Skip to content

২২শে মে, ২০২৪ খ্রিষ্টাব্দ | বুধবার | ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

করোনায় দেহব্যবসায় ঝুঁকছেন শিক্ষার্থীরা

মহামারি করোনাভাইরাসে গত বছর থেকে বিশ্বের সবকিছু থমকে গেছে। এর ছাপ পড়েছে মানুষের জীবনযাত্রায়। বিশ্বের ক্ষমতাধর দেশগুলোর অর্থনীতিতে ধস নেমেছে। বহু মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়েছেন। খেয়ে না খেয়ে দিনাতিপাত করছেন বিশ্বের হাজারো মানুষ।  

 

বৈশ্বিক মহামারির প্রভাব বিশ্বের উন্নত রাষ্ট্রগুলোতেও। ইউরোপ-আমেরিকার দেশগুলোর বড় বড় শহরগুলোতেও হোটেল-রেস্তোরাঁ বন্ধ হয়ে গেছে। বহির্বিশ্ব থেকে যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, কানাডাসহ ইউরোপের দেশগুলোতে যাওয়ার শিক্ষার্থী ও তরুণরা এসব রেস্তোরাঁয় কাজ করত। এই উপার্জন দিয়ে পড়ালেখার খরচ আসত, সংসার চলত। কিন্তু পাব ও দোকানপাটে কর্মরত অসংখ্য এমন শিক্ষার্থী তাদের কাজ হারিয়েছেন। ফলে বাধ্য হয়ে অনেক শিক্ষার্থীকে বেছে নিতে হচ্ছে দেহ ব্যবসায়ের পথ।

 

ব্রিটেনের ট্যাবলয়েড পত্রিকা ডেইলি মেইল এর প্রতিবেদনে উঠে এসেছে,ইউরোপ-আমেরিকার মতো উন্নত দেশগুলোতে থাকা নারী শিক্ষার্থীরা দেহ ব্যবসার দিকে ঝুঁকছেন। মূলত তাদের পড়াশোনার খরচ চালাতেই তারা ওইসব পেশায় যেতে চাইছেন। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বহির্বিশ্ব থেকে যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, কানাডাসহ ইউরোপের বড় দেশগুলোতে থাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং কলেজপড়ুয়া নারী শিক্ষার্থীরা তাদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ফি পরিশোধসহ নিজেদের খরচ চালাতে দেহ ব্যবসার দিকে ঝুঁকছেন।

 

তারা দেহপসারিণীদের ইউনিয়ন ইংলিশ কালেকটিভ অব প্রস্টিটিউটস (ইসিপি) হেল্পলাইনে যোগাযোগ করে সম্ভ্রম নিয়ে ব্যবসা করার কথা জানাচ্ছেন। এসব শিক্ষার্থীকে সহায়তার আহ্বান জানিয়েছে দেহপসারিণীদের ইউনিয়ন ইংলিশ কালেকটিভ অব প্রস্টিটিউটস (ইসিপি)। দেহপসারিণীদের অধিকার বিষয়ক ওই গ্রুপটি আরও বলেছে, লকডাউন দেওয়ার ফলে অসংখ্য শিক্ষার্থী আর্থিক সংকটে পড়েছেন।

 

ইসিপির মুখপাত্র লরা ওয়াটসনের বরাত দিয়ে ব্রিটেনের ওই পত্রিকাটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইসিপি গ্রুপে যেসব নারী শিক্ষার্থী যুক্ত হয়েছেন তারা ৩০ হাজার পাউন্ড ঋণ পরিশোধ করতে এ পেশায় এসেছেন। এমনকি, অনেক শিক্ষার্থী নিজের নগ্ন ছবি বিভিন্ন সাইটে বিক্রি করছেন। তিনি বলেন, করোনা মহামারি শুরুর পর থেকে অসংখ্য নারী তার চাহিদা মেটাতে যৌনকর্মকে বেছে নিতে শুরু করেছেন। পাব এবং দোকানপাট বন্ধ হয়ে যাওয়ায় এসব যুবতির সামনে কোন বিকল্প খোলা নেই। তাই তারা বেঁচে থাকার জন্য এসব কাজ করছেন।

 

ইসিপি জানিয়েছে, নতুন করে করোনার প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ার পর এমন শিক্ষার্থীর সংখ্যা এরইমধ্যে এক-তৃতীয়াংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। প্রতিদিন এভাবে অর্থ উপার্জন এবং এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে পরামর্শ চেয়ে প্রতিদিন আটজন যুবতি শিক্ষার্থী ওই ইসিপির কাছে ফোন করছেন। এক্ষেত্রে কোন কোন ইউনিভার্সিটি নির্দেশনা প্রকাশ করছে। তাতে বলা হয়েছে, কীভাবে নিরাপদে দেহ বিক্রি করতে হবে। 

 

ইউনিয়ন ইংলিশ কালেকটিভ অব প্রস্টিটিউটস (ইসিপি) ১৯৭৫ সাল থেকে যৌনকর্মীদের প্রতি বৈষম্যের প্রতিবাদে, তাদের অধিকার ও নিরাপত্তা উন্নত করার জন্য কাজ করছে।

 

 

 

ডাউনলোড করুন অনন্যা অ্যাপ