রঙহীন বৈশাখে চারুকলায় প্রতীকী মঙ্গল শোভাযাত্রা

রঙহীন বৈশাখে চারুকলায় প্রতীকী মঙ্গল শোভাযাত্রা
রঙহীন বৈশাখে চারুকলায় প্রতীকী মঙ্গল শোভাযাত্রা
উৎসবহীন এক নতুন বছরের সূচনা করলো উৎসব প্রিয় বাঙালি জাতি।  তবে সীমিত পরিসরে প্রতীকী ভাবে মঙ্গল শোভাযাত্রা কিছুটা হলেও আনন্দ দিয়েছে সকলকে। নতুন বছরে প্রত্যাশা করোনাকে জয় করে আসছে বছর চিরচেনা রূপে ফিরবে বৈশাখের আয়োজন। 

বাঙালির প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখ।  বাংলা নববর্ষকে ঘিরে প্রতিবছরই উৎসুক বাঙালির থাকে হাজার পরিকল্পনা।  ধর্ম - বর্ণ নির্বিশেষে সবাই মেতে উঠে উৎসবে৷ কিন্তু গেল বছর থেকে এ উৎসবের রং অনেকটাই ফিকে হয়ে গেছে।  করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে গতবছরও হয়নি কোন আয়োজন৷ তবে এবছর সীমিত পরিসরে হলেও রঙহীন  এক বৈশাখ উদযাপনের চিত্র দেখা যায় চারুকলায়। ঢাবিতে আয়োজন করা হয় প্রতীকী মঙ্গল শোভাযাত্রার। 

 

রঙহীন, নিস্তব্ধ এক ভোর দিয়ে শুরু হয় বাংলা নববর্ষ -১৪২৮।  যে মঙ্গল শোভাযাত্রা ঘিরে বাঙালির উৎসাহের অন্ত থাকেনা সে শোভাযাত্রা আজ রঙহীন, বর্ণহীন। বৈশাখের সকালে রমনার বটমূলে সেই চিরচেনা উৎসবমুখর পরিবেশ আর নেই। বর্ষবরণের কোনো আয়োজন নেই আশেপাশে কোথাও। তবুও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলায় প্রতীকী ভাবে অনুষ্ঠিত হয় মঙ্গল শোভাযাত্রা। 

 

উৎসবহীন এক নতুন বছরের সূচনা করলো উৎসব প্রিয় বাঙালি জাতি।  তবে সীমিত পরিসরে প্রতীকী ভাবে মঙ্গল শোভাযাত্রা কিছুটা হলেও আনন্দ দিয়েছে সকলকে। নতুন বছরে প্রত্যাশা করোনাকে জয় করে আসছে বছর চিরচেনা রূপে ফিরবে বৈশাখের আয়োজন। 

 

শুধু চারুকলায়ই নয়। উৎসবের আমেজ নেই দেশের কোথাও। দেশব্যাপী কঠোর লকডাউনের প্রথম দিন আজ।  তাই ঘরবন্দী ভাবেই সকলে পালন করছে এবারের বৈশাখ।  তবে একটাই প্রত্যাশা আসছে বছর বিদায় নিবে অদৃশ্য এই শত্রু,  আবারও রমনার বটমূলে বসবে উৎসবমুখর আসর। হবে চিরপরিচিত  সেই মঙ্গল শোভাযাত্রা। আপামর বাঙালি মেতে উঠবে বর্ষবরণ উৎসবে৷