যত্নেই মিলবে ব্রণ থেকে মুক্তি

যত্নেই মিলবে ব্রণ থেকে মুক্তি
সংগৃহীত
সারাদিনে পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি পান করতে হবে, যাতে শরীরে পানির অভাব তৈরি না হয়। প্রতিদিন কমপক্ষে আট গ্লাস পানি খেতে হবে। সকাল শুরুই করতে হবে পানি পানের মধ্য দিয়ে।

ব্রণ ত্বকের একপ্রকার অসুস্থতা। ব্রণ হওয়ার অনেকগুলো কারণ থাকে। এর মধ্যে প্রধান কয়কটি কারণ হলো হরমোন ক্ষরণের তারতম্য বা অভাব, জীবাণুর সংক্রমণ, ত্বকের অযত্ন, অতিরিক্ত দুশ্চিন্তা, তৈলাক্ত ও অস্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া, ঘুম না হওয়া, অতিরিক্ত ঘাম হওয়া ইত্যাদি। তবে সঠিক পরিচর্যায় ব্রণ মুক্ত থাকা সম্ভব। পরিষ্কার–পরিচ্ছন্ন ও সুনিয়ন্ত্রিত জীবনযাপন ব্রণ থেকে মুক্ত থাকার প্রধান শর্ত।

 

কিছু নয়ম মেনে চললে ব্রণ খুব সহজেই দূর হয়। এর খুব সহজ প্রতিকার হলো স্বাস্থ্যকর জীবন যাপন করা। নিয়মিত স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া, নির্দিষ্ট সময় ঘুমানো, পরিষ্কার–পরিচ্ছন্ন থাকাই ব্রণের মূল প্রতিকারব্যবস্থা। আর খুব বেশি সমস্যা হলে নিজে কিছু না করে চিকিৎসকের, বিশেষ করে ত্বক বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে হবে।

 

• বাড়ির বাইরে গেলে যখনই সুযোগ পাবেন, তখনই পানি দিয়ে ত্বকের উপরিভাগ ধুয়ে নিতে হবে। এতে ত্বক যেমন পরিষ্কার ও তরতাজা থাকবে, তেমনি কমবে জীবাণুর সংক্রমণ এবং ব্রণ হওয়ার প্রবণতা। যাদের ত্বক তৈলাক্ত, তাদের বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে মেনে চলতে হবে। কারণ, তৈলাক্ত ত্বকে ময়লা জমে খুব দ্রুত।

 

সারাদিনে পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি পান করতে হবে, যাতে শরীরে পানির অভাব তৈরি না হয়। প্রতিদিন কমপক্ষে আট গ্লাস পানি খেতে হবে। সকাল শুরুই করতে হবে পানি পানের মধ্য দিয়ে।

 

• স্বাভাবিক ভাবে নিয়মিত ৬-৮ ঘণ্টা ঘুমানো প্রয়োজন । কারও কারও এর বেশি সময়ও ঘুমের প্রয়োজন হতে পারে। ঘুমের এ সময় নির্ধারিত হবে বয়স ও শারীরিক কর্মকাণ্ডের ওপর ভিত্তি করে। তবে সাধারণত ৬ ঘণ্টার কম এবং ৮ ঘণ্টার বেশি না ঘুমানোই ভালো। নিয়ম করে নির্দিষ্ট সময় ঘুমাতে যেতে হবে এবং একই সময় ঘুম থেকে ওঠার অভ্যাস করতে হবে। এতে প্রয়োজনীয় হরমোন নিঃসরণ ও তৈরি হয়ে শরীরের কাজগুলো ঠিকমতো ঘটতে থাকবে এবং ব্রণ হবে না।

 

• ফার্স্ট ফুড, ডিপফ্রাই করা খাবার, কোমল পানীয় বাদ দিয়ে স্বাস্থ্যকর খাবার খেতে হবে নিয়মিত। ফলমূল ও আঁশজাতীয় খাবার রাখতে হবে খাদ্যতালিকায়।