কেক ইন্টারন্যাশনালের রিপ্রেজেন্টেটিভ বাংলাদেশের তাসনুতা

তাসনুতা আলম
দেশের নারীদের সাফল্যের মুকুটে নতুন করে যোগ হলো আরেকটি পালক। সম্প্রতি নিজেদের অফিসিয়াল রিপ্রেজেন্টেটিভ হিসেবে মোট নয়জনের নামের সংক্ষিপ্ত তালিকা প্রকাশ করেছে কেক ইন্টারন্যাশনাল। সেই তালিকায় এবার জায়গা করে নিয়েছেন স্বর্ণজয়ী বাংলাদেশী কেক শিল্পী তাসনুতা আলম। পাক্ষিক অনন্যা

কেক তৈরিতে বিশ্বের সবচেয়ে বড় আসরের আয়োজন ও পৃষ্ঠপোষক সংস্থা কেক ইন্টারন্যাশনাল থেকে বহুবার স্বর্ণপদক জিতে নেওয়া এই কেক শিল্পীকে এবার নিজেদের প্রতিনিধি হিসেবে ঘোষণা করলো প্রতিষ্ঠানটি।

 

আসছে নভেম্বরে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া প্রতিযোগিতাকে সামনে রেখে কেক ইন্টারন্যাশনালের আন্তর্জাতিক পরিসরে পরিষেবা নিশ্চিতকরণ, কেক শিল্পে বিভিন্ন সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচন এবং বিশ্বজুড়ে আগ্রহী কেক শিল্পীদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দিতে নির্বাচিত প্রতিনিধিরা সক্রিয় থাকবেন।

 

গত বছরের ১৫ জুন যুক্তরাজ্যে অনুষ্ঠিত ব্রিটিশ সুগারক্রফট কেক এক্সপোতে শতভাগ নম্বর পেয়ে স্বর্ণপদক জিতে নেন তাসনুতা আলম। আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় তার যাত্রা শুরু ২০১৭ সালে, কেক ইন্টারন্যাশনাল বার্মিংহাম প্রতিযোগিতায় ব্রোঞ্জ পদক জয় দিয়ে। ২০১৮ সালে একই প্রতিযোগিতায় পেয়েছেন দুটি ব্রোঞ্জ। আর ২০১৯ সালে কেক ইন্টারন্যাশনাল লন্ডন প্রতিযোগিতায় তৃতীয়বারের মতো অংশগ্রহণ করে চার ক্যাটাগরিতে একাধারে দুটি স্বর্ণ, দুটি রৌপ্য ও একটি ব্রোঞ্জ পদক অর্জন করেন তিনি।

 

 

তাসনুতা পেশাগতভাবে কেক তৈরি শুরু করেন ছয় বছর আগে থেকে। তবে একদম প্রথম কেক বানানোর হাতেখড়ি হয়েছে তার মা কাওসার আলম এর কাছ থেকে। তাসনুতা জানান, তিনি জনপ্রিয় কেক আর্টিষ্ট ডন বাটলার, পল ব্রাডফোর্ড, রবার্ট হায়নেস এর কাছ থেকে কেক তৈরি শিখেছেন। শুধু তাই নয়, ২০১৭ সালে তিনি কেক ডেকোরেটিং এর উপরে ‘মাস্টার্স অফ কেক ডেকোরেটিং’ কোর্স করেছেন পিএমই লন্ডন ইউকে থেকে।

 

বিশ্বে কেক তৈরি প্রতিযোগিতার বিভিন্ন আসরে বিচারক হিসেবে দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি কেক শিল্পকে বাংলাদেশের আগ্রহীদের মাঝে ছড়িয়ে দিতে 'ম্যাগনিফিসেন্ট বাংলাদেশ' নামের একটি অনন্যা উদ্যোগের স্বপ্নদ্রষ্টা তাসনুতা আলম। দেশের কেক শিল্পের উন্নয়ন ও সেটিকে বিশ্বের সামনে তুলে ধরতে নিভৃতেই কাজ করে যাচ্ছেন তিনি।