মানব শরীরের জাদুঘর!

মানব শরীরের জাদুঘর!
মানব শরীরের জাদুঘর!
"A journey through the human body" ট্যাগ দিয়ে জাদুঘরটি ২০০৮ সালে যাত্রা শুরু করে। জাদুঘরটির ভিতরে মানব শরীরের আভ্যন্তরীণ আপাদমস্তক নকশা করে দেখানো হয়েছে।এই জাদুঘরটি ভ্রমণে যৎসামান্য খরচ করতে হয়।

মানুষকে বলা হয় সৃষ্টির সেরা জীব। প্রতিটি জীবের শারীরিক গঠন তাদের গঠনের দিক দিয়ে ভিন্নতর। বলা হয় গঠনের দিক থেকে মহান সৃষ্টিকর্তা অসাধারণ নিপুণতায় গঠন করছে মানবজাতিকে। এই অসাধারণ সৃষ্টি দেখার সহজ সমীকরণ তৈরি করে দিয়েছে করপাস মিউজিয়াম।

 

পৃথিবীর প্রথম মানব জীববিজ্ঞান জাদুঘর। এই জাদুঘরে প্রবেশের সময় নিজেকে মনে হবে যেন কোন মানব শরীর প্রবেশ করছেন। যেখানে মানবদেহের ভেতরকার অবস্থা রুম হিসেবে দেখানো হয়েছে। এটি নেদারল্যান্ডের ওগেস্টেগেটে এ অবস্থিত। 

 

"A journey through the human body" ট্যাগ দিয়ে জাদুঘরটি ২০০৮ সালে যাত্রা শুরু করে। জাদুঘরটির ভিতরে মানব শরীরের আভ্যন্তরীণ আপাদমস্তক নকশা করে দেখানো হয়েছে। এই জাদুঘরটি ভ্রমণে যৎসামান্য খরচ করতে হয়।

 

জাদুঘরটির ভিতরে এছাড়াও খাবারের ব্যবস্থা আছে। জাদুঘরের তত্ত্বাবধানে যারা আছেন তারা জানান," বিজ্ঞানপ্রেমী মানুষের কাছে নিছক আনন্দের করপাস জাদুঘর, তাই কোভিড সমকালীন সময়ে আমরা বিষয়টি মাথায় রেখে জাদুঘরটি খোলা রেখেছি"।

 

জাদুঘরটি একটি সু-উচ্চ ভবনের সাথে যুক্ত যেখানে একটি অর্ধেক মানব শরীরের অবয়ব প্রকাশ পায়। জাদুঘরটি ওগেস্টেগেটের মুল সড়কের সাথে হওয়ার কারণে খুব অল্প সময়ের মধ্যে পৌঁছানো সম্ভব।

 

মানবজাতির জানার ইচ্ছা সর্বদাই অধিক। মানুষ তার প্রকাশের ভঙ্গিকে অন্য স্তরে নিয়ে গেছে কিছু আশ্চর্যদায়ক নির্মাণ করে।বাচ্চাদের জানার কৌতূহল বৃদ্ধি করার জন্য করপাস জাদুঘর যেন এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। কে এই বা জানে হয়তো কোন মানবশিশু এখান থেকে মুগ্ধ হয়ে মানব জাতির কল্যাণে নিজের জীবন সপে দেয়!