম আম খেতে পারেন। এর বেশি হলে রক্তে শর্করার পরিমাণ বেড়ে যেতে পারে।  

 

কিডনিজনিত সমস্যায় যারা ভুগছেন তাদের ফলমূল খাওয়ায় চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে খাওয়াই ভালো। কারণ কিডনির রোগীদের রক্তে পটাশিয়াম বেশি থাকে। তাই পটাশিয়ামযুক্ত ফল খেলে রোগী সমস্যা বাড়তে পারে।

 

 

 

ডাউনলোড করুন অনন্যা অ্যাপ