নারায়ণগঞ্জে সুইপার কলোনির প্রথম গ্র্যাজুয়েট- সনু রানী

নারায়ণগঞ্জে সুইপার কলোনির
‘ওরা জানতেই পারছে না, ওদের জন্য পৃথিবীতে কত বিস্ময় অপেক্ষা করছে। অথচ বাংলা ভাষাটাই ওদের কাছে ভয়ের বিষয়। পড়াশোনায় আনন্দ পায় না। আমরা এই শিশুদের বিস্ময়ের সন্ধান দিতে চাই। প্রাথমিক পর্যায়ে ভালোভাবে বাংলা শেখাতে পারলে ওরা নিজেরাই নিজেদের স্বপ্নের জন্য ছুটবে।’ কথাগুলো সনু রানী দাসের। নারায়ণগঞ্জের টানবাজার সুইপার কলোনির প্রথম স্নাতক (গ্র্যাজুয়েট) তিনি। গত বৃহস্পতিবার কলোনির একটি ঘরে তাঁর সঙ্গে কথা হয়। হরিজনসম্প্রদায়ের ছেলেমেয়েরা কেন পড়াশোনায় পিছিয়ে, তাদের এগিয়ে চলার ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতাগুলো কী, কীভাবে সেগুলো দূর করা যায় এসব বিষয়ে নিজের ভাবনার কথা বলেছেন তিনি। এসব নিয়ে বহু দিনের ভাবনা তার। কলোনির সংকটের পাশাপাশি কথায় কথায় সনু তার নিজের জীবনের গল্প বলেন। বলেন, বাংলাদেশে এখনো একজন নারীকে উঠে আসতে হলে অনেক সংগ্রাম করতে হয়। আর সুইপার কলোনিতে জন্ম নেওয়া একটি শিশুর জন্য ভিন্ন ভাষায় পড়াশোনা করাটা আরো কঠিন।

‘ওরা জানতেই পারছে না, ওদের জন্য পৃথিবীতে কত বিস্ময় অপেক্ষা করছে। অথচ বাংলা ভাষাটাই ওদের কাছে ভয়ের বিষয়। পড়াশোনায় আনন্দ পায় না। আমরা এই শিশুদের বিস্ময়ের সন্ধান দিতে চাই। প্রাথমিক পর্যায়ে ভালোভাবে বাংলা শেখাতে পারলে ওরা নিজেরাই নিজেদের স্বপ্নের জন্য ছুটবে।’ কথাগুলো সনু রানী দাসের। নারায়ণগঞ্জের টানবাজার সুইপার কলোনির প্রথম স্নাতক (গ্র্যাজুয়েট) তিনি। গত বৃহস্পতিবার কলোনির একটি ঘরে তাঁর সঙ্গে কথা হয়। হরিজনসম্প্রদায়ের ছেলেমেয়েরা কেন পড়াশোনায় পিছিয়ে, তাদের এগিয়ে চলার ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতাগুলো কী, কীভাবে সেগুলো দূর করা যায় এসব বিষয়ে নিজের ভাবনার কথা বলেছেন তিনি। এসব নিয়ে বহু দিনের ভাবনা তার। কলোনির সংকটের পাশাপাশি কথায় কথায় সনু তার নিজের জীবনের গল্প বলেন। বলেন, বাংলাদেশে এখনো একজন নারীকে উঠে আসতে হলে অনেক সংগ্রাম করতে হয়। আর সুইপার কলোনিতে জন্ম নেওয়া একটি শিশুর জন্য ভিন্ন ভাষায় পড়াশোনা করাটা আরো কঠিন।