সুইডেনের প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী ম্যাগডালেনা অ্যান্ডারসন

সুইডেনের প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী ম্যাগডালেনা অ্যান্ডারসন
ছবি: সংগৃহীত
বিবিসি জানায়, প্রধানমন্ত্রী পদের জন্য সুইডেনের ৩৪৯ আসনের সংসদে অ্যান্ডারসনের পক্ষে ভোট দিয়েছেন ১১৭ জন। ভোট দেওয়া থেকে বিরত ছিলেন ৫৭ জন। বিপক্ষে ভোট দিয়েছেন ১৭৪ জন এবং একজন অনুপস্থিত ছিলেন।

ইতিহাস সৃষ্টি করলেন ম্যাগডালেনা অ্যান্ডারসন। নির্বাচিত হলেন ইউরোপের দেশ সুইডেনের প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে। বুধবার (২৪ নভেম্বর) দেশটির পার্লামেন্টে ভোটাভুটিতে তিনি প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হয়েছেন।


বিবিসি জানায়, প্রধানমন্ত্রী পদের জন্য সুইডেনের ৩৪৯ আসনের সংসদে অ্যান্ডারসনের পক্ষে ভোট দিয়েছেন ১১৭ জন। ভোট দেওয়া থেকে বিরত ছিলেন ৫৭ জন। বিপক্ষে ভোট দিয়েছেন ১৭৪ জন এবং একজন অনুপস্থিত ছিলেন।


সুইডেনের সংবিধান অনুযায়ী, সংসদে একজন প্রধানমন্ত্রী প্রার্থীর জন্য সংখ্যাগরিষ্ঠ আইনপ্রণেতার সমর্থনের দরকার হয় না। তবে, তার বিপক্ষে ১৭৫ জনের কম ভোট থাকতে হয়।


চলতি মাসের শুরুর দিকে সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটসের নেতা হিসেবে লোফভেনের স্থলাভিষিক্ত হন ৫৪ বছর বয়সী অ্যান্ডারসন। পার্লামেন্টের ভোটাভুটিতে বামদের সমর্থন পাওয়ার জন্য শেষ মুহূর্তে তাদের সঙ্গে পেনশন বাড়ানোর একটি চুক্তিতে পৌঁছেছিলেন তিনি। এর আগে, তিনি সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটসের জোটসঙ্গী গ্রিন পার্টি ও সেন্টার পার্টির সমর্থন পান।


তবে নির্বাচনের আগে বুধবার পার্লামেন্টের ভোটাভুটিতে ব্যাপক বেগ পোহাতে হয় অ্যান্ডারসনকে। কারণ সেন্টার পার্টি পার্লামেন্টের ভোটাভুটিতে অ্যান্ডারসনের প্রধানমন্ত্রী পদের জন্য বিরোধিতা করবে না বলে জানালেও বামদের সঙ্গে চুক্তি করায় বুধবার বাজেট পাসের আলোচনায় সমর্থন প্রত্যাহার করে নেওয়ার ঘোষণা দেয়।


এর ফলে অ্যান্ডারসনকে বিরোধী রক্ষণশীল মধ্যপন্থী, খ্রিস্টান ডেমোক্র্যাট এবং কট্টর-ডানপন্থী সুইডেন ডেমোক্র্যাটদের সঙ্গে সমঝোতা করে বাজেট পাস করাতে হতে পারে। আগামী শুক্রবার আনুষ্ঠানিকভাবে সুইডেনের প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ করবেন অ্যান্ডারসন।


উল্লেখ্য, সুইডেনই একমাত্র নর্ডিক দেশ যেখানে এর আগে কোনো নারীকে জাতীয় সংসদ নেতা হিসেবে নির্বাচিত করা হয়নি।