ঘরে বসে ঈদের সাজ

প্রতীকী ছবি
করোনার কারণে এইবার আমাদের সবার ঈদ কাটবে সাদামাটা ভাবেই। অন্যান্য বছরের মতো কোথাও যাওয়ার নেই। বিভিন্ন কারণে অনেকের নতুন পোশাক কেনার সুযোগও হয়নি। তবুও ঈদ মানেই সবকিছু ভুলে খুশির একটা দিন। তাই খুশির এই দিনে মন খারাপ করে থাকার কোনো মানেই হয়না।

এই ঈদে কোথাও যাওয়া হবেনা ভেবে না সাজলে হয়? অনেকের মতে সাজলে নাকি মন ভালো থাকে। তাইতো খুশির এই দিনটি ঘরে বসেই নিজের জন্য সাজুন। যেহেতু বাহিরে যাওয়া সম্ভব না সুতরাং পরিবারের সবাইকে সময় দিন।

 

পোশাক নির্বাচন

 

ঈদের সাজের ক্ষেত্রে পোশাক নির্বাচন গুরুত্বপূর্ণ। পোশাকের সাথে সাজের মানানসই না হলে পুরো ঈদ লুকটাই মাটি। তাইতো যেহেতু সময়টা গরমকাল,ঈদের জন্য বেছে নিতে হবে হালকা পাতলা সুতি কাপড়ের পোশাক। কাজ করার সুবিধার্থে স্লিভলেস হলেও মন্দ হয় না। পাতলা সুতি পোশাকের সাথে সুতি ওড়নাতেই বেশ আরামে কাটবে সকাল। এছাড়া জিন্স, টপস অথবা আরামদায়ক কুর্তিও বেছে নিতে পারেন পোশাক হিসাবে। এবার অনেকেই অনলাইনে ঈদের কেনাকাটা করছেন তবে এখনো যারা কেনাকাটা করেননি তারা চাইলে আলমারিতে যত্ন করে তুলে রাখা প্রিয় শাড়িটি পরতে পারেন।

 

সিম্পল মেকআপে গর্জিয়াস লুক

 

যদিও করোনার এই সময়টিতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে সীমিত আকারে বেশ কিছু বিউটি সেলুন খোলা থাকলেও নিজের ও পরিবারের সুরক্ষার এবারের ঈদে ত্বকের যত্ন ঘরে বসে নেয়া ভালো। বিভিন্ন বিউটি ইনফুয়েন্সারদের ইউটিউব চ্যানেল ঘুরে নিজের থেকেই নিতে পারেন ‘প্রি ঈদ স্কিন কেয়ার’। এবার গরম আবহাওয়াকে মাথায় রেখে এবারে ঈদের মেকআপ লুক হিসাবে ‘নো মেকআপ লুক’ বেশ ট্রেন্ডি।

 

 

যেহেতু বাসায় কাটবে ঈদের পুরোটা সময় সেই ক্ষেত্রে ত্বকে ফাউন্ডেশন ব্যবহার না করাই ভালো। শুধু ফেস পাউডার দিয়েই বেজ মেকআপ করে নিন। মুখে অতিরিক্ত দাগ থাকলে কনসিলার ব্যবহার করতে পারেন শুধু। কনট্যুরিং এর ক্ষেত্রেও পাউডার কনট্যুরিং কিট বেছে নিন। চোখে পাউডার আইশ্যাডোর ব্রাউন শেড ব্যবহার করতে পারেন। চোখের কোলে হালকা কাজল এবং চোখের উপরে চিকন করে আইলাইনারের রেখা একে দিন। আর মাশকারার কথা ভুলে গেলেও চলবে না।

 

যেহেতু ঈদ প্রচণ্ড গরমের মধ্যে তাই গ্লসি, শিমারিং লিপস্টিক এড়িয়ে ম্যাট বা ক্রিম বেজ লিপকালার ব্যবহার করাই ভালো। হালকা সাজের সাথে লাল,মেরুনসহ যেকোনো গাঢ় রং হলেও মানিয়ে যাবে দারুণভাবে।

 

এছাড়া নুড লিপস্টিক যেকোনো মেকআপ লুকের সাথেই বেশ মানানসই তাই সিম্পলি গর্জিয়াস লুকের জন্য ঠোঁটে ন্যুড লিপস্টিক ব্যবহার করতে পারেন। অথবা পিচ, ন্যুড পিঙ্ক, পিঙ্ক, মভ, টেরাকোটা ইত্যাদি রঙও দারুণ মানিয়ে যাবে সকালের মেকআপের সাথে। তবে যারা কন্টাক্ট লেন্স ব্যবহার করেন তারা রান্নাঘরে কাজের ব্যাপারে একটু সর্তক থাকবো। যেহেতু কোরবানি ঈদে দিনের অর্ধেকটা সময় কাটে রান্নাঘরে, তাই কন্টাক্ট লেন্স ব্যবহার না করাই ভালো।  

 

সবশেষে হেয়ার স্টাইল আপনার ঈদ লুককে পারফেক্ট করতে বিরাট ভূমিকা রাখে। ঈদের সকালে আয়রন কিংবা ব্লোড্রাই করে চুল ছাড়া রাখা যেতে পারে। তবে যেহেতু বাহিরে প্রচণ্ড গরম সাথে কোরবানি জন্য রান্নাবান্না বা চুলার কাছে বেশ অনেকটা সময় কাটাতে হবে সেই ক্ষেত্রে দুপুরে চুল ঝুঁটি বা উঁচু করে ডোনাট বান করে রাখলে গরম কম লাগবে,সময়ের সঙ্গে মানানসইও হবে। এছাড়া  টুইস্ট, সাইড বান, ফ্রেঞ্চ বেণি করে বাঁধলে ভালো দেখাবে এবং সাজ ও প্রয়োজন বুঝে চুল সাজাতে ক্লিপ,কাঁটা বা যেকোনো অনুষঙ্গ ব্যবহার করা যেতে পারে। চাইলে খোঁপায় এক দুইটা ফুলও গুঁজে নিতে পারেন। এতে করে স্নিগ্ধতা মিলবে আপনার ঈদ সাজে।   

 

রান্নার পর্ব শেষে বিকেলে পোশাক বদলে একটু মেকআপ টাচআপ করে নিন। চুলটা কার্ল করে নতুন পোশাক পরলে দেখবেন লুক এমনিতেই বদলে যাবে। সন্ধ্যার পর সাজে শাইনি লুক চাইলে শিমার পাউডার বুলিয়ে নিন টি জোনে। ব্যাস হয়ে গেল আপনার সিম্পল ঈদ লুক।